অসাংবিধানিক শক্তির হাতে ক্ষমতা তুলে দেয়ার জন্য ২৮ অক্টোবরের নির্মম ঘটনা ঘটানো হয়েছে

মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক

ছাত্র সংবাদ : ২৮ অক্টোবর ২০০৬ সালে বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কালো অধ্যায়Ñ এ সম্পর্কে আপনার বক্তব্য জানতে চাই?
মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক : ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর রাজপথে প্রকাশ্য দিবালোকে লগি-বৈঠা দিয়ে পিটিয়ে মানুষ হত্যার নির্মম ও লোমহর্ষক ঘটনা বাংলাদেশের ইতিহাসে আসলেই একটি কলঙ্কময় অধ্যায়। এর দায় তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী, আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার। কারণ তিনি দলীয় লোকদেরকে লগি-বৈঠা দিয়ে রাস্তায় বের হওয়ার উসকানি দিয়েছিলেন। নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে অপরাধী খুনিদের শনাক্ত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।
ছাত্র সংবাদ :  ২৮ অক্টোবরের ফলশ্র“তিতেই ১/১১-এর সৃষ্টি বলে মনে করেন কি? আপনার দৃষ্টিতে এর নেপথ্যের কারণ কী হতে পারে?
মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক : এটা খুবই সঙ্গত যে, ১/১১ সৃষ্টির লক্ষ্যেই ২৮ অক্টোবর নির্মম ঘটনা ঘটানো হয়েছে। লোমহর্ষক পল্টন হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে একটি ভীতিকর ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হয়েছে একটি অসাংবিধানিক শক্তির হাতে ক্ষমতা তুলে দেয়ার জন্য।
ছাত্র সংবাদ : বর্তমান সরকার পল্টনের ঘটনার হত্যাকারীদের রক্ষায় মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে বলে কি আপনি মনে করেন?
মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক : একটি নীলনকশার নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসে সরকার ২৮ অক্টোবরে খুনিদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে। খুনিদের রক্ষা করার জন্যই মূলত বর্তমান সরকার এ মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে। কিন্তু এ দেশের মাটিতে এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের বিচার একদিন হবেই হবে।
ছাত্র সংবাদ : ২৮ অক্টোবর পল্টনের ঘটনার হত্যাকারীদের বিচার না হলে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতে পারে বলে কি আপনি মনে করেন?
মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক : ২৮ অক্টোবর পল্টন হত্যাকাণ্ডে জড়িত খুনিদের যদি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হয় তবে এ ধরনের লোমহর্ষক ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারে। এতে দেশ ও মানবতা উভয়ই ক্ষতিগ্রস্ত হবে।
ছাত্র সংবাদ : বাংলাদেশের বর্তমান রাজনীতিতে কোন গুণগত পরিবর্তন লক্ষ্য করছেন কি?
মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক : বাংলাদেশের বর্তমান রাজনীতিতে অনেক গুণগত পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কিন্তু কোনোটিই ইতিবাচক নয়, সবই নেতিবাচক। যেমন, একদলীয় বাকশাল কায়েমের জন্য দেশে চলছে বিরোধী দলসমূহকে নিশ্চিহ্ন করার ঘৃণ্য তৎপরতা। এদেশের শিক্ষাঙ্গন ও সমাজ থেকে ইসলামকে নিশ্চিহ্ন করার সব আয়োজন পাকাপোক্ত করা হচ্ছে। ওয়াদা খেলাপ, দুর্নীতি, নীতিহীনতা, সুবিধাবাদ, চাটুকারিতা আর পেশিশক্তির অপব্যবহার এ দেশের রাজনীতিকে কলুষিত করে তুলেছে। বিরাজমান এ নেতিবাচক রাজনীতি থেকে অবশ্য বেরিয়ে আসতে হবে। যে কোনো মূল্যে জাতিকে মুক্তি দিতে হবে অপরাজনীতি থেকে।
ছাত্র সংবাদ : ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা যাতে না হয় সে জন্য কী ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত বলে আপনি মনে করেন?
মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক : ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা যাতে না ঘটে সে জন্য দেশে আইনের শাসন, ন্যায় ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠা এবং সুষ্ঠু রাজনীতির বিকাশ ঘটাতে হবে।
ছাত্র সংবাদ : নিহতদের পরিবারের জন্য আপনার সান্ত্বনা কী?
মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক : ২৮ অক্টোবর যারা শাহাদত বরণ করেছেন তাদের সকলের পরিবারে প্রতি আমার সমবেদনা ও দোয়ার পাশাপাশি এ কথা বলতে চাই যে, শহীদের স্বজন হিসেবে আমাদের গর্ব করা উচিত যে হকের পথে তারা জীবন উৎসর্গ করে গেছেন।
ছাত্র সংবাদ : ইসলামী আন্দোলনের কর্মীরা ২৮ অক্টোবরের ঘটনা থেকে কী শিক্ষা গ্রহণ করতে পারেন?
মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক : হক্ব ও সত্যের পথে অবিচল থেকে বাতিলকে প্রতিরোধ করতে হবে। প্রয়োজনে সর্বোচ্চ ত্যাগ ও কুরবানির নজরানা পেশ করার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। এটাই হচ্ছে ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের জন্য ২৮ অক্টোবরে ঘটনার শিক্ষা।

SHARE

Leave a Reply