আত্মবিশ্বাস কিভাবে বাড়ানো যায়

মোস্তাফিজুর রহমান আশু#

আত্মবিশ্বাস একটি মানসিক শক্তি। ব্যক্তিজীবনের প্রত্যেকটি কাজের জন্য এ শক্তি প্রয়োজনীয়। যার আত্মবিশ্বাস যত বেশি, জীবনের সকল ক্ষেত্রে তার সফলতা তত বেশি। তাই মানুষ হিসেবে সফল হতে হলে আত্মবিশ্বাস চর্চা করার কোন বিকল্প নেই। বিশেষ করে ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের জন্য এর কোনো বিকল্প নেই, কারণ এ সংগ্রামমুখর পৃথিবীতে ইসলামী আন্দোলন করা আরও কঠিন সংগ্রামের। আর বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের জন্য এটা তো রীতিমতো চ্যালেঞ্জের। এ চ্যালেঞ্জকে  মোকাবেলা করতে প্রত্যেকটি কর্মীর আত্মবিশ্বাস, দৃঢ়তা ও ক্ষিপ্রতার সমন্বয় প্রয়োজন। আর Confidence ঐ তিনটি বিষয়ের সমন্বয়ের Key Word  হিসেবে কাজ করে।
আত্মবিশ্বাস উন্নয়নের বিভিন্ন কৌশল আছে। Attitude কে প্রভাবিত করে কিভাবে আত্মবিশ্বাসের লেভেলকে উন্নয়ন করা যায় তাই আজকের আলোচনার বিষয়।

৯টি ধাপে আমরা কাজটি সম্পন্ন করতে পারি
Negative চিন্তাগুলো চিহ্নিত করা
Negative চিন্তাগুলো এ রকম “I can’t do that”  ‘‘আমি এটা করতে পারব না’’ অথবা I will surely fail” “আমি অবশ্যই ব্যর্থ হবো” এ ধরনের চিন্তাগুলো আত্মবিশ্বাসকে দুর্বল করে। কোন কোন কাজ আমার দ্বারা সম্ভবই নয় বা কোন কাজগুলোতে আমার ব্যর্থতা নিশ্চিত বলে মনে হয় সেইগুলোকে প্রথমকে খুঁজে বের করা ও ক্রমিক তালিকা তৈরি করা।
Negative চিন্তাগুলোকে Positive-এ রূপান্তরিত করা
নিজের মধ্যের Negative বিষয়গুলোকে ক্রমিকের নিচের দিক থেকে Positive এ পরিবর্তন করে চিন্তা করা। যেমন- “I am going to try it” or I can be successful if I work at it ” বা “People will listen to me” আপনার জীবনের সংশ্লিষ্ট কাজের সাথে মিলিয়ে এভাবে চিন্তার রাজ্যকে বিস্তৃত করা।
Negative চিন্তাগুলোকে Positive চিন্তা দিয়ে অগ্রাহ্য করা
এ ধারাবাহিক প্রক্রিয়ায় শেষ পর্যন্ত আপনার Positive thoughts গুলো Negative thoughts  এর ওপর Brain space” তৈরি করবে। এভাবে আপনার Positive চিন্তার পরিধি দিন দিন বাড়তে থাকবে অর্থাৎ Confidence level উন্নত হতে থাকবে।
Positive support network কে maintain করা
পরিবার ও বন্ধুদের মধ্যে তাদের সাথে close সম্পর্ক তৈরি করুন যারা আপনার আত্মবিশ্বাসকে উন্নত করতে সাহায্য করে। তাদের কাছ থেকে দূরে থাকতে চেষ্টা করুন যারা আপনাকে নিরুৎসাহিত করে বা Criticize করে। যেহেতু আপনি আপনার Positive attitude চিন্তা করছেন ও লক্ষ্য পানে অগ্রসর হওয়ার জন্য চেষ্টা করছেন সুতরাং সহজেই আপনি পরিবেশ থেকে বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা পেতে পারেন। আপনি চিন্তা করুন কোন মানুষগুলো সত্যিই আপনার ভালো চায়। যারা আপনাকে সমর্থন দেবে ও উন্নয়নের জন্য ভূমিকা রাখবে সেই মানুষগুলোর সাথে বেশি সময় কাটান।
Negative বিষয়গুলোকে সমন্বয় করুন ও মনের রাখুন
অতীত থেকে শিক্ষা লাভ করে সামনে অগ্রসর হওয়ার চেষ্টা করুন। নতুন লক্ষ্য নির্ধারণ করুন ও সফল হতে চেষ্টা করুন। আপনি চিন্তা করুন আপনি সকল  Negative গুলো উত্তরণ করতে পারবেন এবং জীবনে সকল ক্ষতিগুলো কেটে উঠতে পারবেন।
নিজের যোগ্যতাকে চিহ্নিত করুন
প্রত্যেকের মধ্যেই বিশেষ কিছু দক্ষতার দিক থাকে, সুতরাং খুঁজে বের করুন আপনার মধ্যে কি সেই দক্ষতার দিক এবং আপনার দক্ষতার দিকটাকে Focus করুন। অন্যের সামনে নিজেকে উপস্থাপন করুন নিজের Art, Music, writing ও ব্যক্তিগত বিশেষ কাজের দক্ষতার প্রয়োগ দিয়ে।
নিজের মধ্যে আত্মমর্যাদাবোধক লালন করুন
আত্মবিশ্বাস যেন গর্ব-অহঙ্কার পর্যায়ে না পৌঁছে বরং তা যেন উন্নত ব্যক্তিত্বের পরিচায়ক হয়। এটা যাতে মানবতা, প্রতিযোগিতা, দক্ষতা ও যোগ্যতার চিহ্ন হয়। এ গুণগুলো পরিস্থিতি মোকাবেলা ও পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক।
উন্নত করার উপাদানকে গ্রহণ করুন
Positive respond আচরণকে আয়ত্ত করা। যেমন- Saying thank you, and smiling works well” এ ধরনের আচরণকে হৃদয়ঙ্গম করা ও প্রাত্যহিক কাজে ব্যবহারের চেষ্টা করুন। প্রতিশ্রুতিশীল কাজগুলোর তালিকা তৈরি করুন আত্মবিশ্বাসের সাথে সম্পন্ন করার জন্য চেষ্টা করুন।
আয়নার সামনে দাঁড়ান ও মুচকি হাসুন
আয়নার সামনে দাঁড়ান ও নিজেকে পরিবেশের মধ্যে মূল্যায়ন করুন যা Facial feedback theory” এর মূল কথা। নিজেকে এভাবে উপস্থাপন ব্রেনকে Encourage করে এবং যে কোন কাজের Motivation কে বৃদ্ধি করে। সুতরাং প্রতিদিন আয়নার সামনে দাঁড়ান ও মৃদু হাসি ((Smiling) আপনাকে খুশি রাখবে ও দীর্ঘমেয়াদি আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করবে।
আসুন আমরা আত্মবিশ্বাসী হতে চেষ্টা করি এবং সকল বৈরিতার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নিজেকে প্রস্তুত করি।

লেখক : সাইকোলজিস্ট ও সাবেক গবেষণা সম্পাদক, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির

SHARE

Leave a Reply