ইসলামী আন্দোলনের সামাজিক প্রভাব -এইচ এম জোবায়ের

ইসলামী আন্দোলন এক সর্বব্যাপী বিপ্লব প্রচেষ্টার নাম। সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রতিষ্ঠিত জাহেলিয়াত, কুফুর, শিরক এবং ইসলামবিরোধী অপশক্তিকে সবদিক থেকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে ইসলামী আন্দোলন সামনে এগিয়ে চলে। জাহেলিয়াতের ফুলশয্যায় আয়েশরত কুফরি শক্তি নড়ে চড়ে বসে। তাদের সাথে হাত মেলায় সমাজের ধনিক-বণিক ও এলিট শ্রেণীর কায়েমি স্বার্থবাদীরা। এসব প্রভাবশালী মহলের নিমক খাওয়া আমজনতা মেষপালের ন্যায় দল নেতার অনুসরণ করে চলে মাত্র। ফলশ্রুতিতে দেখা যায় সমাজের বেশিরভাগ মানুষ বুঝে না বুঝে ইসলামী আন্দোলন এবং এর অনুসারীদের বিরোধিতায় লিপ্ত হয়। রাষ্ট্রশক্তি ইসলামী আন্দোলনের বিরোধিতায় সদা সম্মুখ সেনানীর ভূমিকা পালন করে। আপাতদৃষ্টিতে ইসলামী আন্দোলন তিরস্কার, উপহাস এবং হাস্যরসের পাত্রে পরিণত হয়। প্রভাবশালী লোকদের বিরোধিতা ও কতিপয় দুর্বল লোকদের সমর্থনপুষ্ট ইসলামী আন্দোলন জাতীয়-আন্তর্জাতিক পরিসরে বন্ধুহীন হয়ে পড়ে এবং এর অনুসারীগণ অনেকটা ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীতে পরিণত হন। এহেন পরিস্থিতিতে এ আন্দোলনকে প্রভাবহীন মনে হলেও কার্যত ও দীর্ঘ মেয়াদে এ আন্দোলনের প্রভাব সমাজের প্রতিটি দিক ও বিভাগে মেঘলুপ্ত সূর্যের ন্যায় বিরাজমান থাকে। সময়ের ব্যবধানে মেঘ কেটে গিয়ে ইসলামী আন্দোলন নামক সূর্য উঁকি দেয় স্বমহিমায়, অতঃপর সমাজের প্রতি ইঞ্চি মাটিকে বিপ্লবের বীজ বপনের উপযোগী করতে ক্রমাগত প্রচেষ্টায় লিপ্ত হয়। আন্দোলনের উর্বর জমিন ফসল ফলানোর উপযোগী হওয়ামাত্র আষাঢ়ের বর্ষণের ন্যায় বিপ্লব এসে যায় এবং সেই বিপ্লবের সু-ঘ্রাণ বসন্ত বাতাসের মত শীতের সকল জরা-জীর্ণতাকে ধুয়ে-মুছে সাফ করে দেয়। তাই সমাজ ও রাষ্ট্রে ইসলামী আন্দোলন সক্রিয় থাকা একটি বড় নেয়ামত। এর প্রভাব বৃক্ষরূপী সমাজের পাতা থেকে শেকড় পর্যন্ত প্রোথিত। ইসলামী আন্দোলনের সামাজিক প্রভাব নিয়েই আজকের আলোচনা।
বর্তমান সমাজ ও ইসলামী আন্দোলন

অর্থনৈতিক সমীক্ষার রিপোর্ট মতে, বর্তমানে বংলাদেশের মোট জনসংখ্যা ১৫.৮৯ কোটি। শিক্ষার হার ৬২.৭% এবং সাক্ষরতার হার ৭+ বছর ৬৩.৬%। বিশাল জনগোষ্ঠীর অনুপাতে এই শিক্ষার হার মোটামুটি চলনসই বলা যেতে পারে। দিন দিন বাড়ছে শিক্ষা গ্রহণের প্রবণতা। সবকিছুর সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে দুর্নীতির মাত্রা। বিশ্বের শীর্ষ দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের মধ্যে ২০১৭ সালে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫তম। বিশ্লেষকগণ একে ভাল বলেননি। দুর্নীতি সূচকে ভাল থেকে খারাপ, এই তালিকায় এ বছর বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৫। অথচ এর আগের বছর অবস্থান ছিল ১৩৯। অর্থাৎ ছয় ধাপ অবনতি হয়েছে। খাত ভিত্তিক হিসেবে- আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা, ভূমি প্রশাসন, বিচারিক সেবা, স্বাস্থ্য, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান কৃষি, বিদ্যুৎ, কর ও শুল্ক, শিক্ষা, ব্যাংকিং, বীমা, এনজিও উল্লেখযোগ্য। এসব খাতে সেবা নিতে গিয়ে ৬০ থেকে ৭০ ভাগ মানুষ অবৈধ লেনদের এবং হয়রানির শিকার হন। পক্ষান্তরে আমরা যদি চিন্তা করি তাহলে দেখতে পাবো এই সেক্টরগুলোর কর্ণধার, কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রিধারী, বিসিএস ক্যাডার, নন ক্যাডার এবং মেধাবী ব্যক্তি। তাদের দেশী-বিদেশী সনদ দেশের সুনাম, উন্নতি-অগ্রগতি অর্জন এবং দুর্নীতি-স্বজনপ্রীতি রোধে ভূমিকা রাখার পরিবর্তে বিপরীত ভূমিকা পালন করে চলেছে। চারদিকে নৈরাজ্য, অরাজকতা, মারামারি, খুনাখুনি ও অমানবিকতার ধ্বংসস্তূপে দাঁড়িয়ে একাকী পথ চলছে ইসলামী আন্দোলন। কাদায় বসবাস করেও যার অনুসারীদের গায়ে কোন কাদা লাগে না। কুরআন-হাদিসের শিক্ষা বর্তমান শিক্ষাব্যবস্থায় না থাকায় সেখান থেকে পাস করা লোকেরা পুঁজিবাদী বিকৃত মানসিকতা নিয়ে বের হন এবং তাদের দিন-রাতের সকল কাজ-কর্মে দুর্নীতি, সুদ-ঘুষ, লুটপাট, হিং¯্রতা, অমানবিকতা ও বিবেকহীনতারই পরিচয় পাওয়া যায়। পক্ষান্তরে কুরআন-হাদিসের নিখাদ ও পূর্ণাঙ্গ অধ্যয়ন-অনুশীলন ইসলামী আন্দোলনের অনুসারীদের মধ্যে থাকায় তারা বিবেক, মূল্যবোধ ও উদারতার এক সুউচ্চ মানদন্ডে অবস্থান করেন। ফলশ্রুতিতে তাদের চরিত্রে সততা, দক্ষতা, মানবিকতা এবং স্বীয় দায়িত্ব-কর্তব্য পালনে একনিষ্ঠতা ও জবাবদিহিতার এক অপূর্ব বহিঃপ্রকাশ দেখতে পাওয়া যায়।
অফিস-আদালতে এই সৎ ও আন্তরিক লোকদের প্রমোশন কম হলেও সহকর্মীগণ আড়ালে তাদের প্রশংসা করতে বাধ্য হন। বসগণ তাদের কঠিন ও জটিল কাজগুলো এই ব্যক্তিদের দ্বারাই করিয়ে নিয়ে থাকেন। উন্নত চারিত্রিক মাধুর্য নিয়ে সমাজে বাস করা এ ধরনের লোকদের প্রভাব সমাজেও দেখতে পাওয়া যায়। তাদের নৈতিক প্রভাব পুঁজিবাদীদের আর্থিক প্রভাবকে ম্লান করে দেয়।

ধর্ম-দীন ও ইসলামী আন্দোলন

ধর্ম ও দীনের মধ্যে পার্থক্য- আকাশ ও জমিন। কুরআন নাজিলের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য এবং রাসূল (সা) প্রেরণের মহান উদ্দেশ্যের দিকে তাকালে সন্দেহাতীতভাবে বলা যায়- ইসলাম কতিপয় আনুষ্ঠানিক বন্দেগিসর্বস্ব কোন ধর্মের নাম নয়। বরং আল ইসলাম হচ্ছে একটি পূর্ণাঙ্গ জীবনব্যবস্থার নাম। মানবজীবনের প্রতিটি দিক ও বিভাগের পথনির্দেশনার একমাত্র আলোকবর্তিকা হচ্ছে দীন ইসলাম। কিন্তু আমাদের সমাজের দিকে তাকালে হতাশার এক করুণ চিত্র সামনে আসে। দীন ইসলামকে নিয়ে মনগড়া আলোচনা এবং অনুসরণের চিত্র দেখতে পাওয়া যায়। আলেমসমাজের ব্যাখ্যা-অপব্যাখ্যা, মূর্খদের কল্পিত ও পূর্ব পুরুষদের দোহাইমূলক অনুসরণ, রাজনীতিবিদদের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও লোকদেখানো ইসলাম মানা এবং এক শ্রেণির জ্ঞানপাপী ও অর্ধ শিক্ষিত মানুষের আংশিক ইসলামের দাওয়াত, প্রচার ও অনুসরণ আমাদের জাতিকে মারাত্মক বিভ্রান্তির মধ্যে ঠেলে দিয়েছে। এহেন পরিস্থিতিতে ইসলামের পূর্ণাঙ্গ কর্মসূচি ও তৎপরতা নিয়ে কাজ করছে ইসলামী আন্দোলন। ইসলামী আন্দোলনের অনুসারীগণ ইসলামকে লোকদেখানো অনুষ্ঠান সর্বস্ব ধার্মিকতার নিষ্প্রাণ খোলস থেকে বের করে এনেছেন। তারা ইসলাম ও শরিয়তের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দেন, গুরুত্বহীন বিষয়ে বাড়াবাড়ি করেন না এবং ফরজকে ফরজ ও নফলকে নফলের স্থানে রাখেন। ফলশ্রুতিতে তারা গোঁড়ামি, সঙ্কীর্ণতা, একদেশদর্শিতা থেকে মুক্ত হয়ে উদারতার নীতি গ্রহণ করেন। নীতি হিসেবে উদারতা বরাবরই ময়দানে জয়ী হয়ে থাকে। তাই ইসলামকে যারা ‘কমপ্লিট কোড অফ লাইফ’ হিসেবে মানার চেষ্টা করেন তারা সমাজে এক স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হন। তাদের ব্যক্তিত্ব ও সহনশীলতার কাছে সমালোচকরাও হার মানে। নগদ লাভ ও ক্ষমতাসীনদের সাময়িক প্রভাবের কারণে সাধারণ মানুষ তাদের দাওয়াত প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়ে না মানলেও মনে মনে ঐ লোকগুলো ইসলামী আন্দোলন ও এর অনুসারীদের সমর্থকে পরিণত হন। তাই বলা যায়, একমাত্র ইসলামী আন্দোলনই পতনোন্মুখ এই সভ্যতার পতন ঠেকাতে পারে।

জেল-জুলুম-নির্যাতন

এক শ্রেণীর কায়েমি স্বার্থবাদী শক্তি সবসময় ইসলামী আন্দোলনের বিরোধিতা করে থাকেন। নমরূদ, ফেরাউন, আবু জাহেলদের অনুসারীর সংখ্যা প্রতি যুগেই বেশি ছিল, এখনো তাই। প্রতিষ্ঠিত কায়েমি স্বার্থবাদ কখনোই কুরআনের রাজ প্রতিষ্ঠার আন্দোলনকে বরদাশত করেনি। তারা নানান বাহানায় আন্দোলনের কর্মীদের ওপর হামলা, মামলা, জুলুম-নির্যাতন ও প্রাণ হরণ করে থাকে। তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে- ইসলামী আন্দোলকে নিস্তেজ করা এবং বিপ্লবীদের আওয়াজকে স্তব্ধ করে দেওয়া। কিন্তু ইতিহাস সাক্ষী তাদের এই প্রচেষ্টা সৃষ্টির শুরু থেকেই ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়ে আসছে। বিপরীতে দুর্বল লোকদের ওপর প্রতিষ্ঠিত শক্তির জুলুম নির্যাতন সাধারণ মানুষের কৌতূহলের কারণ হয়েছে এবং এ আন্দোলনকে জানার প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে। আল্লাহর রাসূলের প্রিয় সাহাবী খুবাইব ইবনে আদি (রা) কে শূলিতে চড়ানোর দৃশ্য যেমন হযরত সা’ঈদ ইবনে আমের আল জুমাহী (রা) কে পরবর্তীতে বারবার মর্মপীড়া দিয়েছে তেমনি হযরত বেলাল (রা) এবং হজরত খাব্বাব (রা) দের ওপর চালানো সীমাহীন নিপীড়ন আরবের মানুষকে অনুসন্ধিৎসু করেছে ইসলামকে জানার ও মানার ব্যাপারে। বাংলাদেশেও এর ব্যতিক্রম নয়। ইসলামী আন্দোলনের ওপর নিকট অতীতে চালানো জুলুম-অত্যাচারের প্রভাব সমাজে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এবং সাধারণ মানুষের অন্তরে কী পরিমাণ পড়েছে তা চিন্তাশীল মাত্রই অনুধাবন করতে পারেন। বরং বলা যায় বিরোধীদের সকল অপতৎপরতা বুমেরাং হয়েছে। নির্যাতিতের পরিবারের উপর এর প্রথম প্রভাব পড়েছে। পরিবার ও নিকট আত্মীয়দের মধ্যে যারা ইসলামী আন্দোলনকে অপছন্দ করতেন তারা এই সময়ে এসে অনুধাবন করেন যে, সত্যিই, আন্দোলনই সঠিক। তারা দেখেন তাদের নিকটজনকে বিনা কারণে হয়রানি ও নির্যাতন করা হচ্ছে, জেলে দিনের পর দিন আটকে রাখা হচ্ছে। নিকটজনের পাশাপাশি পাশের বাড়ির এবং গ্রামের সাধারণ মানুষও বুঝতে পারেন- এই নিরীহ, গরিব, মেধাবী ছেলেটির তো কোন দোষ নাই, তাহলে কেন তাকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেল? এই ধরনের হাজারো প্রশ্ন নিজেকে নিজেই করে তারা উত্তর পান- সত্যিই এরা সঠিক পথে আছে। এভাবে বিরোধী মহলের অপপ্রচার, হত্যা, নির্যাতন ও জুলুম ইসলামী আন্দোলনের জন্য যুগ যুগ ধরে প্রচারের ভূমিকা পালন করে আসছে। আন্দোলনকে কোটি টাকা খরচ করে যে প্রচারণা চালানো লাগতো বিরোধী বন্ধুগণ বিনা পয়সায় তা করে দিচ্ছেন।

ছাত্র ও তরুণ সমাজ

সুপিরিয়র টেকনোলজির যুগে অভিভাবকদের চিন্তার শেষ নেই। সন্তান স্কুল-কলেজে গিয়ে কী করছে? আদৌ যাচ্ছে কি-না? পড়ালেখা ঠিকঠাক চলছে তো? ইত্যাদি হাজারো প্রশ্ন অভিভাবকদের চিন্তায় ঘুরপাক খায় সারাদিন। বন্ধুর হাতে বন্ধু খুন, প্রত্যাখ্যাত হয়ে বান্ধবীকে নির্যাতন-হত্যা, এসিড নিক্ষেপ, অপহরণ, আত্মহত্যা ইত্যাদি পত্র-পত্রিকার নিয়মিত খবরের অংশ বিশেষ। অত্যাধুনিক প্রযুক্তি শিক্ষার্থী ও যুবসমাজের হাতে থাকায় তাদের মাঝে এমন কিছু অসৎ চিন্তা ও কর্ম পরিলক্ষিত হয় যা সাধারণ বিবেকবান মানুষের চিন্তার বাইরে। স্মার্ট ফোন বা আই ফোন এবং হাই স্পিডি ইন্টারনেট এমন কোমলমতীদের হাতে পড়ছে যারা এর ব্যবহারের সীমা-পরিসীমা বোঝার জ্ঞান রাখে না। প্রযুক্তির অপব্যবহার তরুণ-যুবকদের চরিত্রকে উগ্রতা, হিং¯্রতা, অনমনিয়তা, কুটিলতা এবং অনৈতিকতার অতল গহবরে পৌঁছে দিচ্ছে। ইন্টরনেটের নিষিদ্ধ সাইটগুলোয় বিশেষত ছাত্রদের অবাধ বিচরণ অবক্ষয়ের শেষ মাত্রা এনে দিয়েছে। সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের কন্ট্রোলার অব সার্টিফায়িং অথরিটিজ (সিসিএ) এর এক জরিপে বলা হয়েছে, দেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যে অষ্টম হতে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রীদের ৬৯ শতাংশই ইন্টারনেটে আসক্ত। এদের মধ্যে আবার ৮৩ শতাংশ ফেসবুক, ভাইবার, ইমো, ইনস্টাগ্রামসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয়। এই যখন দেশের তরুণ যুবকদের অবস্থা তখন ইসলামী আন্দোলনকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে কিছু শিক্ষার্থী উপর্যুক্ত অন্যায়-অশ্লীলতা থেকে নিজেদের সম্পূর্ণ মুক্ত রাখতে সক্ষম হয়েছেন। দেশের বুদ্ধিজীবী ও সুশীলসমাজের পক্ষ থেকে তাদের স্যালুট। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের একজন শিক্ষার্থী যখন মদ-গাঁজা-ইয়াবা সেবন থেকে বিরত থাকেন, বান্ধবীদের সাথে অহেতুক আড্ডাবাজিতে লিপ্ত না হন, মুখ থেকে দুই অক্ষরেরও কোন অশ্লীল শব্দ ব্যবহার না করেন তখন এই নির্মল চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য বন্ধু মহলে আলোচনার বিষয়ে পরিণত হয়। সচেতন-বিবেকবান অনেকেই তাদের পথ অনুসরণে এগিয়ে আসেন। জওহর দোদায়েভ: এসএসসি পরীক্ষা চলাবস্থায় পরীক্ষার হলে বাহির থেকে সমাধান হাতে পায়। বন্ধুরা সবাই মনের মাধুরী মিশিয়ে লিখে যায়। কিন্তু জওহর দোদায়েভ সমাধান হাতে পাওয়ার সাথে সাথে তা স্যারের সামনেই ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে ফেলে। তার এই সততা পরীক্ষার হলের সবাই অত্যাশ্চর্যের মত উপভোগ করে। এই হচ্ছে ইসলামী আন্দোলনের সংস্পর্শে থাকা একজন এসএসসি পরীক্ষার্থীর নির্মল চরিত্র।
পেশাজীবী মহল

জীবন ও জীবিকার তাগিদে মানুষ কত পেশাই না বেছে নেন। ইসলামের মূলনীতি মেনে যে কোন পেশাই গ্রহণ করা যায়। তবে কিছু পেশা সমাজের জন্য, মানুষের জন্য অতীব জরুরি যেমন- ডাক্তারি, শিক্ষকতা, ইঞ্জিনিয়ারিং, আইন, বিচার, সাংবাদিকতা ইত্যাদি। একজন ডাক্তার তার বিদ্যা ও আন্তরিকতা দিয়ে একজন অসুস্থ মানুষকে সুস্থ করে তুলতে পারেন। একজন শিক্ষক তার মেধা ও অভিজ্ঞতা থেকে পাঠদানের মাধ্যমে দেশের জন্য ভবিষ্যৎ সৎ, দক্ষ ও আদর্শবান নাগরিক উপহার দিতে পারেন। একজন সাংবাদিক তার লেখনীশক্তির মাধ্যমে সমাজ থেকে অন্যায়-অবিচার, অশ্লীলতা, মাদক, দুর্নীতি দূর এবং দেশে আইন ও ইনসাফের শাসন প্রতিষ্ঠায় কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারেন। একজন আইনজীবীর কাছে অধিকারহারা মানুষ আইনগত সহায়তার মাধ্যমে অধিকার ফিরে পেতে পারেন। কিন্তু উক্ত পেশার কেউ যদি নীতি ও দীনহীন হন তবে তার কাছে সেবার পরিবর্তে দুর্ভোগ, অকল্যাণই উপহার পাওয়া যেতে পারে। যেমন- একজন অপেশাদার ও বদমেজাজি ডাক্তার চোখের অপারেশন করতে গিয়ে রোগীকে বেশি যন্ত্রণা দিতে পারেন এবং তার অপূর্ণাঙ্গ চিকিৎসায় রোগীর চোখের আলো চিরদিনের জন্য নির্বাপিত হয়ে যেতে পারে। একজন হলুদ সাংবাদিকের কলম কখনো সমাজের মানুষের বিপথগামিতার কারণ হতে পারে। একজন অসৎ বিচারকের রায় নিরপরাধ মানুষের জীবন হরণের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। বর্তমানে সর্বত্র এই চিত্রই বিরাজমান। হাতেগোনা ব্যতিক্রমীদের সবাই চেনেন, জানেন। তাদের সেবা মানুষের হৃদয়-মন কেড়ে নেয়। তাদের সততা, দক্ষতা, আন্তরিকতা এবং অমায়িক ব্যবহার সেবাগ্রহীতার মনে গেঁথে যায়। ইসলামী আন্দোলনই এ ধরনের অগণিত মানুষ তৈরি করেছে। এদের চরিত্র ও কর্মের উপমা প্রতিটি পেশায় অল্প হলেও দেখতে পাওয়া যায়।
পরিশেষে সূরা আল বাকারার ৩০ নম্বর আয়াত দিয়ে আলোচনা শেষ করতে চাই। সেখানে আল্লাহপাক পৃথিবীতে মানুষ নামক খলিফা পাঠানোর কথা বলেছেন। খলিফা অর্থ- প্রতিনিধি। তিনি আসল মালিক নন বরং আসল মালিকের প্রতিনিধি। মালিক তাকে যে কাজ যেভাবে করার জন্য আদেশ দিয়েছেন তাকে সে কাজ ঠিক সেভাবেই আঞ্জাম দিতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটলে সে তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করেনি বলেই বিবেচিত হবে। প্রতিনিধির কোন স্বাধীন ক্ষমতা নেই, মালিকের দেয়া কিছু এখতিয়ারই তাই এখতিয়ার। প্রতিনিধির কোনো স্বতন্ত্র ইচ্ছাশক্তি নেই, মালিকের ইচ্ছার বিলকুল বাস্তবায়নই হবে তার একমাত্র পেরেশানির কারণ। ইসলামী আন্দোলন এই চেতনাকে শাণিত করে। এই শাণিত চেতনার লোক সমাজে যত বেশি হবে বিপ্লব তত ত্বরান্বিত হবে।
লেখক : সমাজ ও রাজনীতি বিশ্লেষক

SHARE

Leave a Reply