এ ঘৃণ্য অপরাধের জন্য আওয়ামী লীগের বিচার চাই – মু. সাইফুল আলম

Chhatrasangbadছাত্র সংবাদ : ২৮ অক্টোবর ২০০৬ সালে বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কালো অধ্যায়, এ সম্পর্কে আপনার বক্তব্য জানতে চাই।
মু. সাইফুল আলম : ধন্যবাদ, এ ঘৃণ্য অপরাধের জন্য আওয়ামী জাহেলিয়াতের বিচার চাই। আজ না হোক, কোনো একদিন আওয়ামী লীগকে এর জন্য বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।
ছাত্র সংবাদ : বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য ২৮ অক্টোবর ২০০৬ এর ভূমিকাকে আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?
মু. সাইফুল আলম : ২৮ অক্টোবর ছিল পলাশী ট্র্যাজেডির পূর্বাবাস, পরিণতিতে ক্ষমতায় ঘষেটি বেগম, দিল্লির ক্রীতদাস সরকার।
ছাত্র সংবাদ : ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা যাতে জাতিকে আর প্রত্যক্ষ করতে না হয় সে জন্য কী ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত বলে আপনি মনে করেন?
মু. সাইফুল আলম : ক্রীতদাস শাসনের পতনে চলমান সংগ্রামেকে তীব্র করা। দেশপ্রেমিক ঈমানদার সরকার কায়েম করা।
ছাত্র সংবাদ : নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে দায়ের করা মামলা সরকার প্রত্যাহার করে নিয়েছে। এটা কি মানবাধিকারের লঙ্ঘন নয়? এ ব্যাপারে আপনার মন্তব্য কী?
মু. সাইফুল আলম :  দানবের শাসনে মানবাধিকার আশা করা যায় না, আমিও আশা করি না।
ছাত্র সংবাদ : স্বাধীনতার ৪৩ বছর পরও স্বাধীনতার পক্ষ-বিপক্ষ নিয়ে বিভেদ সৃষ্টিকে আপনি কোন দৃষ্টিতে দেখছেন?
মু. সাইফুল আলম : জাতিকে বিভক্তি রেখে ষড়যন্ত্রকারীরা আমাদের গোলাম বানিয়ে রাখতে চায়। স্বাধীনতার ৪৩ বছর পরও স্বাধীনতার পক্ষ-বিপক্ষ নিয়ে বিভেদ সৃষ্টি তারই প্রতিফলন।
ছাত্র সংবাদ : আওয়ামী দুঃশাসনের হাত থেকে জাতিকে মুক্ত করার জন্য সকল ছাত্রসংগঠনের  ঐক্যবদ্ধ হওয়া  সময়ের অনিবার্য দাবিÑ এ ব্যাপারে আপনার মন্তব্য কী?
মু. সাইফুল আলম :  জাগপা ছাত্রলীগ শুরু থেকেই ঐক্যবদ্ধ ছাত্র-আন্দোলননের পক্ষে দৃঢ় অবস্থান গ্রহণ করেছে। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠন না হওয়ার কারণেই হাসিনার অবৈধ সরকার এখনো বহাল আছে।
ছাত্র সংবাদ : সমৃদ্ধ দেশ গঠনের জন্য ছাত্র ও যুবসমাজের উদ্দেশে আপনি কিছু বলবেন কি?
মু. সাইফুল আলম : অধিকার প্রতিষ্ঠার সকল আন্দোলনে ছাত্রদের অংশগ্রহণ ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। আরেকটি সত্যিকার স্বাধীনতাযুদ্ধের প্রস্তুতি নেয়া এখন সময়ের দাবি। সমৃদ্ধ বাংলাদেশ নির্মাণে সাচ্চা দেশপ্রেমিক সরকার কায়েম করার ক্ষেত্রে ছাত্রসমাজ অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে।
লেখক : কেন্দ্রীয় সভাপতি, জাগপা ছাত্রলীগ

SHARE

Leave a Reply