ঘটনাটি ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি ঘৃণ্যতম অধ্যায়

শেখ শওকত হোসেন নিলু

ছাত্র সংবাদ : ২৮ অক্টোবর ২০০৬ বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কালো অধ্যায়- এ সম্পর্কে আপনার বক্তব্য জানতে চাই?
শেখ শওকত হোসেন নিলু : এটি নিঃসন্দেহে একটি কালো অধ্যায় এবং কালো দিবস। প্রতিহিংসার রাজনীতি যে কত ভয়ঙ্কর হতে পারে এ ঘটনা থেকে জাতি তা প্রত্যক্ষ করেছে। সেদিনকার ঘটনাটি ছিল মূলত দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে নির্বাচনপ্রক্রিয়া বানচাল করার আওয়ামী ষড়যন্ত্র।
ছাত্র সংবাদ : ২৮ অক্টোবরের ফলশ্র“তিতে ১/১১-এর সৃষ্টি হয়েছে বলে মনে করেন কি? আপনার দৃষ্টিতে এর নেপথ্যের কারণ কী হতে পারে?
শেখ শওকত হোসেন নিলু : ১/১১-এর অনেক আগে থেকে তারা এমন একটি ঘটনার পূর্বপ্রস্তুতি গ্রহণ করে। আর তাই এর ক্ষেত্র প্রস্তুত করতে তারা ২৮ অক্টোবরের নির্মম হত্যাকণ্ডের সৃষ্টি করে। কারণ তারা জানত, সে সময় নির্বাচন হলে তারা বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হবে। তাই তারাই প্রশাসনকে নিজেদের মতো করার প্রয়োজন মনে করে। তারই ধারাবাহিকতায় প্রধান রাজনীতিবিদদের সরাসরি ইন্ধনে দলীয় কর্মীরা রক্তের হোলি খেলায় মেতে উঠেছিল।
ছাত্র সংবাদ : বর্তমান সরকার পল্টনের ঘটনার হত্যাকারীদের রক্ষায় মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে বলে কি আপনি মনে করেন?
শেখ শওকত হোসেন নিলু : বর্তমান সরকার তাদের অপকর্ম ঢাকার জন্য ওই নির্লজ্জ হত্যাকাণ্ডের মামলা উঠিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও দেশের জনগণের কাছে তারা অপরাধী হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে। লগি-বৈঠা দিয়ে মানুষ পিটিয়ে হত্যা করে যারা কথিত গণতান্ত্রিক সরকারের ক্ষেত্র প্রস্তুত করেছিল ইতিহাস তাদের ক্ষমা করবে না।
ছাত্র সংবাদ : ২৮ অক্টোবরের ঘটনা থেকে আমরা কী শিক্ষা গ্রহণ করতে পারি?
শেখ শওকত হোসেন নিলু : এ ঘটনা থেকে এ দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে আওয়ামী রাজনীতির এ জঘন্যরূপ বর্তমান প্রজন্মের কাছে উন্মোচিত হয়েছে। আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই জামায়াতের কর্মীদের। তারা সেদিন মানবঢাল তৈরি করে তাদের নেতাদের জীবন রক্ষা করতে প্রাণপণ চেষ্টা করে গেছেন। নিজের জীবন উৎসর্গ করে সেদিন নেতার আদেশ পালন ও নেতৃত্বের প্রতি শ্রদ্ধার বিরল দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করেছিলেন জামায়াতের কর্মীরা, যা রাজনৈতিক ইতিহাসে মাইলফলক হয়ে থাকবে।
ছাত্র সংবাদ : বাংলাদেশের বর্তমান রাজনীতিতে কোন গুণগত পরিবর্তন লক্ষ করছেন কি?
শেখ শওকত হোসেন নিলু : না, বাংলাদেশের বর্তমান রাজনীতিতে কোন গুণগত পরিবর্তন হয়নি।
ছাত্র সংবাদ : ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা যাতে না হয় সে জন্য কী ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত?
শেখ শওকত হোসেন নিলু : ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের ঘটনা জাতিকে আর দেখতে না হয় এ জন্য রাজনৈতিক সহিষ্ণুতা প্রয়োজন এবং সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে জাতীয়তাবাদী ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী শক্তির ঐক্যবদ্ধ থাকা একান্ত জরুরি।
ছাত্র সংবাদ : বাংলাদেশের ইতিহাসে যারা এ জঘন্যতম ঘটনা ঘটিয়েছিল তাদের কি বিচার হওয়া উচিত?
শেখ শওকত হোসেন নিলু : ঘটনাটি ছিল রাজনীতি তথা বাংলাদেশের ইতিহাসের একটি ঘৃণ্যতম অধ্যায়। ইতিহাসের নির্মম, নিষ্ঠুরতম ও জঘন্যতম এ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত এবং এর হুকুমদাতাদের অবশ্যই বিচার হওয়া উচিত। এ ঘটনার মাধ্যমে বাংলাদেশকে একটি আশ্রিত রাষ্ট্রে পরিণত করা হয়েছে। দেশ এবং জাতীয় মর্যাদাকে সমুন্নত রাখতে এ ধরনের রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডের বিচার হওয়া জরুরি। আর তা না করে যারা এ ধরনের ঘটনা এড়িয়ে যাবে ইতিহাস তাদের ক্ষমা করবে না।

SHARE

Leave a Reply