তুরস্কের নির্বাচন এরদোগানের জয় ও আগামীর তুরস্ক -হাফিজুর রহমান

গত বছরের রেফারেন্ডামে নতুন সরকারপদ্ধতি গৃহীত হওয়ার পর প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচনটি আগামী বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালের নভেম্বরে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বেশ কিছু কারণে এগিয়ে আনা হয়। বিশেষ করে সিরিয়া ও ফিলিস্তিনসহ বিশ্বরাজনীতির নানা ইস্যুতে তুরস্কের যখন শক্তিশালী ভূমিকা রাখা দরকার তখন প্রেসিডেন্ট এরদোগান সম্ভবত চেয়েছিলেন দেশে একটি স্থিতিশীল সরকার আগে জরুরি। কারণ এই বড় ইস্যুগুলোর সমাধানে কাজ করার মাঝখানে দেশে নির্বাচন থাকলে তা হিতে বিপরীত হতে পারে। এ জন্যই একে পার্টির জোটে থাকা জাতীয়তাবাদী দল (এমএইচপি) গত ১৭ এপ্রিল আগাম নির্বাচনে যাওয়ার ইঙ্গিত প্রদান করে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৮ এপ্রিল প্রেসিডেন্ট এরদোগান সংবাদ সম্মেলনে ২৪ জুন প্রেসিডেন্ট ও পার্লামেন্ট নির্বাচনের ঘোষণা দেন।
নির্বাচনের ঘোষণা দেয়ার পর বিরোধী দলগুলো নির্বাচনকে স্বাগত জানায় এবং কম সময়ের মধ্যেই দেশে নির্বাচনের আমেজ সৃষ্টি হয়। নিম্নে নির্বাচনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিক উলেখ করছি:

নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী জোট ও দলসমূহ:
এবারের নির্বাচনে দীর্ঘদিন পর তুরস্কে জোটগতভাবে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে বড় দলগুলো। গত ১৬ বছর টানা এককভাবে ক্ষমতায় থাকা একে পার্টি জাতীয়তাবাদী দল এমএইচপি ও ইসলামী জাতীয়তাবাদী দল বিবিপির সাথে জোট করার ঘোষণা দেয়। অপর দিকে প্রধান বিরোধী দল সেক্যুলার সিএইচপি জাতীয়তাবাদী দল থেকে ভেঙে সৃষ্টি হওয়া ইয়িপার্টি, ইসলামপন্থী দল সাদাত পার্টি ও ডানপন্থী দল ডেমোক্রেটিক পার্টির সাথে জোটগতভাবে নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দেয়। কুর্দীদের দল এইচডিপিসহ আরো ছোট আকারের কয়েকটি দল এককভাবে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের পরিচিতি:
সরকারি জোটভুক্ত দলগুলো ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট ও একে পার্টির চেয়ারম্যান রজব তাইয়্যেব এরদোগানকে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করে। কিন্তু বিরোধী জোট একক প্রেসিডেন্ট প্রার্থী দিতে ব্যর্থ হয়। যার ফলে সিএইচপি থেকে প্রবীণ পার্লামেন্টারিয়ান মোহারের মইনজে, ইয়িপার্টি থেকে দলের চেয়ারম্যান মেরেল আকসেনার, সাদাত পার্টি থেকে দলের চেয়ারম্যান তেমেল কারামুলাহওলু প্রার্থী হন। সরকারি ও বিরোধী জোটের বাইরে কুর্দীদের দল থেকে সালাহউদ্দিন দেমিরতাস এবং ভাতান পার্টি থেকে দুয়ুপেরিনজিক প্রার্থী হন। তাতে মোট ছয়জন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ছিলেন এবারের নির্বাচনে।

নির্বাচনী প্রচারণা ও প্রচারণার সময়কার তুরস্ক
প্রার্থী ঠিক করার পর রাজনৈতিক দলগুলো প্রচারণা শুরু করে। প্রেসিডেন্ট এরদোগান ও একে পার্টি তাদের ১৬ বছরের সফলতার নানা দিক, বাস্তবায়িত প্রজেক্টগুলো ও আগামীর পরিকল্পনা নিয়েই মূল প্রচারণা চালায়। আর বিরোধী দলগুলো ১৬ বছর ধরে টানা ক্ষমতায় থাকা এরদোগান ও একে পার্টির বিপরীতে ‘পরিবর্তন’ শব্দটিকে নিয়ে মূল প্রচারণা চালায়।
নির্বাচনী প্রচারণায় পশ্চিমা মিডিয়া, লবি এবং দেশীয় নানা গ্রুপের কিছু কার্যক্রম ছিল খুবই ন্যক্কারজনক। বিশেষ করে নির্বাচন ঘোষণার পর থেকেই সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ডলারের দাম বাড়ানো ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের হঠাৎ দামবৃদ্ধি অনেকটা অস্বস্তির পরিবেশ সৃষ্টি করে। মে মাসে একরাতেই ডলারের দাম বেশ বেড়ে যায়। সরকার যদিও বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়ার কারণে কিছুটা প্রশমিত হয় তবুও বেশ অস্থিরতা ছিল।

নির্বাচন:
২৪ জুন তুরস্কের স্থানীয় সময় সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। নির্বাচনটি ছিল বেশ উৎসবমুখর এবং ব্যাপক অংশগ্রহণমূলক। ৮৬.২% ভোটারের উপস্থিতি ছিল। নির্বাচনে কারচুপি হয়নি কিংবা কোনো দল কারচুপির অভিযোগ করেনি বরং বিরোধী দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী পরাজয় মেনে নিয়ে এরদোগানের বিজয়ে শুভেচ্ছা জানান।

নির্বাচনের ফলাফল:
প্রেসিডেন্ট নির্বাচন:
১. রজব তাইয়্যেব এরদোগান (সরকারি জোট)-৫২.৬%
২. মোহারের মইনজে (সিএইচপি)-৩০.৬%
৩. সালাহউদ্দিন দেমিরতাস (এইচডিপি)-৮.৪%
৪. মেরেল আকসেনার (ইয়িপার্টি)-৭.৩%
৫. তেমেল কারামুলাহওলু (সাদাত পার্টি)-০.৯%
৬. দুয়ুপেরিনজেক (ভাতান পার্টি)-০.২%

সংসদ নির্বাচন:
১. সরকারি জোট : ৩৪৪টি আসন (৫৩.৭% ভোট)
ক. একে পার্টি : ২৯৫টি আসন (৪২.৬% ভোট)
খ. এমএইচপি: ৪৯টি আসন (১১.১% ভোট)

২. বিরোধী জোট: ১৮৯টি আসন (৩৩.৯% ভোট)
ক. সিএইচপি: ১৪৬টি আসন (২২.৬% ভোট)
খ. ইয়িপার্টি: ৪৩টি আসন (১০% ভোট)
গ. সাদাত পার্টি : ০০টি আসন (১.৩% ভোট)

৩. এইচডিপি: ৬৭টি আসন (১১.৭% ভোট)

নির্বাচনের ফলাফল : কিছু পর্যালোচনা
১. বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর পরিবর্তনের আওয়াজ ও আন্তর্জাতিক নানা ষড়যন্ত্রের পরও এরদোগান ও একে পার্টির জয় শুধু তুরস্কে নয় বরং পুরো মুসলিমবিশ্বেই স্বস্তি নিয়ে আসে।
২. এক সময় ইউরোপের রুগ্ণ দেশ হিসেবে পরিচিতি পাওয়া তুরস্কে একে পার্টি বিশাল উন্নয়নযজ্ঞ পরিচালনা করার মাধ্যমে যে সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং সুশাসন নিশ্চিত করেছে তাতে জনগণের ধারাবাহিক সমর্থন আছে কিনা তা জানতে নির্বাচনটি একে পার্টির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল। নির্বাচনে একে পার্টির স্বস্তির জয় জনগণের ধারাবাহিক সমর্থন তাদের ওপর আছে বলে প্রমাণ করে।
৩. বিশ্বরাজনীতিতে প্রেসিডেন্ট এরদোগানের ভূমিকা, সিরিয়া, ফিলিস্তিন ও রোহিঙ্গা ইস্যুতে তার পদক্ষেপ এবং আগামীর রাজনীতিতে তিনি যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন তাতে তুরস্কের জনগণের ভরসা আছে কিনা তা এরদোগানের জানা জরুরি ছিল। নির্বাচনে এরদোগান আগের চেয়ে বেশি ভোট পেয়ে প্রেসিডেন্ট পদে পুনর্নির্বাচিত হওয়ায় এক্ষেত্রে জনগণের ইতিবাচক সমর্থন আছে বলে বুঝা যায়।
৪. বিরোধীদল কিংবা জোটের দিক থেকে চিন্তা করলে তাদের ফলাফল পুরোপুরি প্রত্যাশিত না হলেও একদম অপ্রত্যাশিত হয়নি। নির্বাচন-পরবর্তী বিরোধী দলগুলোর সংবাদ সম্মেলন পর্যালোচনা করলে তাতে স্পষ্ট হয় যে, তারা ফলাফলে খুশি।

আগামীর তুরস্ক:
এ নির্বাচনের মাধ্যমে তুরস্ক প্রেসিডেনশিয়াল সরকারপদ্ধতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রবেশ করবে। এই পদ্ধতিতে প্রেসিডেন্টই এখন নির্বাহী ক্ষমতা প্রয়োগ করবেন তাতে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার দিক থেকে প্রেসিডেন্ট এরদোগান এখন আগের চেয়ে আরো শক্তিশালী হয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারবেন। যার ফলে বিশ্বরাজনীতি বিশেষ করে সিরিয়া ও ফিলিস্তিন ইস্যুসহ নানা বিষয়ে এরদোগান আগের চেয়ে শক্ত অবস্থানে যাওয়ার সুযোগ পাবেন। তুরস্কের সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার পাশাপাশি নতুনভাবে আরো বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে সহজ হবে। আশা করা যাচ্ছে প্রেসিডেন্ট এরদোগানের নেতৃত্বে আগামী পাঁচ বছরে তুরস্ক অনেক এগিয়ে যাবে এবং মুসলিম বিশ্বের জন্য আরো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।
লেখক : পিএইচডি গবেষক, তুরস্ক

SHARE

Leave a Reply