ফেনী নদীর পানিচুক্তি সচেতন ব্যক্তিদের চিন্তাগুলো খুন । মো: রাশেদুল ইসলাম

ফেনী নদীর পানিচুক্তি সচেতন ব্যক্তিদের চিন্তাগুলো খুনভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সাবরুম এলাকার খাবার পানি সংকট দূর করতে ফেনী নদী থেকে ১.৮২ কিউসেক পানি প্রত্যাহারের চুক্তি হয়েছে যৌথ নদী কমিশনের মাধ্যমে। এ খবর প্রচার হওয়ায় ফেনী নদী পাড়ের মানুষ প্রতিবাদী হয়ে উঠেছেন। তারা ভারতকে পানি দেয়ার প্রতিবাদে আন্দোলন করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ফেনী নদী পাড়ের মানুষের মুখে এক আওয়াজ ‘জীবন দিয়ালামু, হেনী নদীর হানি ভারতেরে দিতাম ন’। জীবন তারা না দিতে পারলেও তাদের প্রাণের দাবির সাথে একাত্ম হওয়া বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদের জীবন গেলো।
সীমান্তবর্তী এই নদী থেকে যৌথ নদী কমিশনের অনুমতি ছাড়া পানি তোলার অনুমতি নেই। বাংলাদেশী কৃষকদের তৈরি ৩টি পাম্প থেকে পানি তোলার ক্ষেত্রে বিজিবির কড়া প্রহরায় এই নিয়মের বাইরে যেতে না পারলেও ২০০২ সাল থেকে সাবরুমের কৃষকরা বিএসএফ-এর সহযোগিতায় ৩৬টি পাম্প দিয়ে ৭২ কিউসেক পানি তুলে নিচ্ছে।
ফেনী নদী বাংলাদেশের সম্পদ। এর উৎপত্তি, প্রবাহ এবং ভৌগোলিক অবস্থান নিশ্চিত করে ফেনী নদী কোনভাবেই আন্তর্জাতিক নদীপ্রবাহের সীমা রেখায় প্রবাহিত নয়। দেশি-বিদেশি যারাই ফেনী নদীকে অভিন্ন আন্তর্জাতিক নদী প্রমাণের চেষ্টা করছেন বহু বছর ধরে, তারা কখনই মাঠ পর্যায়ে পর্যবেক্ষণ করে এর পক্ষে যুক্তি দেখাতে পারেনি। ভারত নিজেদের উত্তর-পূর্ব অংশের বেশ কয়টি রাজ্যের পানির অভাব মেটাতে দীর্ঘ বছর ধরে নানা কৌশলে ফেনী নদীকে আন্তর্জাতিক নদী প্রমাণের চেষ্টা করে যাচ্ছে। এক পাশে পার্বত্য রামগড় ও চট্টগ্রামের মিরসরাই, আরেক পাশে ফেনীর ছাগলনাইয়া। মাঝে কল কল ধ্বনিতে ধেয়ে চলছে ছাগলনাইয়ার গর্ব ফেনী নদী।
খাগড়াছড়ির পার্বত্য মাটিরাঙ্গা ও পানছড়ির মধ্যবর্তী ভগবান টিলা থেকে ছড়া নেমে আসে ভাটির দিকে। আর আসালং-তাইন্দং দ্বীপ থেকে রূপ নেয় ফেনী নদী নামে। ভগবানটিলার পর আসালং তাইন্দং এসে প্রাকৃতিকভাবে প্রবাহিত ছড়াকে কেটে ভারতের ভেতরে প্রবেশ করানো হয়েছে। কোথাও কোথাও বলা হয়েছে বাংলাদেশের আমলীঘাট সীমান্ত থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটারেরও বেশি দূরে, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের লুসাই পাহাড় থেকে ছড়া নেমে এসে ইজেরা গ্রামের সীমান্ত ছুঁয়ে বা ঘেঁষে ফেনী নদী নামে ভাটির দিকে ধেয়ে গেছে। প্রকৃত অর্থে এই তথ্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। কারণ ইজেরা গ্রামের সাথে আসালং-তাইন্দং এ বাংলাদেশের প্রায় ১৭শ’ একর জায়গার সম্পর্ক রয়েছে। যা ভারত গায়ের জোরে দখল করে রেখেছে। আসালং-তাইন্দং থেকে নেমে আসা ছড়া আমলীঘাটের এখানটাতেই ছাগলনাইয়া ছুঁয়ে ফেনী নদী নামে বঙ্গোপসাগরে গিয়ে মিলেছে।
ফেনী নদীর পানিচুক্তি সচেতন ব্যক্তিদের চিন্তাগুলো খুনদেশ বিভাগের আগে ১৯৩৪ সালে ভারত, ফেনী নদীর পানি নেয়ার দাবি ওঠায় বলে কেউ কেউ মন্তব্য করলেও মূলত ১৯৫৮ থেকে ১৯৬০ সাল পর্যন্ত নানা কৌশলে নো ম্যানস ল্যান্ড ও ট্রান্সবাউন্ডারির অজুহাতে আন্তর্জাতিক নদী প্রবাহের অংশ দেখানোর চেষ্টা করে তারা।
এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য পানি প্রত্যাহার করে নেয়া হলে শুষ্ক মৌসুমে নদী তীরবর্তী চট্টগ্রামের মিরসরাই, খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলা, ফেনীর ছাগলনাইয়া, পরশুরাম, সোনাগাজী, মুহুরী সেচ প্রকল্প, ফুলগাজী, কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের দক্ষিণাংশ এবং নোয়াখালী-লক্ষ্মীপুরের কিছু অংশের বিভিন্ন সেচ প্রকল্পে পানির জোগান অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। এতে করে লাখ লাখ হেক্টর জমি চাষাবাদের অনুপযোগী হয়ে পড়বে। অকার্যকর হয়ে পড়বে ১৯৮৪ সালে ১৫৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়িত দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সেচ প্রকল্প ‘মুহুরী’ (১ম প্রকল্প হচ্ছে তিস্তা ব্যারাজ)। যার আওতায় এ অঞ্চলের প্রায় ১৪ থেকে ১৫টি উপজেলার ৮/৯ লাখ হেক্টর জমিতে লোণামুক্ত পানির সরবরাহ করা হয়। যার মাধ্যমে শুধুমাত্র ফেনীর ৬টি উপজেলায় বছরে অতিরিক্ত প্রায় ৮৬ হাজার মেট্রিকটন ফসল উৎপাদন হয়। এ প্রকল্পের আওতায় যেখানে ফেনী, মুহুরী ও কালিদাস পাহালিয়া এ তিনটি নদীর পানি দিয়ে ৮/৯ লাখ হেক্টর জমির সেচকাজ করার কথা, সেখানে এখনই শুকনো মৌসুমে পানির অভাবে ২৩ হাজার হেক্টর জমিতেও সেচ দেয়া সম্ভব হয় না। মুহুরী সেচ প্রকল্পের প্রায় ৮০ ভাগ পানির মূল উৎস ফেনী নদী। ফেনী থেকে ২৫ কিলোমিটার ও চট্টগ্রাম থেকে ৭০ কিলোমিটার এবং সমুদ্রসৈকত থেকে মাত্র পাঁচ কিলোমিটার দূরে চট্টগ্রাম-ফেনী জেলার সীমানায় মুহুরী সেচ প্রকল্পটির অবস্থান। এখানে গড়ে ওঠা দিগন্ত বিস্তৃত চিংড়ি ঘেরগুলো ধ্বংস হবে। মুহুরী, সিলোনিয়া, পিলাকসহ প্রায় শতাধিক ছোট-বড় নদী, খাল ও ছরায় পানি শূন্যতা দেখা দেবে।
ফেনী নদীর পানি বণ্টন চুক্তি নিয়ে চট্টগ্রামের মিরসরাই ও ফেনীর ছাগলনাইয়ার মানুষের মধ্যে বেড়েছে উৎকণ্ঠা। পানি আগ্রাসনে ফেনী নদী শুকিয়ে যাওয়ার এবং মুহুরী সেচ প্রকল্প অকার্যকর হওয়ার আতঙ্কে রয়েছে নদীর তীরবর্তী ছাগলনাইয়ার জনগণ। ফেনী নদীর পানি রক্ষা আন্দোলনে সর্বশেষ ২০১২ সালের ৫ মার্চ লংমার্চ করেন সাবেক প্রেসিডেন্ট জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান মরহুম হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তাতেও বরফ গলেনি ভারতের, তাই ছাগলনাইয়াসহ ফেনীর মানুষের বক্তব্য একটাই ‘জীবন দিয়ালামু, হেনী নদীর হানি ভারতেরে দিতাম ন’।
ফেনী নদী একমাত্র নদী যা বাংলাদেশের নদী। ৫৪টি অভিন্ন নদী ভারতের সাথে ১৯৭৫ সালে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিল। সে ৫৪ নদীর মধ্যে ফেনী নদীর নাম উল্লেখ ছিলো না। কিন্তু এ নদীর পানি ভারতকে দিয়ে আমাদের জাতীয় স্বার্থের প্রতি আঘাত হেনেছে। জাতীয় স্বার্থের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে সরকার। এ চুক্তির মধ্য দিয়ে ফেনীসহ অত্র অঞ্চলকে মরণকরণের দিকে দাবিত করছে। অবৈধভাবে পানি প্রত্যাহরের ঘটনা গত ৫-৭ বছর ধরে চলছে। তা বন্ধ না করেই চুক্তির মাধ্যমে পানি নিয়ে গেলে এ নদীতে আর পানি থাকবে না।
ফেনী নদীর মালিকানা বাংলাদেশের। চুক্তি আগেও বাংলাদেশ ফেনী নদীকে ব্যবহার করতে পারে নাই। চুক্তির ফলে আশঙ্কা হচ্ছে নদীর মালিকানা সম্পূর্ণভাবে ভারতীয়দের হাতে চলে যাবে। আর চুক্তিটি যে অযৌক্তিক এবং চুক্তি ছাড়াও যে ভারত নিয়ম ভঙ্গ করে পানি নেয়, এটা ভূ-রাজনৈতিক সচেতন সকল বাংলাদেশীই জানেন। তাই প্রতিবাদ। ফলাফলে আবরার হত্যা!
আসলে আবরার হত্যা নয়; সকল ভূ-রাজনৈতিক সচেতন ব্যক্তির চিন্তাকে হত্যা করা হলো।

লেখক : কলামিস্ট ও গবেষক

SHARE

Leave a Reply