মতিউর রহমান মল্লিকের হামদ গানের নতুন জগৎ -ড. নঈম আহমেদ

শিল্পী গায়ক নয়তো মোদের আসল পরিচয়
আল কুরআনের কর্মী মোরা বিপ্লবী নির্ভয়
শিল্পী থেকে কর্মী বড়
সুর ছড়িয়ে যাই ॥

বাংলা গানের জগতে মতিউর রহমান মল্লিক একজন সঙ্গীতশিল্পী ও সঙ্গীতসাধক। তিনি একাধারে গীতিকার, সুরকার ও শিল্পী। তিনি ১৯৭৬ সালে ‘সাইমুম শিল্পীগোষ্ঠী’ প্রতিষ্ঠা করেন সে-সময় গণমাধ্যমে ইসলামী গান অবহেলিত ছিলো। বিশেষভাবে খালি কণ্ঠে বাজনা ছাড়া গান কল্পনাই করা হতো না। সময়ের দাবি অনুযায়ী এই সংগঠন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ইসলামী গানের নতুন দিগন্ত তিনি সৃষ্টি করেন। [দ্র. আহমদ বাসির সম্পাদিত মতিউর রহমান মল্লিকের সাক্ষাৎকার, ঢাকা: মর্নিং ব্রিজ, ২০১৭, পৃ. ১৯] স্বকণ্ঠে স্বরচিত ও নিজের সুরারোপিত গানের অ্যালবাম প্রতীতি: এক (১৯৯৩) প্রকাশের মাধ্যমে তিনি সঙ্গীত প্রতিভার স্বাক্ষর রাখেন। প্রতীতি: দুই (১৯৯৪) এই পরিচয়কে আরো বেশি প্রতিষ্ঠা দান করে। গীতিকার হিসেবেও তিনি সফলতার পরিচয় দেন। ঝংকার (১৯৭৮), যত গান গেয়েছি (১৯৮৭), প্রাণের ভেতরে প্রাণ (২০১০) এবং অপ্রকাশিত গীতিকাব্য চিরকালের গান তাঁর গানের সঙ্কলন একজন গীতিকার ও সঙ্গীত সাধকরূপে নিজেকে প্রকাশ করেন। এ ছাড়া সম্পাদনা করেছেন একাধিক গানের সঙ্কলন।
মতিউর রহমান মল্লিক কিভাবে ইসলামী সাংস্কৃতিক জগতে আসেন এবং গানের প্রতি অনুরাগী হলেন সে বিষয়ে নিজের মন্তব্য : ‘আমি একটি সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছি। আমাদের পরিবারে আগে থেকেই একটি জারির দল ছিলো। আমার আব্বা ঐ জারি দলের জন্য বিশাল বিশাল জারি গান লিখে দিতেন। আর এই গান আমার ছোট চাচা আমাদের এলাকায় গেয়ে বেড়াতেন। দলের অন্যান্য সদস্যরা আমাদের আত্মীয়স্বজন ছিলো। আমার আব্বা কবিতা লিখতেন এবং সেই ব্রিটিশ আমলে আমার আব্বা ২-৩ মাইল দূরে গিয়ে পত্রিকা পড়ে আসতেন। রেডিওতে কবি ফররুখ আহমদ যে সাহিত্য আসর পরিচালনা করতেন কবিতা পাঠের ব্যবস্থা করতেন, সেই আসরে আমার বড় ভাই কবিতা পড়েছেন। যে কবিতা ফররুখ আহমদ নিজে অনুমোদন করেছেন। ছোটবেলা থেকে রেডিওতে গান শুনে শুনে গান লেখায় আগ্রহী হয়ে উঠেছিলাম। এবং অনেক গান লিখেও ফেলেছিলাম। যার সবগুলোই ছিলো প্রেমের গান। আমি যখন ছাত্র ইসলামী আন্দোলনে যোগদান করেছিলাম, তখন আমার গান লেখার মোড় ঘুরে যায়। দেশ, মুসলমান, ইসলামী আন্দোলনের জয়গান লেখা শুরু করলাম। প্রেমের গানের লেখার পর্ব ছুটে গেল।’ [আবিদ আজমের নেয়া মতিউর রহমান মল্লিকের সাক্ষাৎকার, রহমান তাওহীদ সম্পাদিত রিদম, ঢাকা: ২০০৯, পৃ. ৭]
মতিউর রহমান মল্লিকের জীবনকালেই ‘কবি’ অভিধা তার নামের সাথে অবিভাজ্য হয়ে পড়ে। তিনি প্রধানত কবি, যদিও এ যাবৎ প্রকাশিত তার কবিতার সংখ্যা তার রচিত গানের তুলনায় কম। তবে এ কথা স্বীকার্য যে, কবি না হলে কেউ গান লিখতে পারে না। পৃথিবীর সকল গীতিকারই মূলত কবি। অনেক খ্যাতনামা কবির প্রখ্যাত অনেক কবিতাও গান আকারে গীত হয়ে থাকে। কবিতার মধ্যে যেমন মিল, ছন্দ, ধ্বনি, ব্যঞ্জনা ইত্যাদি রয়েছে, গানের মধ্যেও তার উপস্থিতি অপরিহার্য। তবে গানের মধ্যে গীতলতার দিকটা অধিক গুরুত্বপূর্ণ। তা ছাড়া, গান একটি নির্দিষ্ট সুর, তাল-লয় ও আকারে সীমাবদ্ধ থাকে, কবিতার ক্ষেত্রে অতটা বাধ্যবাধকতা নেই। তাই গান রচনার সময় কবিকে অধিকতর সচেতনতা ও শিল্পবোধের পরিচয় দিতে হয়। সেজন্য গীতিকার যখন শব্দ নিয়ে খেলা করেন, তখন তাকে সুর-তাল-লয় ও রাগ-রাগিণী সম্পর্কে সজাগ-সতর্ক থাকতে হয়। গানের সফলতা অনেকটা এর ওপর নির্ভরশীল। মতিউর রহমান মল্লিকের কবি-স্বভাবের মধ্যে গীতিধর্মিতার প্রাবল্য তাকে একজন সার্থক এবং বহুলপ্রজ গীতিকার হিসেবে সাফল্য ও খ্যাতি এনে দিয়েছে। মল্লিক নিজে একজন সুগায়ক ছিলেন। গান রচনার সাথে সাথে তিনি তাতে সুরারোপ করতেন ও গাইতেন। [মুহম্মদ মতিউর রহমান, মতিউর রহমান মল্লিকের কাব্যকর্ম, পৃ. ১৬১] সার্থক গীতিকার হওয়ার জন্য এটা এক অপরিহার্য গুণ। যিনি গায়ক তিনি গানের সুর, তাল, লয় ও রাগ-রাগিণী সম্পর্কে বিশেষভাবে অবগত। সার্থক গান রচনার জন্য এটা খুবই প্রয়োজন। তাঁর মধ্যে সে গুণের কমতি ছিল না। তাই তার রচিত গান সার্থক বলা যায়। তাঁর বহুমাত্রিক প্রতিভার মধ্যে গীতিকার হিসেবে তার সাফল্য তুলনামূলকভাবে অধিক।
তারুণ্য-যৌবনের কবি পরবর্তী কালে হয়ে ওঠেন বাংলা গানের সুরেলা পাখি। মতিউর রহমান মল্লিকের গানের বাণী ও সুরের মৌলিকতা ও বৈচিত্র্য বিশেষত্বপূর্ণ। উত্তরাধিকারের পথে নতুন বাঁক-বদল। তাঁর গানের কথার বিষয় নানা মাত্রিক, নানা সময়ের প্রয়োজনে সৃষ্টি। ইসলামী আন্দোলনের পথপরিক্রমায় জীবনাভিজ্ঞতার আলোকে তিনি গানের সম্ভার রচনা করেন। তাঁর গানের বিষয়বৈচিত্র্যকে নি¤েœাক্ত শ্রেণিতে ভাগ করা যায়। যথা: ক. হামদ, খ. নাতে রাসূল সা., গ. ইসলামী আন্দোলন, ঘ. দেশপ্রেম, ঙ. প্রকৃতি, চ. আধুনিক জীবনমুখী, ছ. আধ্যাত্মিক/ মৃত্যুচেতনা, জ. ইসলামী সংস্কৃতি, ঝ. বিবিধ।

তোমার সৃষ্টি যদি হয় এত সুন্দর
না জানি তাহলে তুমি কত সুন্দর
সেই কথা ভেবে ভেবে কেটে যায় লগ্ন
ভরে যায় তৃষিত এ অন্তর।
আল্লাহর প্রশংসামূলক বা তাঁর গুণের কথামালাসম্পন্ন সুরারোপিত গানকে হামদ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। পৃথিবীতে মানুষ প্রেরিত হয়েছে আল্লাহর প্রতিনিধি হিসেবে। আর প্রতিনিধির কাজ হলো আল্লাহর ইবাদত করা। সেই দিক বিবেচনায় প্রতিটি মুসলমানের দায়িত্ব আল্লাহর প্রশংসা করা ও তাঁর নির্দেশ অনুযায়ী জীবন অতিবাহিত করা। সৃষ্টিশীল মানুষ যারা হেদায়াত প্রাপ্ত তারা এ ক্ষেত্রে অগ্রগামী। বিশেষভাবে কবি-সাহিত্যিক-শিল্পী সমাজ আল্লাহর গুণ, কার্যাবলি ও মহিমা নিয়ে সৃজনশীল কাজ করে থাকেন। রাসূল সা:-এর সময়ে যে সমস্ত সাহাবী কবিতা লিখতেন তারা প্রধানত আল্লাহ ও রাসূলের জন্যই লিখতেন। হাসসান ইবনে সাবিত রা., আবদুল্লাহ ইবনে রাওয়া রা., হযরত আলী রা. প্রমুখ সাহাবী আল্লাহর প্রশংসা, গুণাবলি ও শ্রেষ্ঠত্ব নিয়ে উৎকৃষ্ট কবিতা লিখেছেন। মাওলানা জালাল উদ্দীন রুমী, শেখ সাদী, ফেরদৌসী প্রমুখ সাহিত্যিক হামদ রচনায় বিশ^সাহিত্যে অমর হয়ে আছেন। এই ধারা পরবর্তীকালে সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। আধুনিককালেও কবি-সাহিত্যিক-শিল্পী সমাজ আল্লাহর মহিমা কীর্তনে সৃষ্টিশীল। আল্লামা ইকবাল এক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকায় স্মরণীয়, বরণীয় ও প্রভাবশালী। বাংলা ভাষায় মধ্যযুগে অসংখ্য কবি আল্লাহর প্রশংসামূলক কবিতা লিখেছেন। আধুনিককালে কায়কোবাদ, মীর মশাররফ হোসন, গোলাম মোস্তফা, কাজী নজরুল ইসলাম ও ফররুখ আহমদ বিপুল পরিমাণে হামদ রচনা করেছেন।
এই ধারায় মতিউর রহমান মল্লিক বাংলা গানের ভুবনে হামদকে আরো এক ধাপ এগিয়ে দিয়েছেন। আল্লাহর একজন কৃতজ্ঞ বান্দা, কবি-সাহিত্যিক ও সঙ্গীতজ্ঞ হিসেবে তিনি বাংলা গানে নতুন সুর, ছন্দ, কথা, আবহ ও বাঁক এনেছেন। গোলাম মোস্তফা, কাজী নজরুল ইসলাম ও ফররুখ আহমদের মতো একই মতাদর্শের পথিক হয়েও একক গানের জগৎ নির্মাণ করেন। ‘প্রতীতি’ কণ্ঠসঙ্গীত পর্বের কিছু দৃষ্টান্ত :
দৃষ্টি তোমার খুলে রাখো দীপ্ত সৃষ্টির জন্য
দেখবে স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ প্রকাশ কত না অনন্য ॥

বিহঙ্গ তার পক্ষ দোলায়
দূর বিমানে শূন্য কোলায়
কে রাখে ভাসিয়ে তারে ভাবনা সামান্য॥

সমতল আর পর্বতমালা
এই কোলাহল ঐ নিরালা
কার মহিমা জড়িয়ে রাখে গহনও অরণ্য॥
[প্রতীতি]

মাঠ ভরা ওই সবুজ দেখে
নীল আকাশে স্বপ্ন এঁকে
যার কথা মনে পড়ে
সে যে আমার পালনেওয়ালা॥
[প্রতীতি]

এসো গাই আল্লাহ নামের গান
এসো গাই গানের সেরা গান
তনুমনে তুলবো তুমুল
তূর্য তাল ও তান॥
[প্রতীতি]

বিশ্বজগতের বিশাল ও বিপুল প্রাকৃতিক সম্পদ, সৌন্দর্য ও নয়নাভিরাম দৃশ্যাবলি যে কোন মানুষকে বিস্মিত ও ভাবুক করে তোলে। সৃষ্টিশীল কবি মতিউর রহমান মল্লিক গানের খাতায় এই পৃথিবীর রূপে-রসে-রঙে-রেখায় মনোযোগ দিয়ে আবেগে আপ্লুত এই ভেবে যে, আল্লাহ কিভাবে কী অসীম নির্মাণশৈলীতে এসব কিছু সৃষ্টি করেছেন। মানুষ ও প্রাণিকুলের রহস্য, চারপাশের পরিবেশ, চাঁদ-সূর্য-তারা-আলোকমালা, নদী-সমুদ্র-পর্বত-অরণ্য-জলাশয় এবং এই সবের মাঝে সুন্দরের সন্ধানে কবি আল্লাহর মহত্ত্ব ও অসীম কুদরত অনুভব করেছেন ও দেখেছেন। সৃষ্টির মাঝেই ¯্রষ্টার শ্রেষ্ঠ প্রকাশ যে অনন্য সে অনুভব করার জন্যও শ্রোতাকে আহ্বান করেছেন। আল্লাহ যে পালনকর্তা ও রিজিকদাতা সে কথাও গভীরভাবে গানে ব্যক্ত করেন।
‘প্রতীতি’ প্রথম গানের সংকলনে এই হামদগুলো স্থান পায়। সৃষ্টির মাঝে ¯্রষ্টার ছায়া ও সৌন্দর্য উপলব্ধি করেন গীতিকার। কিছু কিছু গানে সুফি মতের প্রভাব লক্ষণীয়। সুফি মতের কেন্দ্রে আছে আল্লাহর ধারণা। বিভিন্ন সুফি মতবাদে আল্লাহর ধারণা তিন প্রকার: আত্মসচেতন ইচ্ছাশক্তি, সৌন্দর্যস্বরূপ এবং ভাব, আলো কিংবা জ্ঞান স্বরূপ। শকিক বলখি, ইব্রাহীম আদম, রাবিয়া বসরী প্রভৃতির ধারণায় আল্লাহ ইচ্ছাশক্তি স্বরূপ। সৃষ্টিলীলায় সেই ইচ্ছাশক্তিরই প্রকাশ। একত্ববাদ এর প্রাণ, তাই এটি আরবীয় বা শামীয় (Semitic)। পবিত্রতা, সংসার ধর্মে অনাসক্তি, আল্লাহ্ প্রেম ও পাপভীতিই এই মতের সুফিদের বৈশিষ্ট্য। আল্লাহকে রূপময়-লীলাময় প্রেমকামীরূপে কল্পনা করেছেন যাঁরা তাঁদের মতে, আল্লাহ নিজের মহিমার মুকুররূপে সৃষ্টি করেছেন জগৎ। তিনি এই সৃষ্টির মুকুরে নিজের রূপ নিজেই প্রত্যক্ষ করেছেন নার্সিসাসের মতো। এ তত্ত্বের প্রেক্ষিতে এ মতবাদী সুফিরা সৃষ্টিকে মনে করে রূপময়-লীলাময় আল্লাহর Manifestation বলে। এবং এর ভিত্তি হলো প্রেম। যেখানে রূপ, সেখানেই প্রেম, অথবা প্রেমই দান করে রূপদৃষ্টি। কাজেই এই তত্ত্বে বিশ্বাসী সুফিরা প্রেমবাদী, বিশ্বপ্রেম তাদের সাধনার লক্ষ্য ও পাথেয়। সব রিপু ও বিষয়-চিন্তা পুড়ে ছাই হয়ে উড়ে যায় এই প্রেমানলেÑ হৃদয় জুড়ে থাকে কেবল আল্লাহ। এই বোধের পরিণামে পাই অদ্বৈততত্ত্বÑ যার পরিণতি হচ্ছে ‘আনলহক’ বা ‘সোহম’ বোধে। এই মতের সুফিদের মধ্যে বায়জিদ বোস্তামি, মনসুর প্রমুখ প্রখ্যাত। [আহমদ শরীফ, বাংলার সুফি সাহিত্য, ঢাকা: সময় প্রকাশন, ২০০৩, পৃ. ২৪] অসীম, অনন্ত ও গুণাতীত অনাদি চিরন্তন সত্তার বোধ জন্মায় এই অভেদতত্ত্ব। সৃষ্টি মাত্রই ব্রহ্ম থেকে উৎপন্ন এবং ব্রহ্মেতে লীন। সুফি মতে, আল্লাহ হচ্ছেন ‘স্বয়ম্ভূ জ্যোতি’। Manifestation তথা মহিমার অভিব্যক্তি দানই এ জ্যোতির স্বভাব। এতেই তাঁর স্বতো প্রকাশ। নিজের মধ্যে ও বিশ্বে পরিব্যাপ্ত এই আলো দেখার আকুলতা মানবে সহজাত। আলোর স্বরূপ উপলব্ধির ও হৃদয়ে প্রতিষ্ঠার সাধনাই সুফিব্রত। এই সিদ্ধির ফলে মানুষ হয় ‘ইনসানুল কামেল’। প্রথমটি অধ্যাত্ম সাধনার ক্ষেত্রে আর শেষোক্তটি পার্থিব সমাজের। মতিউর রহমান মল্লিক উভয় ক্ষেত্রেই মনোযোগী।
লাইলাহা ইল্লাল্লাহ
নেই কেহ নেই আল্লাহ ছাড়া
পাখির গানে গানে
হাওয়ার তানে তানে
ঐ নামেরই পাই মহিমা
হলে আপনহারা ॥
আল্লাহ নামের গান গেয়ে দেখ
কেমন লাগে নামের সুর
ঐ নামে যে যাদু রাখা
ঐ নামে যে শহদ মাখা
পান করে দেখো কী মধুর ॥
[ঝংকার]

আজকে আমার প্রাণ-সাগরে
আল্লাহ নামের নুর
উথাল পাথাল ঢেউ তুলেছে
যেনো পাহাড় তুর ॥
[ঝংকার]

হাত পেতেছে এই গোনাহগার
তোমারি দরগায় খোদা তোমারি দরগায়
শূন্য হাতে ওগো তুমি
ফিরাইও না হায়, মোরে ফিরাইও না হায় ॥
আমার কণ্ঠে এমন সুধা
দাও ঢেলে দাও হে পরোয়ার
যদি পিয়ে এই ঘুমন্ত জাত
ভাঙে যেনো রুদ্ধ দ্বার।
[ঝংকার]
‘প্রতীতি’ কণ্ঠসঙ্গীতের পর ‘ঝংকার’ গীতিকাব্যে মতিউর রহমান মল্লিক হামদে আরো বৈচিত্র্য আনেন। আল্লাহ নামের উচ্চারণে, রূপে ও মহিমায় কবি দিশেহারা। তাঁর নামের গুণের মুগ্ধতায় কবি নূরের উজ্জ্বলতায় পাখিদের গানে, ঝরনার সুরে, সবুজে ও রোদে আল্লাহ নামের মহিমা অনুভব করেছেন। প্রাকৃতিক সবকিছুতেই তিনি ¯্রষ্টার সৃজনশৈলী লক্ষ করেছেন। সেই পর্যবেক্ষণ গানের কথায় শিল্পসম্মত রূপে প্রকাশ করেন।
তুমি দয়ার অথৈ পারাবার
দুঃখের সাগর তুমি কর পার
পাপী তাপি সব গোনাহগার
চাহি তোমার করুণা।-
[যত গান গেয়েছি]

আমাকে দাও সে ঈমান
আল্লাহ মেহেরবান
যে ঈমান ফাঁসির মঞ্চে
অসংকোচে
গায় জীবনের গান।
[যত গান গেয়েছি]

কথায় কাজে মিল দাও আমার
রাব্বুল আলামিন
আল জিহাদ ফি সাবিলিল্লায়
রাখো বিরামহীন।
[যত গান গেয়েছি]

ঈমানের দাবি যদি কোরবানি হয়
সে দাবি পূরণে আমি তৈরি থাকি যেন
ওগো দয়াময় আমার
প্রভু দয়াময়।
[যত গান গেয়েছি]

আমি পাখির কাছে বললাম
নদীর কাছে শুধালাম
তোমাদের গান তোমাদের সুর
কেন এমন মনোহর
কেন এমন সুন্দর
ওরা বললো শুধু বললো:
আমাদের কণ্ঠে ¯্রষ্টার নাম
অঙ্গে অঙ্গে তার সৃষ্টি দাম
আমাদের গান আমাদের সুর
তাই তো এমন মনোহর
তাই তো এমন সুন্দর।
[যত গান গেয়েছি]

যখন পথের দিশা দিয়েছো খোদা
তখন বিপথে তুমি নিও না
যেই পথ কোরানের
যেই পথ রসূলের
সেই পথ ছেড়ে যেতে দিও না।
[যত গান গেয়েছি]
‘যত গান গেয়েছি’ পর্বের হামদে মতিউর রহমান মল্লিক বাস্তব জীবন সংগ্রাম-আন্দোলনের দুর্গম পথে এবং ব্যক্তিগত মুক্তির জন্য আল্লাহর কাছে আবেদন-নিবেদন করেছেন, করুণা ও সাহায্য চেয়েছেন এবং তাকেই সহায়-সম্বল ভেবেছেন। নিজেকে গোনাহগার-পাপী হিসেবে উপস্থাপন করে পরকালের অথৈ সাগর পারাপারের জন্য আকুল আবেদন করেছেন। সেই সাথে সেই ঈমানের জন্য দরখাস্ত করেছেন যে ঈমানের বলে বলীয়ান হয়ে স্বেচ্ছায় ফাঁসির মঞ্চে নির্ভীকভাবে দাঁড়াতে পারেন; আল্লাহর রাজ কায়েমের জন্য জিহাদে প্রাণ বিসর্জন দিতে পারেন। পৃথিবীতে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য জিহাদের ময়দানে লড়াকু হতে ঈমানের জোর চাই, ঈমানের দাবি যে কোরবানি সেই কোরবানির জন্য সেই শক্তি কামনা করেছেন কবি আল্লাহর কাছে। যে পথ কোরআনের ও রাসূলের সেই পথের ঠিকানা যেহেতু একবার আল্লাহ দয়া করে দিয়েছেন সেই পথে যেন চলতে শক্তি দেন, সেই দোয়া করেছেন। আল্লাহর মহিমা ও গুণের কথা কবি ফুল-পাখি-নদীসহ প্রকৃতির কাছে জিজ্ঞাসা করে উত্তর পেয়েছেন এক আল্লাহর অসীম অনন্ত মহিমা। পরবর্তী গীতিকাব্য ‘প্রাণের ভেতরে প্রাণ’-এ হামদ নেই। অন্যান্য বিষয়ে গান আছে।
মতিউর রহমান মল্লিকের হামদের বৈশিষ্ট্য নির্ণয় করা যায় এভাবে-
ক. আল্লাহর গুণাগুণ, রূপ-অরূপ, শক্তি-মহিমা-শ্রেষ্ঠত্ব, সর্বাত্মক সত্তার প্রশংসা তাঁর হামদে প্রকাশিত;
খ. জীবনের সর্বক্ষেত্রে আল্লাহর উপস্থিতি অনুভব করেছেন ও করুণা চেয়েছেন;
গ. বিশেষভাবে জীবন সংগ্রামে, ত্যাগে, লড়াইয়ে, কঠিন বিপদে ও দুঃখে জয়ী হতে আল্লাহর কাছে সাহায্য-সহযোগিতা ও শক্তি প্রার্থনা করেছেন;
ঘ. মহান রবের প্রতি গভীর বিশ্বাস, আস্থা, ভালোবাসা-প্রেমের পরিচয় হামদের মাঝে প্রতিফলিত;
ঙ. আল্লাহর মহত্ত্বের সাথে সাথে পৃথিবীতে তাঁর রাজত্ব কায়েমের কথাও নানাভাবে ব্যক্ত করেছেন;
চ. ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের উজ্জীবনে এই হামদগুলো অত্যন্ত প্রভাববিস্তারী;
ছ. সুর সংযেজনের দিক থেকে মৌলিকত্ব ও নতুনত্ব লক্ষণীয়।

মতিউর রহমান মল্লিকের হামদের সুর কবি নিজেই করেছেন নিজ সঙ্গীত প্রতিভায়। একদম নতুন সুর সংযোজন ঘটিয়েছেন এইসব হামদে যা বাংলা গানে অভিনব। নজরুলের গানের বা হামদের দূরগত প্রভাব থাকলেও প্রত্যক্ষ কোনো প্রভাব নেই এতে। শেষের দিকে কিছু গানে অন্যরাও সুর দিয়েছেন।
লেখক : কবি ও গবেষক

SHARE

Leave a Reply