শহীদ আসাদুল্লাহ তুহিন যে স্মৃতি হৃদয়ে নাড়া দেয়

মনির আহমেদ#

Shahid‘আমার কাছে মনে হয় আমার বাবা মরে নাই। সে সবসময় বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় এখনও বলে, যাচ্ছি মা। আবার ফিরে এসে বলে, কী করছ মা। আমার চারপাশে  ঘোরাঘুরি করে। মনে হয় এই বুঝি আসছে, আবার চলে যাচ্ছে। আর আমি বলছি, সাবধানে যাস বাবা।’ বলছিলেন শহীদ আসাদুল্লাহ তুহিনের মা কমেলা বেগম।
পুত্র হারানোর শোকে কাতর এই মা কাঁদতে কাঁদতে চোখের পানি শুকিয়ে ফেলেছেন। তবে এখনও তিনি বুঝতে পারেননি কেন তার সন্তানকে তার চোখের সামনে থেকে তুলে নিয়ে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে।
গত ১৯ মার্চ সকাল ৯টায় বাসা থেকে বের হলাম চাঁপাইনবাবগঞ্জের উদ্দেশে। সাথে ছিলেন রাশেদুল হাসান ভাই। কয়েক দফা বাস পরিবর্তন করে পৌঁছতে প্রায় সন্ধ্যা ৬টা। পৌঁছে প্রিয় ভাই গোলাম মোস্তফা, তহুরুল ইসলাম সোহেলসহ পরিকল্পনা করি পরদিনের শিডিউল নিয়ে। সকালে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেয়া, পরবর্তীতে শহীদ আসাদুল্লাহ তুহিনের কবর জেয়ারত, এরপরে অন্যান্য।
পরদিন পরিকল্পিনা মতোই কাজ শুরু হলো। প্রথমে অনুষ্ঠানে যোগ দিলাম। এরপর এক বাসায় নাশতা খেয়ে কবর জিয়ারতের উদ্দেশে রাওনা দিই। গিয়েই দেখি আগে থেকেই আমাদের যাওয়ার খবর শুনে শহীদের সম্মানিত পিতা জনাব মো: একরামুল হক ও মামা কবির হোসেনসহ এলাকার অনেকে আমাদের জন্য অপেক্ষা করছেন। প্রথমে শহীদের বাবাকে সালাম দিয়ে জড়িয়ে ধরি। ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠলেন তিনি। সান্ত্বনা ব্যর্থ হলো।
কবর জেয়ারত শেষে মোস্তফা ভাইকে বললাম, মায়ের সাথে দেখা করবো। বাসায় গেলাম। বাবা-মা এবং মামার কাছ থেকে শুনলাম আসাদুল্লাহ তুহিনের জীবনের বিভিন্ন ঘটনা। তিন ভাই এক বোনের মাঝে তুহিন ছিলেন সবার ছোট। ছোট থেকে অতি আদরে বড় হয়েছিলেন। বড়ভাই এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার পর পারিবারিক বাস্তবতায় আর পড়াশোনা করতে পারেননি। মেজো ভাই এইচএসসি পরীক্ষা দেয়ার পর আর পড়তে পারেননি। সবার আশা ছিল তুহিন পড়াশুনা চালিয়ে যাবে। তাদের বংশের মুখ উজ্জ্বল করবে। সে জন্যই তাকে সবসময় সবাই নজরে নজরে রাখতো। সবাই ¯েœহ করতো, ভালোবাসতো।
মামা জানালেন, ‘তুহিন টাকা চেয়ে পায়নি এমন কোন ঘটনা আমরা ঘটতে দিইনি। মা বললেন, যত সমস্যাই থাকুক সে প্রতিদিন স্কুলে যেতো। কলেজে ভর্তি হওয়ার পর কখনও কলেজ কামাই করতে তাকে আমরা দেখিনি। রওনা দিয়েই বলতো, মা যাচ্ছি। আবার ফিরে এসে কী করছি জানতে চাইতো।’
বলতে বলতে মায়ের চোখ থেকে পানি গড়ায়। মায়ের কাছে জানতে চাইলাম, এমন কোন আচরণ কি আপনার মনে পড়ে যা আপনাকে আনন্দ দিত।
মা বললেন, ‘তার বাবা অথবা আমি যদি কখনও কোন বিষয়ে বকা দিতাম, ধমক দিয়ে কথা বলতাম, সব সময় মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে শুনতো। কখনও উত্তর দেয়ার চেষ্টা করতো না। গ্রামের কেউ বলতে পারবে না যে সে কারো সাথে কখনও খারাপ আচরণ করেছে। সবাই তাকে ভালোবাসতো। সেও সবাইকে শ্রদ্ধা করতো। ছোটদের আদর করতো। যে কোন সিদ্ধান্ত নিলে সে বিষয়ে সে অনড় থাকতো। তাকে কোন কাজ দিলে ঠিকভাবে করতো।’
মামা বললেন, ‘সে যে একাদশ শ্রেণীতে পড়া অবস্থায় সিটি কলেজ শিবিরের সভাপতি ছিল, এটা আমিও জানতাম না। আর প্রথমে শুনেও বিশ্বাস করতে পারিনি। কারণ আমি জানি কলেজ সভাপতি হিসেবে যাদের দায়িত্ব দেয়া হয়, এরা সিনিয়র হয়। মনে হয় প্রশাসনের কাছে এ দায়িত্বই তার বড় অপরাধ ছিল।’
মাত্র ১৭ বছর বয়সে তুহিনের উচ্চতা ছিল ৫ ফুট ৯ ইঞ্চি। দেহ ছিল সুঠাম। তাকে অনেকে বলতো, তুমি তো সেনাবাহিনীতে দাঁড়ালেই টিকে যাবে। এসব জানলাম তার দায়িত্বশীলদের কাছ থেকে।
তুহিন নিজেও নাকি সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়ে দেশসেবায় ভূমিকা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। ২০১৩ সালে সে সেনাবাহিনীতে পরীক্ষা দিয়ে টিকেছিল। তখন তার কাছে সাড়ে চার লাখ টাকা চাওয়া হয়। তুহিন বলেছিল, আমার বাবা দরিদ্র মানুষ। এত টাকা দেয়া আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। এর পর তুহিন চাকরির আশা ছেড়ে দেয়। ২০১৪ সেশনে আবার সেনাবাহিনীর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখে সে আবেদন করে।
তুহিনের মামা কবির হোসেন বলেন, ‘হঠাৎ একদিন সে আমার মোটরসাইকেলের সামনে দাঁড়িয়ে আমার হাত ধরে কাঁদতে শুরু করে। আমি জিজ্ঞেস করলাম, মামা কী হয়েছে? কেউ কি কিছু বলেছে? বললো, না। আবার জিজ্ঞেসা করতেই সে বললো, মামা সেনাবাহিনীতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে, কিছু টাকা খরচ হলেও আপনি আমাকে সেনাবাহিনীতে ঢুকিয়ে দেন। আমি বললাম, আচ্ছা ঠিক আছে তুমি আবেদন করো, আমি ব্যবস্থা করছি। আমার কথা শুনে সে মহা খুশি। দুই- তিন দিন পর বলে, মামা আমাকে ৪০০ টাকা দেন। কেন জিজ্ঞেস করতেই বললো ২টা ট্রাউজার কিনবো। পাড়ার দুই জন গত বছর সেনাবাহিনীতে টিকেছে, তারা ছুটিতে বাড়িতে এসেছে। এখন থেকেই তাদের কাছ থেকে ট্রেনিংয়ের বিষয়গুলো নিয়মিত দেখে নিতে পারলে পরে কষ্ট কম হবে। সেই আবেদনের পর গত ফেব্রুয়ারি মাসের ২ তারিখ ওর বাছাইয়ের জন্য রাজশাহী রেঞ্জে দাঁড়ানোর কথা ছিল। কিন্তু সেটা আর সম্ভব হলো না। ২৭ জানুয়ারি ওর লাশ পাওয়া গেল হাসপাতালের লাশঘরে।’
এ বছরের ২৬ জানুয়ারি সকালে তুহিন মামার বাসায় গিয়েছিল মোটরসাইকেলের জন্য। কোথায় নাকি যাবে চিন্তা করেছিল। তারা তিনজন। মামা বলেছিলেন, একজনের বেশি মোটরসাইকেল নিয়ে বের হলে পুলিশ রাস্তায় আটকাবে। তাই তিনি সাইকেল না নিতে বলেন। সেখান থেকে এসে সারাদিন আর বের হয়নি তুহিন। অথচ ২০১৩-১৪ সালের এই সময়ে সে বেশির ভাগ সময় বাড়ির বাইরে থাকতো। দেশের পরিবেশ ভালো ছিল না। সে সময় যে বাড়িতে প্রশাসনের লোক যেতো, কাউকে না কাউকে ধরে নিয়ে যেতো।
বেলা পৌনে ৩টা। দুপুরে খাওয়া শেষ করে তার রুমে বিশ্রাম নিচ্ছিল তুহিন। হঠাৎ বাসার সামনে এসে ২টা গাড়ি থামে। সাথে সাথে গাড়ি থেকে সবাই লাফিয়ে নেমে তুহিনের শোবার রুম ঘেরাও করে ফেলে। গ্রেফতার করা হয় তাকে। তন্ন তন্ন করে তাদের থাকার ঘর, পাকঘর সব খোঁজা হয়। জামায়াত নেতা নূরুল ইসলাম বুলবুলের নাম লেখা একটি ক্যালেন্ডার ও ক্রিকেট খেলার ব্যাট, স্ট্যাম্প পায়। তাদের একজন বলে, বুলবুলের এক নম্বর লোক পাওয়া গেছে। এরপরই শুরু হয় তুহিনের ওপর নির্যাতন। সবার সামনে স্ট্যাম্প দিয়ে মারতে মারতে তিনটা স্ট্যাম্পই ভেঙে ফেলে। জিজ্ঞেস করে, কোথায় অস্ত্র রেখেছিস বল? তুহিন বলে, আমার কাছে কোনো অস্ত্র নেই। র‌্যাবের একজন তুহিনদের গাছ থেকে লেবু পেড়ে বলে, এখন স্বীকার করবে না, যখন চামড়া ছিলে ছিলে লবণ, লেবুর রস লাগাবো তখন স্বীকার করবে। অন্য একজন ভাঙা স্ট্যাম্পগুলো তার মায়ের দিকে ছুড়ে মেরে বলে, লাকড়ি করার জন্য এগুলো রেখে গেলাম।
আমি ঘটনা শুনে স্তম্ভিত হই। কী অসভ্যতা! কী বর্বরতা! তুহিনের মামা সাংবাদিকদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা ছবি দেখায়। তুহিনের শরীরের চামড়া কেটে সত্যিই লবণ-লেবুর রস লাগানো হয়েছিল। তুহিনকে আটক করে নিয়ে যাওয়ার পর রাতভর তার ওপর চালানো হয় অমানুষিক নির্যাতন। নির্মম নির্যাতনের ফলে সে রাতেই তুহিন শাহাদাত বরণ করেন। মৃত্যু নিশ্চিত জানার পর তার লাশ সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়।
পরবর্তীতে র‌্যাব অজ্ঞাত ট্রাক চালককে আসামি করে মামলা করে। সেখানে তারা উল্লেখ করে, রাতে তুহিনকে নিয়ে যখন বের হয়, তখন সে পালিয়ে যাওয়ার জন্য লাফ দিলে বিপরীত দিক থেকে আসা ট্রাক তাকে চাপা দিয়ে চয়ে চলে যায়। সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন, ট্রাক চাপা দেয়ার তো কোন আলামত দেখা যাচ্ছে না। বরং আপনাদের নির্যাতনের চিহ্ন দেখা যাচ্ছে। র‌্যাব তখন জানায়, ওপর থেকে যেভাবে নির্দেশ দেয়া আছে, সেভাবেই বললাম। আমাদের এর বাইরে কিছু বলার নেই।
হায়রে র‌্যাব! হায়রে অজ্ঞাত ট্রাক চালক! হায়রে আমাদের স্বাধীনতা!
সেদিন সকালবেলায় র‌্যাব স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা চলাকালীন সকাল ৯টায় স্কুল মাঠ থেকে গ্রেফতার করা হয় ফুলকুঁড়ি স্কুলের নবম শ্রেণীর ছাত্র আল আমিন ও রাফিকে। অপর দিকে হেফজুল ইসলাম কামিল মাদরাসা হোস্টেল থেকে  বেলা ২টায় গ্রেফতার করা হয় আলীম প্রথম বর্ষের ছাত্র মেহেদি হাসানকে। আসাদুল্লাহ তুহিনকে নিয়ে গিয়েছিল বাসা থেকে। র‌্যাব ক্যাম্পে সবাইকে একত্রে রাখা হয়েছিল। একে একে সবাইকে নির্যাতন করা হয়। নির্যাতনকালে এক র‌্যাব সদস্য বলে, তোদের জীবন এখানে শেষ, যা সবাই অজু করে আয়। সবাই যেতে চাইছিল না, কিন্তু আসাদুল্লাহ তুহিন সাথে সাথে গিয়ে থেঁতলানো শরীর নিয়ে পাশের পানি দিয়ে অজু করে নেয়।
এরপর সবার ওপর আবার নির্যাতন চলে। বিদ্যুৎ শক দেয়া হয়। শরীরের বিভিন্ন অংশ ক্ষত করে লবণ-লেবুর রস লাগিয়ে দেয়া হয়। এক পর্যায়ে সবাইকে র‌্যাব অফিসারের পা ধরে মাফ চাইতে বলে। বাকি সবাই মাফ চাইলেও তুহিন তখনও বলেছে, আমি আল্লাহ ছাড়া কারো কাছে মাথা নত করতে পারবো না। আমি কোন অপরাধ করিনি। আমি কেন মাফ চাইবো?
তার দৃঢ়তা দেখে র‌্যাব সদস্যরা আবার নির্যাতন চালাতে থাকে। বাকি তিনজনকে পরদিন থানায় দিলেও তুহিনের লাশ দেয় হাসপাতালে। পরবর্তীতে নির্যাতনের শিকার অন্যরা এসব ঘটনা জানায়।
আমার মনে হয় নিজের দেশেই পরাধীনতার জিঞ্জির পরে আছি। বর্বর সব ঘটনার কথা আমাদের প্রায়ই শুনতে হয়। স্তম্ভিত হয়ে যাই। যারা এই ছেলেদের নির্যাতন করছে, তাদের কি বৌ-বাচ্চা, ভাই-বোন নেই? তাদের কি একটুও মায়া হয় না? হয় তারা বিবেকহীন, আর না হয় রাব্বুল আলামিনের কাছ থেকে তারা অভিশপ্ত। আল্লাহ তাদের অন্তর থেকে মায়া উঠিয়ে নিয়েছেন।
কথা শেষ করে তুহিনকে যে রুম থেকে নিয়ে গিয়েছিল সেটি দেখে আমরা বের হই। মা’কে বললাম, আমাদের জন্য দোয়া করবেন, যেন আমরা তুহিন যে লক্ষ্যকে সামনে রেখে কাজ করতেন, আমরা যেন সে লক্ষ্যপানে পৌঁছতে পারি। তিনি চোখ মুছতে মুছতে বললেন, বাবা তোমাদের জন্য দোয়া করি। সবার জন্য দোয়া করি। আল্লাহ যেন তোমাদেরকে জালিমের হাত থেকে হেফাজত করেন। তোমাদের ইচ্ছা যেন আল্লাহ পূরণ করেন।
লেখক : কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির

SHARE

Leave a Reply