জাগ্রত কবি মুহিব খানের কবিতা হাড্ডি ওদের ফাটা

মুহাম্মাদের (সা.) নিন্দা ছড়ায় কোন হারামীর বেটা?
ধইরা তারে মাজায়-ঘাড়ে মুগুর দিয়ে পেটা।

ধর্মদ্রোহী নাস্তিকেরা,
বাড় বেড়েছে বড্ড এরা।
ভিনদেশিদের দাস-দাসী সব, প্রভুর চরণ চাটা।
ওই ছাগুদের কান কেটে দে, চান্দিতে মার ঝাঁটা।

জাগরে সবাই বজ্র রোষে,
তীব্র জোশে ওঠরে ফুঁসে।
দ্বীন ঈমানের দেখতে সুদিন, জ্বলছে যাদের গা-টা।
মুসলমানের দেশ থেকে ওই, পরগাছাদের ছাটা।

ওই প্রগতির অন্তরালে,
ব্যস্ত ওরা ঘৃণ্যচালে।
তাল মেলাতে ওদের তালে, দেখতো লাফায় ক্যাঠা?
আয় নিয়ে আয় দা লাঠি বাঁশ, খুন্তি শাবল ট্যাঁটা।

মুসলমানের রাষ্ট্রে বসে,
ধর্ম নিয়ে হিসাব কষে।
ওই শালাদের কে দিয়েছে, এত্তো বুকের পাটা?
সব শালারে ঠেঙ্গা মেরে, জাহান্নামে পাঠা।

খুব হয়েছে! এবার যদি-শাস্তি না হয়,
জ্বালাও গদি, নেই কোন ভয়?
আজকে ভয়ের সব দরোজাই আঁটা।
বাঁচতে হলে কাঁটার জোরেই, তুলতে হবে কাঁটা।

ধর্মনিরপেক্ষতা আজ,
ধর্মগ্রাসের তিক্ত আওয়াজ।
কণ্ঠ চেপে ধর শালাদের, আর দিবি না ভাটা।
আর দেরি নয়, থাকতে সময় হাড্ডি ওদের ফাটা।

দেশকে নিয়ে খেলছে ওরাই,
ওদের সাথেই আজকে লড়াই।
আয় ছুটে আয় এক সাথে সব, এক পথে ধর হাঁটা।
প্রাণ খুলে তাকবীর ধ্বনি দে, হাঁক জোরে কালমা-টা।

ধর্ম নিয়ে পেঁচগি বাধায়,
কোনখানে কোন হারামজাদায়।
এ বলো আর সে বলো সব, এক কাঁঠালের আঠা।
সব কটাকে লাত্থি মেরে, দেশ থেকে আজ হঠা।

SHARE

Leave a Reply