জানা অজানা

এলো প্রথম উড়ুক্কু গাড়ি
যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক অটো শোতে নতুন এক গাড়ির প্রোটোটাইপ বা পরীক্ষামূলক ইউনিট দেখানো হয়েছে যা রাস্তায় চলার পাশাপাশি আকাশে ওড়ার জন্যও লাইসেন্সপ্রাপ্ত। যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানি টেরাফুজিয়া এই গাড়ির প্রোটোটাইপের প্রদর্শনী করছে। বলা হচ্ছে, এটি পৃথিবীর প্রথম যান, যা একইসঙ্গে ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) এবং ন্যাশনাল হাইওয়ে ট্রাফিক সেফটি অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এনএইচটিএসএ) সব আদর্শ মেনে চলতে সক্ষম।
উল্লেখ্য, রাস্তায় গাড়ি চলার জন্য এনএইচটিএসএ-এর অনুমতি এবং আকাশে ওড়ার জন্য এফএএ-এর অনুমতির প্রয়োজন হয়। এই ‘উড়ুক্কু গাড়ি’ই প্রথমবারের মতো দু’টো অনুমতি একসঙ্গে পেয়েছে। এর ফলে গাড়িটিকে প্রথম ‘রাস্তার বৈধ প্লেন’ বলেছেন টেরাফুজিয়ার ভাইস প্রেসিডেন্ট অফ সেলস ক্লিফ অ্যালেন। গাড়ি কাম প্লেন এই যানে রয়েছে দু’টি সিট, চারটি চাকা এবং দু’টি আলাদা পাখা।

ওজন কমাতে বাদাম
বেশ কয়েকটি জরিপে বেশি পরিমাণ বাদাম খাওয়া (দিনে ২/৩ বার) এবং ওজন কমে যাওয়ার মধ্যে একটি সম্পর্ক প্রমাণিত হয়েছে। বেথ ইজরায়েল মেডিকেল সেন্টারের গবেষকরা ২০১০ সালে ২০ জন স্বেচ্ছাসেবী নিয়ে ছোট একটি জরিপ পরিচালনা করেন। এতে দেখা যায় নাশতার সময় কিছু আখরোট খেলে দুপুরের খাবার সময় পেট ভরাভরা লাগে, ফলে কম খাওয়া সম্ভব হয়। ক্যালোরি কম খাওয়া হলে ওজন হ্রাসে সহায়তা হয়। বাদাম খেলে যেহেতু পেট ভরাভরা লাগে, তাই তা কম ক্যালোরি খাওয়ার ব্যাপারে  সহায়ক হবে।
বাদামে থাকে পর্যাপ্ত চর্বি ও প্রোটিন এবং এর চর্বির প্রায় পুরোটাই অসম্পৃক্ত ধাচের অর্থাৎ স্বাস্থ্যকর। এতে ভিটামিন বেশি না পাওয়া গেলেও পর্যাপ্ত পরিমাণে পটাশিয়াম আছে। তাছাড়াও ম্যাগনেসিয়ামসহ প্রয়োজনীয় আরো কিছু খনিজ এতে রয়েছে।
খাদ্য নিয়ন্ত্রণ যারা করেন, তারা ক্যালোরি বেড়ে যাওয়ার ভয়ে বাদামের চর্বি এড়িয়ে চলার চেষ্টা করেন। বাদামে শর্করা সামান্যই আছে। ফলে বাদাম খেলে ওজন বাড়বে না। ১.৫ আউন্স বাদামে বিদ্যমান পুষ্টি (গ্রাম হিসেবে) : সাধারণ বাদাম, ক্যালোরি ২৪৯ গ্রাম, ফ্যাট ২১.১ গ্রাম, প্রোটিন ১০.১ গ্রাম, পেস্তা বাদাম- ক্যালোরি ২৪৩ গ্রাম, ফ্যাট ১৯.৬ গ্রাম, প্রোটিন ৯.১ গ্রাম, বিদেশী বাদাম- ক্যালোরি ২৫৪ গ্রাম, ফ্যাট ২২.৫ গ্রাম, প্রোটিন ৯.৪ গ্রাম, বড় বাদাম- ক্যালোরি ২৭৯ গ্রাম, ফ্যাট ২৮.২ গ্রাম, প্রোটিন ৬.১ গ্রাম, কাজু বাদাম- ক্যালোরি ২৪৪ গ্রাম, ফ্যাট ১৯.৭ গ্রাম, প্রোটিন ৬.৫ গ্রাম, বাদুর বাদাম- ক্যালোরি ২৭৫ গ্রাম, ফ্যাট ২৬.৫ গ্রাম, প্রোটিন ৬.৪ গ্রাম, আখরোট- ক্যালোরি ২৭৮ গ্রাম, ফ্যাট ২৭.৭ গ্রাম, প্রোটিন ৬.৫ গ্রাম, ম্যাকাড্যামিয়াস- ক্যালোরী ৩০৫ গ্রাম, ফ্যাট ৩২.৪ গ্রাম, প্রোটিন ৩.৩ গ্রাম, পেক্যান্স- ক্যালোরী ৩০২ গ্রাম, ফ্যাট ৩১.৬ গ্রাম, প্রোটিন ৪.০ গ্রাম।

ভূমিকম্প প্রতিরোধে প্রযুক্তি
ভূমিকম্প, সবচেয়ে ভয়ঙ্কর একটি প্রাকৃতিক দুর্যোগ। বিখ্যাত বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন সময়ে অবিশ্বাস্য সব আবিষ্কার করলেও এখন পর্যন্ত ভূমিকম্পের পূর্বাভাস বিষয়ক কোনো কিছু আবিষ্কার করতে পারেননি। তার উপরে বর্তমানে ছোট বড় ভূমিকম্পের ঘটনা খুবই বেশি ঘটছে। এ নিয়ে বিশ্ববাসী খুবই আতঙ্কিত। ভূতত্ত্ববিদরা বলছেন এ বিপদ থেকে রক্ষা পেতে নিজেদের কিছু করণীয় আছে।
এদিকে আশার কথা হচ্ছে, সম্প্রতি জার্মানির একদল বিজ্ঞানী এই দুর্যোগ প্রতিরোধযোগ্য ‘আর্থকুয়াক ওয়ালপেপার’ প্রযুক্তি আবিষ্কার করেছেন। তাদের দাবি এই প্রযুক্তি অসংখ্য মানুষের জীবন বাঁচাতে সক্ষম। এ সম্পর্কে তারা জানান প্রযুক্তিটি একবার দেয়ালে সেটে দিলে রিকটার স্কেলে ৬.৩ মাত্রার ভূমিকম্প প্রতিরোধ করতে পারবে। দুর্ভাগ্যবশত, বেশিরভাগ স্থাপনা ভূমিকম্প প্রতিরোধযোগ্য করে নির্মাণ না হওয়ায় এমন স্থাপনায় বসবাসরতদের জীবন সম্পূর্ণ অরক্ষিত, হুমকির মুখে। নতুন এই আর্থকুয়াক ওয়ালপেপার দেখতে সত্যিকারের ওয়ালপেপারের মত। যার বৈশিষ্ট্য হচ্ছে দেয়ালের ইটকে একত্রিত করে শক্তভাবে ধরে রাখতে পারে। এটি দেয়ালকে বেশি স্থিতিস্থাপক করে এবং ধ্বংস থেকে রক্ষা করে। প্রযুক্তিটি তৈরিতে আঠালো জাতীয় পদার্থ এবং ফাইবার ফেব্রিকের ব্যবহার হয়েছে। তবে কম্পনকালে এই ওয়ালপেপারে খুব বেশি নির্ভরশীল থাকা ঠিক না বলেও বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন। এই প্রযুক্তি বরং মানুষকে অনেক সময় বের করে দেয় ফলে নিরাপদে বেহর হয়ে ফাঁকা স্থানে আসা সম্ভব হয়। এ বছরের শেষভাগেই আর্থকুয়াক ওয়ালপেপার প্রকাশ করা হবে।

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here