তিউনিশিয়ায় ইসলামী রেনেসাঁ আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃৎ । ড. রাশিদ ঘানুসি ইউনুছ আব্দুদ্দাইয়ান

[গত সংখ্যার পর]

২০১৩ সালের জুলাই মাসে বিরোধী দলের আরেকজন নেতা মুহাম্মদ ব্রাহিমি আততায়ীর গুলিতে নিহত হলে আবার অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়। এ অবস্থায় দেশটির শক্তিশালী শ্রমিক ইউনিয়ন ইউজিটিটি সঙ্কট নিরসনের উদ্যোগ নেয়। তাদের মধ্যস্থতায় সরকার ও বিরোধী দল অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অধীন সংসদ ও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সম্মত হয়। ২০১৪ সালের জানুয়ারি মাসে আননাহদা সরকার পদত্যাগ করে এবং তারপর মেহেদি জুমআর নেতৃত্বে টেকনোক্র্যাট সরকার গঠিত হয়।
আননাহদা কর্তৃক অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের কাছে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর দেশ-বিদেশে প্রশংসিত হয়। এর ফলে দেশে গণতন্ত্রের অভিযাত্রা অব্যাহত থাকে। FRANCIS GHILÈS আননাহদার ভূমিকার প্রশংসা করে মন্তব্য করেন :
The resignation fosters a promising culture of peaceful transfer of power – a first in the Arab world. Before stepping down, however, Ennahda’s leaders – working with leaders from two secular-leaning political parties, al-Mu’tamar and al-Takattul -managed to reduce the level of violence in the country, stabilize the economy, draft a new constitution, and set the course for a transition to a permanent government though the ballot, not the bullet.
আননাহদা সরকার পরিচালনায় অনেক ইতিবাচক ভূমিকা রাখে। রাজনৈতিক সংকট নিরসনে তাদের উদার মনোভাব পোষণ এবং সকল রাজনৈতিক দলের সাথে ডায়ালগ এর উদ্যোগ দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে ভূমিকা রাখে। এককভাবে দলীয় দৃষ্টিভঙ্গিতে নতুন সংবিধান প্রণয়নের পরিবর্তে সকল রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে নতুন সংবিধান রচনা করে। এই সম্পর্কে Tunisia’s Higher Political Reform Commission প্রেসিডেন্ট Professor Yadh Ben Achour চমৎকার পর্যালোচনা করেন :
The constitution reflects the compromise that was found through discussion, between principles that include the respect of a nation’s religious identity as well as the implementation of modern democratic rules. It also reflects the sometimes substantial concessions made by both camps, which would not have been possible in a situation of extreme crisis.The Islamists in Tunisia conceded, significantly, the freedom of conscience or religious freedom, which no other Muslim-majority country has yet accepted. They agreed, for example, that Takfir – the accusation of apostasy, which could be interpreted as an invitation to murder – is a crime punishable by law. They also conceded that sovereignty lies with the people, and that politics must be governed by democratic norms.On the other hand, their opponents conceded that there is a sacred realm, which deserves to be protected and respected, which is part of the national identity, and which should not be exposed to hostile assaults.In Tunisia, there was recognition that at decisive moments such as during the design of a new constitution, the principle of majority rule could be divisive, and not allow a real rallying of all political perspectives.For this reason, the idea of building a consensus through dialogue, or ‘Tawafuq’, was seen as a pathway to better outcomes.
সংবিধান রচনায় আননাহদার দূরদর্শী পলিসির কারণে বিরোধী দল এই ইস্যুতে কোন আন্দোলন গড়ে তোলার সুযোগ পায়নি। ফলে সামরিক হস্তক্ষেপ বা বৈদেশিক হস্তক্ষেপের কোনো পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি। আননাহদা শান্তিপূর্ণভাবে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে প্রেসিডেন্ট এবং সংসদ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে কার্যকর ভূমিকা রাখে। আরব বসন্তের পর মিশরে ইখওয়ান ক্ষমতায় এলেও সামরিক হস্তক্ষেপের ফলে তারা ক্ষমতাচ্যুত হয় এবং হাজারো নেতাকর্মী শহীদ হয়। আরব বসন্তের পর লিবিয়ায় সরকার পরিবর্তন হলেও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা আসেনি। যার ফলে লিবিয়া একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হয়। আর আলজেরিয়া দীর্ঘদিন যাবৎ অস্থিতিশীল। আফ্রিকার ছোট একটি দেশ তিউনিশিয়াতে এই ধরনের কোন পরিস্থিতি সৃষ্টি হউক আননাহদা চায়নি। সাংবাদিক Neil Clarkযথার্থই মন্তব্য করেছেন যে, Tunisia: Where the Arab Spring has not yet turned to winter ড. রাশিদ ঘানুসির ভাষায় ‘‘আরব বসন্তের পর তিউনিশিয়া একমাত্র দেশ যা এখনো বিপ্লবের আলোক শিখা জ্বালিয়ে রেখেছে।”
এই দিক থেকে পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে আননাহদা তাদের লক্ষ্য অর্জনে গৃহীত কৌশলে এখন পর্যন্ত সফল। তিউনিশিয়া ভৌগোলিক অবস্থান মিশরের মত গুরুত্বপূর্ণ নয় বলে বৈদেশিক হস্তক্ষেপ তুলনামূলকভাবে কম। আর তিউনিশিয়াতে সিভিল সোসাইটির ভূমিকা বেশ কার্যকর হওয়ায় রাজনৈতিক সংকট সমাধানে বরাবরই কার্যকর ভূমিকা রাখে (Tunisians have succeeded in keeping outside influence to a minimum. They trusted civil society institutions with mediating political dissent)।

২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আননাহদার পরাজয়
২০১১ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আননাহদা ৩৭.৪৭% ভোট পেয়ে ৮৯ আসন নিয়ে সরকার গঠন করলেও ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আননাহদা ২৭.৭৯% ভোট পেয়ে ৬৯ আসন পায়। ধর্মনিরপেক্ষ নিদা তিউনিস দল ২১৭ আসনের মধ্যে ৮৬ আসন পেয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। Popular Front ১৬ আসন , Free Patriotic Union ১৬ আসন ও Prospects for Tunisia ৮ আসন পায়। আননাহদা পরাজয়কে স্বীকার করে বিজয়ী দলকে অভিনন্দন জানায় (We have accepted this result and congratulate the winner)। মূলত দেশের ভঙ্গুর অর্থনৈতিক অবস্থার কারণেই নির্বাচনে আননাহদার পরাজয় বরণ করে বলে অনেক পর্যবেক্ষক মতপ্রকাশ করেন। নর্থ আফ্রিকার বিশেষজ্ঞ Michael Willis বলেন, ‘the decline in Ennahda’s electoral popularity reflected public discontent with their handling of the economy. On the doorsteps, the economy was the main issue.”
দেশের অর্থনৈতিক মন্দা অবস্থার কারণে বেকার যুবকদের প্রত্যাশা পূরণ করা কঠিন ছিল। FRANCIS GHILÈS ২১ শে ডিসেম্বর ২০১৪ সালে Tunisia: the Arab exception’s test শিরোনামে লিখিত প্রবন্ধে তা এইভাবে তুলে ধরেন :
During the two years they governed Tunisia in 2012-13, the Islamists demonstrated their lack of interest, or inability, in addressing the economic and social problems of a modernising society. The Islamists favour free-wheeling – nay, crony – capitalism as do all authoritarian Arab regimes. Even more damming was their failure to control the hardline Salafi Islamists who not only resorted to violence in Tunisia but sent an estimated 3,000 of their number to Syria to join the war there. Such insecurity does little to attract domestic or foreign investment.
ANOUAR JAMAOUI Zuvi The decline of political Islam in Tunisia শীর্ষক প্রবন্ধে আননাহদার পরাজয়ের কয়েকটি কারণ উল্লেখ করেন। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে আননাহদা নেতৃবৃন্দের সরকার পরিচালনার কোন অভিজ্ঞতা ছিল না। তিউনিশিয়ার ইতিহাসে প্রথমবারই ইসলামপন্থীরা ক্ষমতাসীন হয়। ট্রানজিশনাল পিরিয়ডে দেশ পরিচালনা কত কঠিন সে অভিজ্ঞতা তাদের ছিল না। তাই তারা ট্রেড ইউনিয়ন, টেরোরিস্ট হামলা, অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ ও সামাজিক নানামুখী সমস্যা সমাধানে হিমশিম খায়। দল পরিচালনা ও সরকার পরিচালনা এক কথা নয়। আদর্শিক বক্তব্য দেয়া আর ক্ষমতায় গিয়ে জনগণের সমস্যা সমাধানে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ এক কথা নয়। বেকারত্ব দূর, কালোবাজারি ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় জনগণের মধ্যে হতাশা জাগে। মিডিয়ায় অব্যাহতভাবে অপপ্রচার চালায় এবং ইসলামী সমাজব্যবস্থা নিয়ে নানা ধরনের কল্পকাহিনী প্রচার করে। এই ক্ষেত্রে আননাহদার সমর্থনে উল্লেখযোগ্য কোন মিডিয়া ছিল না; তারাও বিকল্প মিডিয়া করতে ব্যর্থ হয়। আননাহদার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ সফলতার সাথে প্রচারণা চালায় যে, ইসলামপন্থীরা ক্ষমতাসীন হলে তাদের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ অন্ধকার হবে। তাই তারা সকলে আননাহদার পরাজয়ের জন্য সকলে ঐক্যবদ্ধ ছিল। দুর্নীতিপরায়ণ সরকারি কর্মকর্তারা আননাহদার প্রতি সন্তুষ্ট ছিল না এবং তারা নেতিবাচক ভূমিকা পালন করে। বেকার যুবকরা আননাহদার মাঝে তাদের স্বপ্ন পূরণ হওয়ার আশা দেখতে পায়নি।

আননাহদা নেতৃত্ব আশাবাদী ছিল যে জনগণ সাবেক স্বৈরাচারী সরকারের আমলের রাজনৈতিক নেতাদেরকে নির্বাচনে প্রত্যাখ্যান করবে। কিন্তু এটা ছিল তাদের অলীক বাসনা। শরিয়াহ আইন সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত না করায় ইসলামপন্থী একটি অংশ আননাহদার প্রতি সমর্থন প্রত্যাহার করে। বিশেষভাবে সালাফি ইসলামপন্থীদের কট্টর ভূমিকাও আননাহদার পরাজয়ের অন্যতম কারণ। আননাহদা স্বৈারাচারী বেনআলি সরকারে সংশ্লিষ্টদের বিচারের পরিবর্তে রাজনৈতিক ঐক্যকে গুরুত্ব দেয়। এর ফলে বিপ্লবের চেতনার সাথে তারা আপস করেছে বলে অনেকই অভিযোগ করে।
আননাহদার নেতৃবৃন্দের সাথে লেখকের আলোচনার সময় তাঁরা বলেন, সাবেক স্বৈরশাসকের সময় দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। তাই কোন দেশের অর্থনীতি চরম খারাপ অবস্থায় থাকলে ট্রানজিশনাল সময়ে ইসলামপন্থীরা প্রথম পর্যায়ে সরাসরি ক্ষমতায় না গিয়ে পর্যায়ক্রমে ক্ষমতায় যাওয়ার পরিকল্পনা করা ভালো। একটি বিষয় সকলেই স্বীকার করেন যে, আননাহদা ক্ষমতায় থাকাকালীন বিরোধীদের ওপর কোনো ধরনের দমন পীড়ন চালায়নি। অথচ তারা দীর্ঘদিন দমন পীড়নের শিকার হয়েই ক্ষমতাসীন হয়। তারা জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠায় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সাথে সংলাপ এর আয়োজন করে। একটি বৈরী পরিবেশে সকলকে সাথে নিয়ে দেশের সংবিধান রচনা করায় তারা কৃতিত্বের দাবিদার। নারী-পুরুষের অধিকার সংরক্ষণ, চিন্তা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করে তারা আরব বসন্তের হাওয়া কিছুটা হলেও সংরক্ষণ করতে সক্ষম হয়। এর ফলেই তিউনিশিয়াতে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত আছে। FRANCIS GHILÈS আননহাদার ইতিবাচক ভূমিকার প্রশংসা করে মন্তব্য করেন : It did not control citizens via hellish surveillance machinery, and did not disrupt the political activities of its political rivals. Ennahda indeed encouraged national dialogue between political contenders. It is also true that Ennahda contributed actively to the adoption of the first democratic and consensual Arabconstitution that guarantees equality between men and women, freedom of expression, freedom of conscience, freedom of thought, the right of association, and the right to difference and political pluralism. As an Islamist political party, Ennahda was able to provide an example of a peaceful handover of power।
সমঝোতা ও জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠায় আননাহদার ভূমিকার কারণেই Tunisian National Dialogue Quarter শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পায়। নোবেল পুরস্কার কমিটি পোপ ফ্রান্সেস ও জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেলের পরিবর্তে তিউনিশিয়ার ন্যাশনাল ডায়ালগ কোয়ার্টারকে কী কারণে নোবেল পুরস্কারের জন্য নির্বাচন করে তা এইভাবে উল্লেখ করে : The Nobel Peace Prize Committee confounded expectations Friday — bypassing figures such as Pope Francis and German Chancellor Angela Merkel — and handed the award to the Tunisian National Dialogue Quartet for its decisive contribution to the building of a pluralistic democracy in the country in the wake of the Jasmine Revolution of 2011.
তিউনিশিয়ান ন্যাশনাল ডায়ালগ কোয়াটার ২০১৩ সালে মানবাধিকার কর্মী, আইনজীবী, শ্রমিক ইউনিয়ন, ট্রেড ইউনিয়ন, সিভিল সোসাইটির সদস্যদের নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়। সেসময় গুপ্ত হত্যার পর যখন সামাজিক অস্থিতিশীলতার সৃষ্টি হয় এবং গণতন্ত্র বাধাগ্রস্ত হওয়ার শঙ্কা দেখা দেয়। এমতাবস্থায় ডায়ালগ কোয়াটার শান্তি ও সমঝোতা প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। নোবেল কমিটি তাদের স্টেটমেন্টে উল্লেখ করে- It established an alternative, peaceful political process at a time when the country was on the brink of civil war. It was thus instrumental in enabling Tunisia, in the space of a few years, to establish a constitutional system of government guaranteeing fundamental rights for the entire population, irrespective of gender, political conviction or religious belief.”

ক্ষমতাসীন দলে ভাঙন এবং কোয়ালিশন সরকারে আননাহদার যোগদান
প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক মন্ত্রিপরিষদ নিয়োগ নিয়ে ক্ষমতাসীন দলে বিরোধ দেখা দেয় এবং তাদের কতিপয় সংসদ সদস্য দল থেকে পদত্যাগ করে নতুন দল গঠন করেন। সরকারি দলের সংসদ সদস্য সংখ্যা বর্তমানে ৫৮। আর আননাহদার সংসদ সদস্য সংখ্যা ৬৯ এবং সর্ববৃহৎ দল হিসাবে দেশের সংবিধান অনুযায়ী তারা ইচ্ছা করলে ক্ষমতাসীন সরকারের পতন ঘটিয়ে নিজেরা সরকার গঠন করতে পারে। কিন্তু আননাহদা দেশের স্থিতিশীলতা রক্ষা করে অর্থনৈতিক উন্নয়নকে গুরুত্ব দিয়ে সরকারের সাথে সমঝোতায় যায় এবং কম গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় নিয়ে কোয়ালিশন সরকারে যোগ দেয়। এই প্রসঙ্গে লেখকের সাথে উস্তাদ ঘানুসির ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে তিউনিশিয়ায় তাঁর বাসভবনে সাক্ষাৎকারের সময় তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, ‘‘আপনারা কেন সরকারের নিয়ন্ত্রণ না নিয়ে কমগুরুত্বপূর্ণ একজন মন্ত্রী ও উপদেষ্টা পদ নিয়ে ক্ষমতাসীনদেরকে সাপোর্ট দিয়ে যাচ্ছেন?” তিনি জবাবে বলেন, ‘‘আননাহদা এককভাবে ক্ষমতায় থাকাকালে নৌকা ডুবানোর জন্য সবাই চেষ্টা করে। বর্তমানে আবারও ক্ষমতাসীন হলে সকলে মিলে চক্রান্ত করবে নৌকাটি ডুবিয়ে দিতে। অপর দিকে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো নয় এবং আননাহদার বর্তমান সাপোর্ট হচ্ছে জনসংখ্যার প্রায় ৪০%। আননাহদার টার্গেট হচ্ছে এই সমর্থন ৬০% উন্নীত করা এবং তারপর স্থিতিশীল সরকার গঠন করা।” তিনি আরও জানান, ‘‘আননাহদা বর্তমান সরকারের পতন ঘটিয়ে নিজেরা ক্ষমতাসীন হওয়ার পরিকল্পনা নেই বরং কম গুরুত্বপূর্ণ কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় নিয়ে কোয়ালিশন সরকারের মাধ্যমে স্থিতিশীল তিউনিশিয়া গড়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করবে।” অভ্যন্তরীণ সার্ভ অনুযায়ী আগামী নির্বাচনে আননাহদা সকল আসনে প্রার্থী দিলে তারা একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করার সম্ভাবনা বেশি। কিন্তু আন্তর্জাতিক বর্তমান প্রেক্ষাপটে ইসলামপন্থী কোন দল ক্ষমতায় এলে বর্তমান ক্ষমতাসীন ‘‘নিদায়ে তিউনিশিয়া” বৈদিশিক সাহায্য পাওয়ার যত প্রতিশ্রুতি পেয়েছে তা পাওয়া যাবে না। ফলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে ; তাই আননাহদা আগামী নির্বাচনে সকল আসনে প্রার্থী না দেয়ার চিন্তা করছে। তারা ক্ষমতাসীন দলের সাথে সম্পর্ক বজায় রেখে আরও কিছুদিন দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রেখে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে বদ্ধপরিকর। ক্ষমতাসীন দলের মাধ্যমেই তারা আরও কিছু সংস্কারকার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে চায়।
এখানে আরেকটি বিষয় উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, আননাহদা সর্বাপেক্ষা বৃহত্তর রাজনৈতিক দল হলেও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তারা কোন প্রার্থী দেয়নি। যার কারণে নিদা তিউনিস কর্তৃক মনোনীত প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ৮৭ বছর বয়সী Beji Caid Essebisi বিজয়ী হন। তিনি হাবিব বর্গুইবা ও বেনআলি সরকারের সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন। অবশ্য Essebsi বিজয়ী হওয়ার ক্ষেত্রে তার পুর্বসূরি প্রেসিডেন্ট মারযুকীর দুর্বলতাও বড় ফ্যাক্টর ছিল। এ ছাড়া মহিলারা এবং দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের নিম্ন আয়ের মানুষ তাকে বেশি ভোট দেয়।
অপর দিকে ২০১৩ সালের ১৫ আগস্ট ড. ঘানুসির সাথে ফ্রান্সে ঐকমত্যের ভিত্তিতে শান্তিপূর্ণ উপায়ে আননাহদা সরকার কর্তৃক অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়া নিয়ে Essebsi গঠনমূলক ভূমিকা পালন করেন। আননাহদা তা ইতিবাচক দৃষ্টিতে স্মরণে রাখে এবং পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে পারস্পরিক সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি বৃদ্ধিতেও প্রয়াস চালায়। ড. রাশিদ ঘানুসি ক্ষমতাসীন ধর্মনিরপেক্ষ নিদা তিউনিসের সম্মেলনে অতিথি হিসেবে যান ; একইভাবে তিউনিশিয়ার বর্তমান প্রেসিডেন্ট Essebsi আননাহদার কনফারেন্সে অতিথি হিসেবে যোগদান করে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কের ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধভাবে দেশগড়ার আহবান জানান। তাঁরা মনে করেন, The sharing power is the safest way for Tunisia to really be sucuessful in this transition.
তাঁরা বিশ্বাস করেন, ডিক্টেটরশিপ থেকে গণতান্ত্রিক অভিযাত্রায় শুধু সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে দেশ শাসনের পরিবর্তে সকল রাজনৈতিক দলের মাঝে বৃহত্তর ঐক্য প্রয়োজন। স্বৈরাচারী সরকারের সময় দেশের অর্থনীতি, রাজনীতি সকল ক্ষেত্রে যে পচন ধরে দেশকে এই গভীর ক্ষত থেকে নতুন সম্ভাবনার দিকে নিতে হলে রাষ্ট্রীয়ভাবে ব্যাপকভিত্তিক সংস্কারের পদক্ষেপ নিতে হবে।
ইসলামপন্থী আননাহদা ও সেক্যুলারিস্ট নিদা তিউনিসের মধ্যে কোয়ালিশন হওয়ার কারণে তিউনিশিয়ায় একদলীয় স্বৈরতন্ত্রের পথ বন্ধ হয়ে বহুদলীয় গণতান্ত্রিক ধারা শুরু হয়। দেশের বুদ্বিজীবী মহল ও মিডিয়া আননাহদার এই উদারতার প্রশংসা করে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, Ennahda’s support of the current Tunisian government in the parliamentary vote of confidence made it appear in the eyes of its supporters and citizens as a responsible political party, which gives priority to national unity over narrow political interests and considerations.The Islamist movement persuaded its partisans of the validity of its strategic political choices, particularly its use of diplomatic flexibility in political negotiations in the transitional phase, and its support for the coalition government.Through its symbolic presence in the government, Ennahda plans to maintain a foothold within the newly formed Council of Ministers, as one of the key centres of decision-making in the new Tunisian state. It is believed that its participation in the current government will inevitably allow it to have first-hand knowledge of political developments, and will preserve its power to influence political projects by acclamation or revocation.Through this presence, Ennahda seeks to avoid the scenario of a monopoly of political authority by leftists and constitutionalists. Such a scenario could lead to the isolation of Ennahda, its exclusion from the political scene, and the prosecution of its adherents and leaders—as happened in the nineties, at the time when the Democratic Constitutional Rally and Ben Ali’s oligarchic regime tolerated no political pluralism.
আননাহদা ধর্মনিরপেক্ষ নিদা তিউনিশের সাথে সংঘাত এড়ানোর কৌশল গ্রহণ করার ফলে জনগণের মধ্যে দলের ইমেজ বৃদ্ধি পায়। কারণ মানুষ সংঘাতের রাজনীতি চায় না। তারা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন চায়। আননাহদা প্রমাণ করেছে যে তারা অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও দেশের স্থিতিশীলতা রক্ষায় সংঘাত নয় বরং ডায়ালগে বিশ্বাসী। কোয়ালিশন সরকারে যোগদানের ফলে তারা রাজনীতির মূলধারার ভেতরই থাকে। অপরদিকে আননাহদার সাথে সমঝোতা না করলে সরকার স্থিতিশীলতা অর্জন করতে পারতো না। যেকোনো সময় ছোট দলগুলো আননাহদার সাথে যোগ দিয়ে সরকারের পতন ঘটাতে পারতো। এ ছাড়া ক্ষমতাসীন দল স্বৈরাচারী বেনআলির সহযোগী হিসেবে যে দুর্নাম ছিল তা কিছুটা হলেও লাঘব হয়। আননাহদার সাথে কোয়ালিশন এর কারণে নিদায়ে তিউনিশ লাভবান হয়।
আননাহদা ও নিদায়ে তিউনিশ দুই দলের ঐক্য নিয়ে উভয় দলের ভেতরে কারো কারো বিপরীত মত থাকলেও উভয় দলের মূল নেতৃত্বের প্রতি দলের অধিকাংশেরই সমর্থন আছে। এই ইস্যুতে আননাহদাতে বাহ্যত তেমন কোন বিভাজন দেখা যায়নি। কিন্তু নিদায়ে তিউনিশের সংসদ সদস্যদের একটি অংশ ইসলামপন্থীদের সাথে ঐকমত্যের সরকার গঠন প্রশ্নে প্রকাশ্যে সমালোচনা করে। ড. ঘানুসির আকাশ ছোঁয়া ব্যক্তিত্বের কারণে তাই আননাহদার কারো কারো মাঝে দ্বিমত থাকলেও দলীয় বিভাজন হয়নি। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী হামিদ জাবালিসহ কেউ কেউ চুপচাপ হয়ে পড়লেও প্রকাশ্যে দ্বিমত করেনি। কিন্তু নিদায়ে তিউনিশ এর দলীয় প্রধান ঊংংবনংর’ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের জন্য দল থেকে পদত্যাগ করার পর দলে তাঁর মত ব্যক্তিত্বসম্পন্ন নেতৃত্বের অভাবে তাদের মধ্যকার বিরোধ প্রকাশিত হয়। দলের যারা মন্ত্রিপরিষদে বা প্রেসিডেন্ট এর উপদেষ্টা হিসাবে সরকার পরিচালনায় সম্পৃক্ত তাদের সাথে অন্যদের বড় ধরনের মতপার্থক্য দেখা দেয়। ইসলামপন্থীদের সাথে ঐক্য গড়ার ইস্যুতে ধর্মনিরপেক্ষ নিদায়ে তিউনিশ দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়ে। এটা ইসলামপন্থী আননাহদার এক ধরনের সফলতা। কারণ নিদায়ে তিউনিশের ভিতর যারা আননাহদা বিরোধী ছিল তারা সরকার পরিচালনা থেকে ছিটকে পড়ে।

ঘানুসির উদারনীতি ও ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিভঙ্গি
বিভিন্ন রাজনৈতিক দল বেনআলির সময়কার মন্ত্রী ও রাজনৈতিক নেতাদেরকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করে দুর্নীতির দায়ে কারারুদ্ধ করার দাবি জানায়। এই ইস্যু নিয়ে সংসদের তুমুল হট্টগোল হয়। ক্ষমতাসীন দলের কেউ কেউ তাদের সাথে সুর মিলায়। আন-নাহদার কিছু সংসদ সদস্যও উক্ত দাবির সাথে একমত হয়। এমতাবস্থায় উস্তাদ রাশিদ ঘানুসি মনে করেন অতীত নিয়ে দেশকে বিভাজনের দিকে ঠেলে না দিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে দেশকে সমৃদ্ধির পথে নেয়া জরুরি। তাই তিনি সংসদ ভবনের দিকে ছুটে যান সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার বিষয়টি বুঝানোর জন্য। তিনি সংসদ ভবনে যাওয়ার পর উক্ত ইস্যুতে সংসদে আর ভোটাভোটি হয়নি।
আমাকে আরেকটি বিষয় বিমোহিত করে যে, কিছুদিন আগে উস্তাদ ঘানুসির সাথে স্বৈরশাসক বেনআলির মেয়ে দেখা করতে তাঁর বাসায় গিয়ে জানায়, ‘‘সরকার তাদের সম্পদ ও বাড়িঘর বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।” সে তাঁর সহযোগিতা চায়। তা শোনার পর উস্তাদ ঘানুসি বেনআলির মেয়েকে বলেন, ‘‘সরকার যদি তোমাদেরকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করে এবং তা বাজেয়াপ্ত করে তাহলে তোমার ঠিকানা হচ্ছে আমার বাড়ি।” যেই বেনআলির কারণে তিনি ২২ বছর নির্বাসনে ছিলেন তার মেয়েকে এইভাবে আশস্ত করে উস্তাদ ঘানুসি অতীতমুখী রাজনীতির পরিবর্তে সমৃদ্ধ তিউনিশিয়া গড়ার জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

২০১৬ সালে আননাহদার দশম কনফারেন্স এবং নয়া কৌশল
আননাহদার প্রথম কনফারেন্স ১৯৭৯ সালে অনুষ্ঠিত হয় এবং দশম কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয় ২১-২৫ শে মে ২০১৬। এই সম্মেলনে আননাহদা মৌলিক কিছু পলিসির পরিবর্তন সাধন করে গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। এতে উস্তাদ রাশিদ ঘানুসি এক ঐতিহাসিক বক্তব্য প্রদান করেন। তাঁর উক্ত বক্তব্যের নির্যাস হচ্ছে :
আরব বসন্তের পর তিউনিশিয়া একমাত্র দেশ যা এখনো বিপ্লবের আলোক শিখা জ্বালিয়ে রেখেছে। আননাহদাহ ওঝওঝ ও তাকফিরিদের বিরুদ্ধে সমর্থন পূর্নব্যক্ত করেছে। সন্ত্রাসবাদ এবং ঘৃণা বিদ্বেষের বিরুদ্ধে জনগণ জয়ী হবে। চরমপন্থীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ইসলাম এক ইতিবাচক শক্তি; এই জন্য আমাদের এমন আলেম দরকার যারা ইসলামের নামে চরম পন্থাকে প্রত্যাখ্যান করবেন। দেশকে বিভক্ত কার চেয়ে ঐক্যই একমাত্র গ্রহণযোগ্য পথ। রাষ্ট্রের কোন সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করা এবং রাষ্ট্রের স্থিতিশীলতা নষ্ট করা এক নয়। আমরা এমন একটা সার্বজনীন জাতীয় ঐক্য, সহযোগিতা ও সংহতি গড়ে তুলতে চাই যেখানে বিপ্লব ও শহীদ বিপ্লবীদের যথাযথ স্বীকৃতি দেয়া হবে ও সংবিধানের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থাকবে। ইসলামপন্থী, সংবিধানপন্থী, বামপন্থীসহ বিপ্লবকে মূল্যায়ন করে এমন সব বুদ্ধিজীবী, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ সকলে মিলে ঘৃণা ও বর্জনের সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে এসে ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে পারি। এটা কোন গোপন সমঝোতা নয় বরং রাষ্ট্র বনাম নাগরিক, সুবিধাপ্রাপ্ত বনাম সুবিধাবঞ্চিত অঞ্চল এবং অতীত বনাম বর্তমানের বিরোধ মিটিয়ে ফেলার জাতীয় আকাক্সক্ষার বহিঃপ্রকাশ।
বিপ্লবের আগের এবং পরের ত্রুটি থেকে শিক্ষা নিতে আননাহদা আন্তরিক। ভুল-ত্রুটি স্বীকার করার ব্যাপারে আমরা ভীত নই। সত্তরের দশক থেকে আজ পর্যন্ত নিজেদের বিকাশের পথ বন্ধ করে দেয়া হয়নি। একটি জাতীয় গণতান্ত্রিক দল হিসেবে ইসলামী মূল্যবোধ, দেশের শাসনতন্ত্র এবং যুগের চাহিদার প্রতি লক্ষ্য রেখে সংস্কারের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সংস্কার একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। ধর্মকে রাজনৈতিক লড়াই-সংগ্রাম থেকে দূরে রাখতে মসজিদগুলোকে রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের ক্ষেত্রে নিরপেক্ষ থাকার আহবান জানাই। আমরা চাই না মসজিদগুলো রাজনৈতিক দ্বন্দ্বের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার হউক। মসজিদগুলো দলীয় বিভাজনের পরিবর্তে জাতীয় ঐক্য গঠনে অধিকতর ভূমিকা পালনে সক্ষম হবে। জনজীবনে ইসলামী মূল্যবাধের প্রতি গুরুত্বারোপ করতে হবে। ঔপনিবেশিক শক্তির বিরুদ্ধে পরিচালিত সংগ্রামে নেতৃবৃন্দ ধর্মীয় সেন্টিমেন্টকে সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজে লাগিয়েছেন। বর্তমানে ত্যাগ স্বীকার, সত্যবাদিতা, সততায় উৎসাহ প্রদান এবং উন্নয়নের সহায়ক হিসাবে ইসলামী মূল্যবোধকে কাজে লাগানো যায়। দমননীতি, অপবাদ এবং ভয়ের মাধ্যমে আননাহদার সাথে রাষ্ট্রের সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত করার জন্য স্বৈরাচারী সরকার চেষ্টা করেছে। আল্লাহর রহমত রাষ্ট্র ও আননাহদার মধ্যে পারস্পরিক শত্রুতা সৃষ্টি করতে তারা ব্যর্থ হয়েছে। আননাহদা সরকার জাতীয় ঐক্যপ্রতিষ্ঠায় সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। ক্ষমতালিপ্সু, কর্তৃত্বপরায়ণ কিংবা ক্ষমতার একচ্ছত্র অধিকারী হতে ইচ্ছুক নই।
সুষম রাষ্ট্রব্যবস্থা কায়েমই আমাদের লক্ষ্য। কোন ধরনের বৈষম্য ব্যতিরেকে সর্বস্তরের নারী-পুরুষকে ধারণ করবে। আইন পরিষদ, আদালত, সিভিল সোসাইটি ও মিডিয়ার পর্যবেক্ষণের মধ্য থেকে আইনের প্রয়োগ ও সংবিধানের মর্যাদা সমুন্নত রাখতে সক্ষম হবে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা। আননাহদা দুর্নীতি, ঘুষ, কর ফাঁকি এবং জনগণের সম্পদ অপচয়ের বিরুদ্ধে লড়াই করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। স্বাধীনতা মানে নৈরাজ্য নয় এবং অপরদিকে রাষ্ট্রক্ষমতা মানে দমন পীড়ন ও কণ্ঠরোধ করা নয়। জনপ্রশাসনের কর্মচারীদের মর্যাদা রাষ্ট্রের মর্যাদারই অংশ। কোনো অর্থনৈতিক এবং সামাজিক পুনর্জাগরণ সত্যিকার প্রশাসনিক সংস্কার ছাড়া হতে পারে না। এই সংস্কারের মধ্যে রয়েছে প্রশাসনকে পরিপূর্ণ ডিজিটাল প্রশাসনে রূপান্তরিত করা। জীবনযাত্রার ব্যয়, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, নিরাপত্তা, সন্ত্রাসবাদ, দরিদ্র, বঞ্চিত মানুষের সংগ্রাম অধিকতর গুরুত্বপূর্ণ। বড় বড় শ্লোগান এবং রাজনৈতিক বিরোধ দিয়ে কোনো আধুনিক রাষ্ট্র চলতে পারে না। সবার জন্য নিরাপত্তা ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করার মতো সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মসূচি ও সেসবের বাস্তধায়নের মাধ্যমেই রাষ্ট্র পরিচালিত হয়। আদর্শনির্ভর তাত্ত্বিক বিতর্ক থেকে সরিয়ে অর্থনৈতিক উন্নয়ন আননাহদার বর্তমান প্রাইমারি লক্ষ্য। নারীদের অধিকার ও উন্নতিতে আমরা গর্বিত। তাদের সম্ভাবনার বিকাশ এবং আরো বেশি স্বাধীনতা প্রদানের পক্ষে আমাদের সমর্থন অব্যাহত থাকবে। একই সাথে ঐক্য ও সামাজিক কাঠামোর ভিত্তি হিসেবে পরিবার প্রথার সংরক্ষণকে আমরা সমর্থন করি।
জ্ঞান ও নৈতিকতার ভারসাম্য রক্ষা এবং কর্মসংস্থান উপযোগী শিক্ষাব্যবস্থার সংস্কার জরুরি। বেকারত্বের রাস্তা নয় বরং শিক্ষা হতে হবে কর্মসংস্থানের প্রবেশদ্বার। মাদকতাসহ তরুণদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়গুলো চিহ্নিত করতে হবে এবং সংখ্যাধিক্যকে প্রাধান্য দেয়ার চেয়ে গুণগতমানকে অগ্রাধিকার দিতে হবে। দেশের সর্বত্র ক্রীড়া ও সংস্কৃতিক পুনর্জাগরণ ও সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটাতে হবে। ঘনবসতিপূর্ণ অঞ্চলে একটি সুইমিংপুল, একটি ক্রীড়াকেন্দ্র এবং একটি সাংস্কৃতিক কেন্দ্র দেখতে চাই। বেকারত্ব দূরীকরণে ভোকেশনাল টেনিং সিস্টেমকে শক্তিশালীকরণ, একে প্রমোট করা এবং নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি, আঞ্চলিক উন্নয়নে ভারসাম্যতা অর্জন, কর্মোদ্যোগ এবং ব্যক্তি উদ্যোগের প্রতি উৎসাহ প্রদানের মত বিনিয়োগ নির্ভর অর্থনীতি বেকারত্ব দূর করতে পারে। দেশের বঞ্চিত অঞ্চলের উন্নয়নে দেশের অঞ্চলগুলোর স্ব স্ব প্রাকৃতিক সম্পদের অনুপাত অনুসারে আঞ্চলিক উন্নয়নের নীতিমালাকে সমর্থন। আগামী পাঁচ বছরে প্রত্যেক জেলার নিজস্ব অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে একটি করে অর্থনৈতিক প্রকল্প বাস্তবায়ন জরুরি। সমাজকল্যাণ কার্যক্রম বাড়িয়ে দেয়া বিশেষ করে কৃষি শ্রমিকদের জন্য। তাদেরকে প্রয়োজনীয় ভর্তুকি দেয়া জরুরি। দ্বন্দ্ব-সংঘাতের সমাধানের পথ হলো ঐকমত্য গড়ে তোলা এবং সহাবস্থানের ভিত্তি স্থাপন করা। দুর্নীতি, ঘুষ, স্বৈরতন্ত্র, বিশৃঙ্খলা এবং সন্ত্রাসবাদ থেকে মুক্তির সমাধান যে গণতন্ত্র আমরা তা দেখাতে পেরেছি। পশ্চাৎপদ একনায়কতন্ত্রকে সমর্থন করার চেয়ে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করা ভালো এবং ফলপ্রসূ।
অসংখ্য ত্যাগ, অশ্রু ও রক্তের বিনিময়ে আননাহদার সদস্যরা শেষ পর্যন্ত ধৈর্যের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। আমাদেরকে নিজেদের ভুলগুলো স্বীকার এবং আত্মম্ভরিতা থেকে বেরিয়ে এসে নিজেদের পলিসির পুনর্মূল্যায়ন করার সাহস অর্জন করতে শিখিয়েছে। বর্তমান যুগে এগিয়ে যাবার অন্যতম পূর্বশর্ত হলো আত্মসমালোচনা। ঐক্যবদ্ধ নয়া আননাহদা তিউনিশিয়ার সমস্যাগুলো সমাধানে কাজ করতে সক্ষম। এই দল জাতীয় আশা-আকাক্সক্ষার দল। এই দলটি জাতীয় আশা-আকাক্সক্ষার মূল্যায়ন এবং গঠনমূলক সমালোচনা করতে সক্ষম যা দেশে বিকল্প গণতান্ত্রিক শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক। দলটির অভ্যন্তরীণ পরিবেশ স্বচ্ছতার নীতি দ্বারা পরিচালিত এবং এর সকল সামর্থ্য সম্ভাবনা সকলের জন্য উন্মুক্ত। মেজরিটি বা মাইনরিটির ভিত্তিতে নয় বরং ঐকমত্য ও অংশীদারিত্বের ভিত্তিতেই আসন্ন বছরগুলোতে তিউনিশিয়া শাসন করতে হবে।

নতুন আগামী তৈরির স্বপ্ন
ড. ঘানুসি দীর্ঘদিন তিউনিশিয়ায় নিষিদ্ধ ছিলেন। তিনি বলেন, ‘‘পৃথিবীর যে কোন দেশে আমি তিউনিশিয়ার কোন বিমান দেখতে পেতাম আমি দেশে ফিরার স্বপ্নে বিভোর হতাম। এমন স্বপ্ন যা ছিল বাস্তবতা থেকে বহু দূরে। আমি কি কোন দিন বাড়ি ফিরতে পারবো? আমি কি আরেকটাবার আমাদের পুত্র-কন্যাদেরকে দেখতে পারবো যারা অসংখ্য কারাগার ও নির্বাসনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে? আমার দেশের রাস্তায় চলাফেরা কি আমার আর কোন দিন হবে? ঈদ-উৎসবে পরিবার, সহকর্মী সহযোগীদের শুভেচ্ছা জানানোর সুযোগ কি আর কোন দিন হবে? আল্লাহর রহমতে সেই স্বপ্ন বাস্তবে পরিণত হয়েছে। সেই স্বপ্ন এখন দিক পরিবর্তন করে তিউনিশিয়ার জন্য একটি নতুন আগামী তৈরির স্বপ্নের দিকে বাঁক নিয়েছে। স্বপ্নটা আমার ভেতরে ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। একটি সুন্দর ও ঐক্যবদ্ধ তিউনিশিয়া গড়ার স্বপ্ন। একটি গণতান্ত্রিক, উন্নত ও সমন্বিত তিউনিশিয়া গড়ার স্বপ্ন। আমাদের অবশ্য দেশবাসীর সাথে এই স্বপ্ন ভাগ করে নিতে হবে। সেই সাথে অতীতকে পেছনে ফেলে ভবিষ্যতের ওপর ভরসা করে আশাবাদী ও সঙ্কল্পবদ্ধ হতে হবে। এটাই হচ্ছে তিউনিশিয়ার স্বপ্ন। বিপ্লবের আকাঙ্ক্ষা বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য এই স্বপ্ন আমাদেরকে কঠোর পরিশ্রম ও ত্যাগ স্বীকার করতে অনুপ্রাণিত করে।

সম্মেলনে তিউনিশিয়ার প্রেসিডেন্টের বক্তব্য
সম্মেলনে তিউনিশিয়ার প্রেসিডেন্ট, জাতীয় সংসদের স্পিকার, প্রধানমন্ত্রীসহ মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ, বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিকবৃন্দ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ এবং দেশ-বিদেশের অনেক অতিথি উপস্থিত হন। তিউনিশিয়ার প্রেসিডেন্ট Beji Caid Essebisi সম্মেলনে প্রদত্ত তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন যে, তিউনিশিয়াতে ২০৪টি রাজনৈতিক দল রয়েছে। প্রেসিডেন্ট হিসেবে সকলের কনফারেন্সে যাওয়া তাঁর পক্ষে কঠিন। কিন্তু তিনি আননাহদার কনফারেন্সে এসেছেন তিউনিশিয়ার জাতীয় ঐক্য, সংহতি ও অগ্রগতি সাধনে আননাহদার গঠনমূলক ভূমিকার কারণে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেশ অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ থেকে রক্ষা পেয়েছে। তিনি ড. ঘানুসি ও আননাহদাকে জাতীয় সমঝোতার ভিত্তিতে দেশ পরিচালনায় ঐকমত্য পোষণ ও সকলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে আধুনিক তিউনিশিয়া গঠনে কার্যকর ভূমিকার জন্য ধন্যবাদ জানান। বিশেষভাবে আননাহদা তাদের অতীত কার্যক্রমের বস্তুনিষ্ঠ যে পর্যালোচনা করেছে তা শুধু দলের জন্য নয় বরং দেশের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। আননাহদার ভূমিকায় প্রমাণিত হয়েছে যে, Islam does not contradict democracy, as is said by Ennahdha in its international forums; that the Islamic movement in Tunisia does not represent a danger to democracy.
পরিশেষে তিনি আশা প্রকাশ করেন যে, আননাহদা সামাজিক ও জাতীয় বাস্তবতার নিরিখে তাদের পলিসি নির্ধারণ করবে এবং তিউনিশিয়ার জনগণের আশা আকাঙ্ক্ষা পূরণে সক্ষম হবে। তাঁর ভাষায়:
I also hope that your work emphasizes the peculiarity of the Ennahdha movement derived from the nature of the society it grew up in, Imposing considering the social and political context, not others, when deciding its policies. Finally, I look forward to the political project of Ennahdha after the adoption of the revisions publicized in this Conference, consistent with the overall national context and responsive to the expectations of the Tunisian people.

আননাহদার পরিবর্তিত কৌশল
তিউনিশিয়ায় জেসমিন বিপ্লবের পর এই বাস্তবতা প্রতীয়মান হয় যে, দেশগঠনে সকল দল ও পথের জনগণের মাঝে চিন্তা ও পলিসিগত গুণগত পরিবর্তন সময়ের দাবি। বিপ্লব পূর্ববর্তী ও পরবর্তী বাস্তবতা অনুধাবন করে আননাহদা তাদের ভিশন, কর্মনীতি ও কর্মসূচি নতুন আঙ্গিকে সাজিয়েছে। বেনআলির রাজত্বকালে চরম যুলুম নির্যাতনের সময় সংগঠন যে অভিজ্ঞতা অর্জন করে তার আলোকে বিপ্লব-পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আননাহদা ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করে। আননাহদা মনে করে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে নতুন ভাবে পলিসি নির্ধারণ করা প্রয়োজন। যার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার পরিচালনা, জনসাধারণের সাথে সম্পৃক্ত বিভিন্ন বিষয়ে সংগঠন আরও যোগ্যতার সাথে ভূমিকা পালন করতে সক্ষম হবে। এই জন্য দেশের ভেতর ও বাইরে গঠনমূলক পর্যালোচনা করা হয়। উক্ত পর্যালোচনার মাধ্যমে কতিপয় চিত্র ফুটে উঠেছে।
জনাব আব্দুর রউফ আন নাযযারকে প্রধান করে আননাহদা সম্মেলন কমিটি গঠন করে এবং সম্মেলন উপলক্ষে একটি প্রস্তাবনা তৈরি করা হয়। উক্ত প্রস্তাবনার আলোকেই কৌশলগত পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। নিম্নে পরিবর্তিত কৌশলের মৌলিক কয়েকটি বিষয় তুলে ধরা হলো :
ধর্ম ও রাজনীতি পৃথকীকরণ : রাজনৈতিক ও ধর্মীয় বিষয় পৃথকীকরণে আননাহদার বর্তমান দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে নানা জনে নানা মত পোষণ করেন। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি গবেষক Rory McCarthy, এর মতে, It was easier for the party to advance an Islamist message when it was an underground opposition movement, but “now they have to make compromises and reassess what it means to be a political movement”. He sees a potential split in the future between the political wing and others who criticize the concessions and compromises made by the party since 201. ইসলাম পূর্ণাঙ্গ জীবনবিধান- এই কনসেপ্টের সাথে পরিবর্তিত কৌশল কি সাংঘর্ষিক? ধর্মনিরপেক্ষতাবাদীদের ধর্ম ও রাজনীতি পৃথকীকরণের সাথে তাহলে পার্থক্য কোথায়? এই ধরনের প্রশ্নের জবাবে ড. রাশিদ ঘানুসি বলেন, ‘‘ইসলাম পূর্ণাঙ্গ জীবনবিধান। রাসূলে কারীম হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মুকাম্মাল নেয়ামে হায়াতের পূর্ণাঙ্গ রূপ দিয়ে গিয়েছেন। রাসূলে কারীম (সা) রেসালাতের দায়িত্ব পালন করেন; রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে রাষ্ট্র পরিচালনা করেন। একই সাথে প্রধান বিচারপতি ও প্রধান সেনাপতির দায়িত্ব পালন করেন। কিন্তু তাঁর ওফাতের পর খিলাফাতে রাশেদার সময় থেকে আস্তে আস্তে পৃথক বিচার বিভাগ গড়ে ওঠে। খলিফা কর্তৃক প্রধান সেনাপতি নিয়োগ দেয়া হয়। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন বিভাগ ও দফতর সৃষ্টি করা হয়। অতএব, রাজনীতি ও ধর্মকে আলাদা করার অর্থ ধর্মনিরপেক্ষতাবাদীদের মত ধর্মহীনতা নয়। এই বিভাজন ইসলামের পূর্ণাঙ্গ রূপরেখার বিভিন্ন দিক সুন্দরভাবে বাস্তবায়নের জন্য প্রত্যেক ফিল্ডে অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের স্ব স্ব ফিল্ডে স্বাতন্ত্র্য বজায় রেখে কাজ করতে দেয়া (distinction based on specific field, knowledge and expertise)। যারা রাজনীতিতে দক্ষ তারা রাজনৈতিক ফিল্ডে কাজ করবে। আর যারা শরিয়াহর ওপর দক্ষ তারা শরিয়াহর বিষয়ে আরও একনিষ্ঠতার সাথে কাজ করবে। প্রত্যেক ফিল্ডের সকলেই একে অপরের পরিপূরক হিসাবে কাজ করবেন। যারা ধর্মীয় ব্যাখ্যা বিশ্লেষণে অভিজ্ঞ কিন্তু রাজনৈতিক ফিল্ডে অভিজ্ঞ নন। তাঁরা রাজনীতির পরিবর্তে ইসলামের সার্বজনীন সুমহান বাণী সকলের মাঝেই প্রচার করবেন। আরও যারা দাওয়াত ও নাসিহার কাজ করেন তাদের সাথে উদারভাবে উক্ত কাজে শরিক হবেন। আর রাজনীতি যারা করবেন তারাও ধর্মীয় মূল্যবোধের চর্চা করবেন।
ইসলামের মৌলিক নীতিমালায় কারো কোন বিরোধ নেই। কিন্তু রাজনৈতিক পলিসির ব্যাপারে যে কারো দ্বিমত থাকতে পারে। তাই ইসলামের মূল্যবোধ সকলের মাঝে রাজনৈতিক সংকীর্ণ দৃষ্টিভঙ্গির ঊর্ধ্বে উঠে প্রচার করা প্রয়োজন। বর্তমানে আননাহদা পরিচয় দিচ্ছে ‘‘মুসলিম ডেমোক্রেট” হিসাবে। ড. রাশিদ ঘানুসি সম্প্রতি একটি কনফারেন্সে স্পষ্ট করেন যে যারা পলিটিক্যাল ইসলাম পরিভাষা ব্যবহার করেন এই শব্দটির ওপর আমার নিজের ঘোর আপত্তি রয়েছে। যেহেতু ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবনবিধান তাই সঙ্গত কারণেই এতে মানবজীবনের প্রতিটি মৌলিক দিকের সুস্পষ্ট বক্তব্য আছে। রাজনীতি সে রকমই একটি অধ্যায়। আমরা ইসলামের অর্থনীতির ব্যাপারে ‘‘ইকোনমিক্যাল ইসলাম” না বলে ‘‘ইকোনোমিকস ইন ইসলাম” বলি। সংস্কৃতির ব্যাপারে কালচারাল ইসলাম না বলে কালচার ইন ইসলাম বা ইসলামিক কালচার বলি। তেমনি রাজনীতির ব্যাপারে ‘‘পলিটিক্যাল ইসলাম” না হয়ে শব্দটি যদি ইসলামি পলিটিক্স বা পলিটিক্স ইন ইসলাম বলি তাহলে যথার্থ হতো। ইসলামকে আমরা যদি পূর্ণ ও সুস্থ মানব শরীরের সাথে তুলনা করি তাহলে মানব শরীরের প্রতিটি সেকশনের গুরুত্ব ও পূর্ণতার সাথে ইসলামের প্রতিটি শাখার গুরুত্ব ও পূর্ণতার বিষয়টি অনুধাবন করতে পারবো। মানব শরীরের একটি শাখা যদি ফরংধনষব হয়ে যায় তাহলে তার প্রভাব যেভাবে গোটা শরীরে disorder সৃষ্টি হয়, তেমনি ইসলামের যে কোন একটি শাখা যদি disable হয়ে যায় বা নিষ্ক্রিয় করে দেয়া হয় তাহলে দ্বীন ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান হিসাবে তার পরিপূর্ণ সৌন্দর্যতা বা কার্যকারিতা হারায়। যেমন শিক্ষানীতির ব্যাপারে কুরআন-সুন্নাহয় ছড়িয়ে ছিটিয়ে যেসব মূলনীতির কথা বলা আছে মুসলমানদের কোনো সমাজে যখন সেই নীতি সমূহকে উপেক্ষা করে শিক্ষানীতি প্রণয়ন করা হয় তখন এটি ঐ সমাজের সংস্কৃতি, রাজনীতি, অর্থনীতিসহ সকল মৌলিক শাখাকেই প্রভাবিত করবে। সংস্কৃতি, রাজনীতি, অর্থনীতি ইত্যাদি মৌলিক শাখাসমূহে যতই ইসলাম থাকুক যদি শিক্ষানীতির মতো একটি মৌলিক শাখাতে ইসলাম না থাকে তাহলে সেটি বাদবাকিগুলোকেও প্রভাবিত করবে। এভাবে একটি আরেকটির পূর্ণতার জন্য ওতপ্রোতভাবে সম্পৃক্ত।
উপরিউক্ত দৃষ্টিভঙ্গির সমালোচনা করে কেউ কেউ বলেন, ‘‘পরিবর্তিত কৌশলের কারণে আননাহদাকে মুসলিম লীগের মত ভাগ্যবরণ করতে হবে । তাদের মতে ইসলামী মূল্যবোধের কথা বলা হলেও মুসলমানদের একটি রাজনৈতিক দলের সদস্যদের ইসলামকে পরিপূর্ণ জানার, বুঝার ও অনুশীলনের কর্মসূচি না থাকলে আননাহদার বিকল্প রাজনৈতিক শক্তি সময়ের ব্যবধানের দাঁড়িয়ে যাবে। অবশ্য ড: ঘানুসি এটাকে কৌশল হিসাবে উল্লেখ করেছেন। তিনি সূরা কাহাফের ১৯-২০ নম্বর আয়াত উদ্ধৃত করে বলেন, আসহাবে কাহাফ গুহার ভেতর জেগে ওঠার পর তাদের একজনকে রূপার মুদ্রাসহ বাজারে পাঠায় তখন নির্দেশিকা দেয়া হয় যেন সব চেয়ে ভালো খাবার কোথায় পাওয়া যায় তা আনে এবং সে যেন সতর্ক থাকে যেন কেউ তাদের এখানে থাকার বিষযটি টের না পায়। আরও স্মরণ করিয়ে দেয় যে, ‘‘যদি তোমাদের কথা তাদের কাছে প্রকাশ পায় তাহলে অবশ্যই তারা তোমাদেরকে পাথর মেরে শেষ করবে, অথবা তাদের দীনে তোমাদেরকে ফিরিয়ে নেবে। যদি তা-ই হয় তা হলে তোমরা কখনো সফল হতে পারবে না।” এই দুইটি আয়াতে টার্গেট হাসিলে কৌশলী হওয়ার শিক্ষা রয়েছে। আর কৌশল গোপন রাখার বিষয়েও দীক্ষা আছে।
◊ আননাহদা নিম্নবর্ণিত নীতি ও মূল্যবোধের ওপর প্রতিষ্ঠিত থাকবে:
◊ স্বাধীনতা : জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা। সকল নাগরিকের মৌলিক অধিকার, বাকস্বাধীনতা, চিন্তা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা থাকবে। সকল নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার সুরক্ষা করা হবে।
◊ মর্যাদা : সকল মানুষের ব্যক্তিগত ও সামাজিক মর্যাদা সুরক্ষা করা হবে। কেননা আল্লাহ তায়ালা সকল বনি আদমকে সম্মানিত করেছেন। প্রত্যেক নর-নারী, শাসক-শাসিত, ধনী-গরিব, জীবিত-মৃত, ধর্মপরায়ণ-ধর্মহীন, সকল ভাষাভাষী ও বর্ণের মানুষের মানবিক মর্যাদা রক্ষায় আননাহদা বদ্ধপরিকর। কারো প্রতি অন্যায় ও কারো মৌলিক অধিকার হরণ করা হবে না।
◊ কর্মসংস্থান : সকলের জন্য কর্মসৃষ্টি ও সকল ধরনের পেশাকে মর্যাদার দৃষ্টিতে দেখা।
◊ আদল : সামাজিক সুবিচার প্রতিষ্ঠা। যুলুম নয় ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করা।
◊ শূরা : পরামর্শভিত্তিক কাজ করা। গণতান্ত্রিক সমাজে বিভিন্ন বিষয়ে নাগরিকদের মতামত নেয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
◊ বিরোধ নয় ঐক্য: দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য ছোটখাটো বিষয়ে বিরোধিতার পরিবর্তে একতার মনোভাব সৃষ্টি করা।
◊ পারস্পরিক সহযোগিতা, সহমর্মিতা ও অপরকে অগ্রাধিকার সামাজিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্কের মূলভিত্তি হিসাবে প্রতিষ্ঠা করা। সমাজ ও রাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ক হচ্ছে পরস্পরের সাহায্য ও সহযোগিতার।
◊ মধ্যমপন্থা : আত্মিক ও বস্তুগত, ব্যক্তিগত ও সামাজিক সকল ক্ষেত্রে মধ্যমপন্থার নীতি অবলম্বন করা। কোন ক্ষেত্রে উগ্রতা প্রদর্শন না করা। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে মধ্যমপন্থা হচ্ছে ব্যক্তির মালিকানার স্বীকৃতি এবং সামাজিক দায়বদ্ধতা।
◊ ইসলাহ : চিন্তার পরিশুদ্ধি, সামাজিক ও অর্থনৈতিক সংস্কার সাধন করা।
◊ আমানত : জবাবদিহিতার অনুভূতি সৃষ্টি।
◊ ধর্মীয় মূল্যবোধের ভিত্তিতে মানুষের আত্মিক উন্নয়ন, সততা, নিষ্ঠার ভাবধারা জাগ্রত করা। কপটতা, প্রদর্শনেচ্ছামুক্ত হয়ে আত্মশুদ্ধির অনুভূতি জাগ্রত করা।
◊ আননাহদা একটি মুসলিম গণতান্ত্রিক দল হিসাবে ইসলামী মূল্যবোধের ভিত্তিতে দেশে সাংবিধানিক সরকার কাঠামোর ধারাবাহিকতা বজায় রাখাকে গুরুত্ব দেবে। স্বাধীনতা, শান্তি, অর্থনৈতিক উন্নতি ও মানবিক মর্যাদা সমুন্নত রাখতে ভূমিকা পালন করবে। ন্যায় ও ইনসাফের মূলনীতির ভিত্তিতে আধুনিক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে তিউনিশিয়াকে প্রতিষ্ঠা করা। শান্তি, পারস্পরিক স্বার্থ ও সহযোগিতার মূলনীতির ভিত্তিতে সকল বৈদেশিক রাষ্ট্রের সাথে সুসম্পর্ক রক্ষা করবে।

আননাহদার দৃষ্টিতে কতিপয় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে
সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা বজায় ও আরব বসন্তের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে পূর্ণাঙ্গ সংবিধান রচনা। দেশের স্বার্থে রাজনৈতিক বিভিন্ন মত ও পথের অনুসারীদের মাঝে ঐক্য। অর্থনৈতিক সংস্কার। দেশের উন্নয়নে উৎপাদন বৃদ্ধি, শিল্প প্রতিষ্ঠায় দেশী-বিদেশী বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা। দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠা ও স্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি এবং উগ্রবাদ দমন করা। দ্বীন এর নামে কেউ যেন সন্ত্রাসবাদ বা জঙ্গিবাদের মত উগ্রপন্থা অবলম্বন করতে না পারে। হতাশার কারণে কোন যুবক যেন বিপথগামী না হয়। সংকীর্ণ রাজনৈতিক কারণে কেউ যেন সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যের পথ বেছে না নেয়। আন্তর্জাতিক কোন সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দ্বারা যেন কেউ প্রভাবিত হতে না পারে। সৌদি আরব ও ইরানসহ আন্তর্জাতিক ইস্যুসমূহে কূটনৈতিক কৌশলী ভূমিকা পালন করা। মধ্যপ্রাচ্যের কিছু দেশে একদিকে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সরকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন চলছে অপর দিকে রাজতান্ত্রিক বা ডিক্টেটরশিপ চালু রয়েছে। যেভাবে অস্ত্র দিয়ে মধ্যপ্রাচ্য বা অন্যান্য দেশে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ বাধানো হচ্ছে, আননাহদা তা সমর্থন করে না। বরং ভারসাম্যপূর্ণ কূটনৈতিক নীতির মাধ্যমে সন্ধি, সমঝোতা ও শান্তি স্থাপন করতে চায়। বৈদেশিক কূটনৈতিক সম্পর্কের নীতির সাথে দেশের জনগণের অর্থনৈতিক অবস্থা লাভবান বা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। তবে আননাহদা সর্বাবস্থাই দেশের সাংবিধানিক সরকারের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর। উগ্রবাদ যেন দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও গণতান্ত্রিক পরিবেশ বাধাগ্রস্ত করতে না পারে।
রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানসমূহে সংস্কার সাধন করা অন্যতম চ্যালেঞ্জ। বিপ্লবের চেতনা বাস্তবায়নে সেনাবাহিনীসহ রাষ্ট্রের সকল অঙ্গ ও প্রতিষ্ঠানসমূহে চিন্তার ঐক্য স্থাপন করতে হবে। আননাহদা জনগণের আস্থা ও নির্ভরশীলতা অর্জন করাও একটি চ্যালেঞ্জ। আননাহদার ক্ষমতার অভিজ্ঞতা অর্জন হয়েছে; পরাজয় বরণের অভিজ্ঞতাও হয়েছে। আবার জনগণের আস্থা ও নির্ভরশীলতা অর্জন করতে হবে। এই জন্য সাংগঠনিক দুর্বলতাসমূহ চিহ্নিত করতে হবে। জনগণের সমস্যা সমাধানে নতুন নতুন চিন্তা ভাবনা সুচিন্তিত ভাবে পেশ করতে হবে। জনগণের সমস্যা সমাধানে জাতীয় সংলাপ এর আয়োজন করতে হবে। যুবসমাজ ও নারীদের মাঝে যে নেতিবাচক ধারণা আছে তা দূর করার প্রচেষ্টা চালাতে হবে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্ত মোকাবিলা করে আননাহদা যে শান্তিময়, স্থিতিশীল, অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ, গণতান্ত্রিক তিউনিশিয়া গঠনে সক্ষম সেই বিশ্বাস জনমনে বদ্ধমূল করতে হবে।
আননাহদার অগ্রাধিকার হচ্ছে: অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও উৎপাদনমুখী প্রজেক্ট বাস্তবায়ন। শান্তি প্রতিষ্ঠা ও উগ্রবাদ দমন করা। প্রশাসনিক সংস্কার সাধন ও যুবকদের সমস্যা সমাধান অগ্রাধিকার দিয়ে রাজনৈতিক সংস্কার সাধন। স্থিতিশীল গণতান্ত্রিক পরিবেশ বজায় রাখা। ক্ষমতাভোগের জন্য কোয়ালিশন সরকারে যোগদান নয় বরং দেশ ও জনগণের স্বার্থেই কোয়ালিশন সরকারে অংশগ্রহণ করা। রাজনৈতিক দলসমূহের মাঝে পারস্পরিক সম্পর্ক, সৌহার্দ্য স্থাপন এবং দেশের স্বার্থে ঐক্যবদ্ধ ভূমিকা পালন করা। ইসলামী মূল্যবোধ ও ভারসাম্যমূলক সাংবিধানিক নীতিমালার ভিত্তিতে কাজ করা।

সাংগঠনিক কাঠামো পর্যালোচনা
সাংগঠনিক মজবুতি যে কোন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পূর্বশর্ত। কিন্তু সংগঠন কতিপয় ব্যক্তির মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে যদি সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন সংস্কার সাধনে কার্যকর ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয় তখন তার ফল অনেক বেশি পাওয়া যায়। অতএব, সাংগঠনিক কাঠামো অপপড়সসড়ফধঃরাব হওয়া দরকার। সংগঠনের অতীত ভূমিকার বস্তুনিষ্ঠ পর্যালোচনা করা। সংগঠন কতটুকু ভূমিকা রাখার যোগ্যতা ছিল আর কতটুকু রেখেছে? সম্ভাবনা কতটুকু কাজে লাগানো সক্ষম হয়েছে এবং এই ক্ষেত্রে কি ধরনের দুর্বলতা ছিল তা চিহ্নিত করা। সংগঠনের উপায় উপকরণের যথাযথ সঠিক ব্যবহার হয়েছে কি না? নেতৃত্ব ও জনশক্তির মাঝে যোগাযোগ ও সম্পর্কের মূল্যায়ন হওয়া। সংগঠন সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। নারী-পুরুষ, মুসলিম-অমুসলিম নির্বিশেষে সংগঠনে সকলে যোগদান করতে পারবে।

নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক পন্থায় সাংগঠনিক কর্মতৎপরতা
আননাহদা নিয়মতান্ত্রিকভাবে গণতান্ত্রিক পন্থায় সমাজ পরিবর্তনে বিশ্বাসী। সশস্ত্র বিপ্লব বা গোপন গেরিলা আন্দোলনে বিশ্বাসী নয়। যার কারণে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন নির্বাচনে আননাহদা অংশগ্রহণ করে। আরব বসন্তের পর আননাহদা ক্ষমতায় থাকাকালীন উক্ত মৌলিক নীতিমালার ভিত্তিতে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিত করে। নির্বাচনে পরাজয় বরণ করার পর বিজয়ী দলকে অভিনন্দন জানায়। ক্ষমতাসীন দলে অভ্যন্তরীণ কোন্দলে সরকারের ভিত্তি নড়বড়ে হলে কোয়ালিশন সরকারে যোগদান করে গণতান্ত্রিক অভিযাত্রা স্থিতিশীল রাখতে ভূমিকা পালন করে। আননাহদা প্রধান ড. রাশিদ ঘানুসি বহুদলীয় গণতন্ত্রের সমর্থক। সাধারণভাবে মনে করা হয় যে, সেক্যুলারিস্ট এবং রেডিকালিস্টরাই আরব বিশ্বে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় সোচ্চার। ইসলামিস্টরা যেহেতু পাশ্চাত্যের বিরোধী তাই তারা এ ব্যাপারে এত সোচ্চার নয়। যারা সমালোচনা করে বলেন, Islam and democracy did not work তার জবাবে অুুধস Tamimi Zuvi Rachid Ghannouchi A Democrat Within Islamism গ্রন্থের ভূমিকায় মন্তব্য করেন যে, Rachid Ghannouchi leads a school in modern Islamic political thought that advocates democracy and pluralism. He believes democracy to be a set of mechanisms for guaranteeing the sovereignty of the people and for supplying safety valves against corruption and the hegemonic monopoly of power. While insisting on the compatibility of democracy with Islam, he believes that because of their secular foundations, contemporary forms of liberal democracy may not suit Muslim societies W: Nvbywm Zuvi Al-Hurriyyat al-‘Ammah Fid-Dawlah al-Islamiyyah বইতে পাশ্চাত্যের গণতন্ত্র ও ইসলামের মাঝে কতটুকু সাদৃশ্য বা বৈসাদৃশ্য রয়েছে তা সুন্দরভাবে আলোচনা করেন।

আননাহদার পর্যালোচনার প্রস্তাবনা
ইসলামী আন্দোলনগুলোর মধ্যে তিউনিশিয়ার আননাহদা একটা নতুন ধারার প্রবর্তন করেছে। নিজেদের অতীতের বস্তুনিষ্ঠ পর্যালোচনার মাধ্যমে নতুন পথ নির্মাণে আননাহদা যে নেতৃত্ব দিতে পেরেছে তা বাদ বাকি মুসলিম বিশ্বের ইসলামী দল ও আন্দোলনগুলোর জন্য একটা উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।
২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় কনফারেন্সে আননাহদা ৩২ পৃষ্ঠাব্যাপী এক দীর্ঘ পর্যালোচনার প্রস্তাবনা পেশ করে। নিচে তার সারসংক্ষেপ পেশ করা হলো। সম্মেলনে উপস্থিত সদস্যদের মধ্যে ৮১৪ জন এই পর্যালোচনা অনুমোদনের পক্ষে, ৩৮ জন বিপক্ষে ভোট দেন এবং ১০০ জন ভোটদানে বিরত থাকেন।
‘‘নিজেদের অর্জন ও অতীতের পর্যালোচনার ব্যাপারে যারা অঙ্গীকারবদ্ধ একমাত্র তারাই সফল দল ও আন্দোলন। আননাহদা এই পর্যালোচনা শুধুমাত্র ঐতিহাসিক দলিল প্রণয়ন বা তাত্ত্বিক আলোচনার জন্য করছে না। এই সবের জন্য ইতিহাসবিদ ও বিশেষজ্ঞরাই যথেষ্ট। বরং নিজেদেরকে নতুনভাবে উজ্জীবিত করে একটা সম্ভাবনাময় নতুন ভবিষ্যৎ নির্মাণ এবং ব্যাপক প্রভাব বিস্তারের ক্ষমতা অর্জন করাই এই পর্যালোচনার লক্ষ্য। আমাদের আন্দোলন স্বেচ্ছায়, সচেতনভাবে একসাথে মিলে যে আত্মসমালোচনা করেছে এই পর্যালোচনা তারই ফলশ্রুতি। এর জন্য একটা সাহসী ও ব্যাপক অভ্যন্তরীণ আলোচনা পরিচালনা করা হয়েছে। এই কাজের কেন্দ্রীয় লক্ষ্য ছিল অতীত থেকে শিক্ষা নেয়া। যাতে করে একটা নির্মোহ পর্যালোচনার মাধ্যমে আল্লাহর মেহেরবানিতে যেসব অর্জন হয়েছে তাকে আরও সামনে এগিয়ে নেয়া এবং যেসব ত্রুটি, ভুল-ভ্রান্তি এবং অবহেলা হয়েছে তা থেকে সবক গ্রহণ করে ভবিষ্যতের কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশনা গ্রহণ করা যায়।
একাধিক কার্যক্রমের মাধ্যমে এই পর্যালোচনা পরিচালনা করা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণগুলো হচ্ছে : আমাদের কাজ ও প্রধান প্রধান সিদ্ধান্তসমূহ যেসব মৌলিক নীতিমালার ওপর নির্ভরশীল ছিলো তার পরিপূর্ণ পর্যালোচনা করা। সিদ্ধান্ত ও পলিসি প্রণয়নে এই সব নীতিমালা কতটা অনুসরণ করা হয়েছে তা খতিয়ে দেখা। প্রতিটি পলিসি ও কর্মসূচি প্রণয়নে সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী বডিগুলো কতটা ন্যায়নিষ্ঠ ছিল তা পর্যালোচনা করে দেখা। সংগঠনের কার্যকরী বডিগুলো পরিকল্পনা বাস্তবায়নে কতটা প্রয়োজনীয় উপায় উপকরণ ও লজিস্টিক সহায়তা প্রদান করেছে তা পরীক্ষা করে দেখা। প্রশ্ন করে দেখা যে, এক সিদ্ধান্ত থেকে অন্য সিদ্ধান্তে যাওয়ার আগে প্রথমটির যাবতীয় শর্তাবলি পরিপূর্ণ করা হয়েছিলো কিনা? পরিশেষে প্রত্যেক পর্যায়ের সফলতা নির্ণয়ে ভেতর ও বাইরের বিভিন্ন প্রেক্ষাপট কতটা প্রভাবিত করেছে তা পর্যালোচনা করে দেখা। নেহায়েত সাংগঠনিক অর্থে মূল্যায়ন বা অনুসন্ধানই নয়; দায়িত্ব নির্ণয় শুধুমাত্র আন্দোলনের অভ্যন্তরীণ পরিবেশের ওপরই প্রভাব ফেলে না বা এর কাজের ক্ষতি করে না বরং দলের জাতীয় ও নাগরিক দায়িত্ব পালনের তাগিদেই এই পর্যালোচনা করা হয়েছে। এই পদক্ষেপ ব্যক্তিগত জবাবদিহিতার চাইতেও সংস্কারের প্রয়োজনেই অধিক গুরুত্বপূর্ণ।

তথ্যসূত্র
Azzam S. Tamimi (2001) Rachid Ghannouchi A Democrat Within Islamism, OXFORD UNIVERSITY PRESS
ড. মোস্তফা মোহাম্মদ তাহান (২০১০) আল হারাকাতুল ইসলামিয়্যা ফি শিমালি আফরিকা, সালমিয়্যা কুয়েত আবদুর রউফ নাজ্জার (২০১৬) লাওয়ায়েহ মুতামার আল আশির, আল হারাকাহ আননাহদাহ

(সমাপ্ত)

SHARE

Leave a Reply