post

লুটেরা মানসিকতা

আমীর হামযা

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

মানবিক গুণের দিক থেকে আমাদের সমাজ খুব বেশি এগোয়নি বরং যে তিমিরে ছিল সেই তিমিরেই রয়ে গেছে, সেটা বোধ হয় না বলাই ভালো। মানবিক হওয়ার বাসনা থাকলেও আমরা তা হয়ে উঠতে পারিনি। আগের মতো অমানবিক আচার আচরণে অভ্যস্ত আছি। এর নমুনা মাঝেমধ্যে প্রকাশ পায় খুব নগ্নভাবে। বিশেষ করে বড় বিপদ বা দুর্যোগের সময় এর প্রকাশ ঘটে। দেশে মানুষের সামাজিক সম্পর্ক ঢিলেঢালা হয়ে গেছে, মিলেমিশে বসবাসের উপযোগিতা হারাচ্ছে, এ কথা বলা কি খুব বাড়াবাড়ি হবে! এটি তো ঠিক, আমরা অতীতে যেমন ছিলাম; এখনো সেই তিমিরে স্থির দাঁড়িয়ে। জোর যার মুল্লুক তার মার্কা সমাজ ব্যবস্থাপনা আমরা পছন্দ করি। সে কথা বলার জন্য আজকের এ লেখার অবতারণা।  

বাংলাদেশের জনমানসের একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য- অন্যের সংকট পুঁজি করে নিজের আখের গোছানোর মানসিকতা। সবার মনে হতে পারে এ প্রবণতা মুষ্টিমেয় কিছু ব্যক্তি বা কোনো গোষ্ঠীর। সর্বস্তরে ছড়িয়ে পড়েনি। সামাজিক এ দুষ্টক্ষত শুধু কতিপয় লুটেরা বা সুযোগসন্ধানীর মধ্যে সীমাবদ্ধ। সাধারণীকরণ করলে বড় ভুল হবে। প্রান্তিক এ উপসংহার আমজনতার প্রতি অপবাদ বৈ আর কিছু নয়। সবার মতের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে এমন প্রান্তিক মন্তব্যের সপক্ষে কয়েকটি লক্ষণ উল্লেখ করে বক্তব্য তুলে ধরতে চাই। 

অন্যকে অসহায় করে নিজের ষোলোআনা লাভ তুলে নেওয়ার মানসিকতা অনেক পুরনো। মুখে যে যত কথাই বলি না কেন, মনে রাখা আবশ্যক, মানুষ তখনই মানবিক হয়ে উঠতে পারে যখন ঐশী জ্ঞানে হৃদয়-মন আলোকিত হয়। সেই আলোয় জীবননীতি পরিচালিত হয়। এ দৃষ্টিকোণ থেকে এ কথা বলা যেতেই পারে, আমাদের সমাজের সব শ্রেণির মনোজগৎই এখনো দূষিত। অনেকটাই অমানবিক। হোক সে ধনী কিংবা গরিব। সবাই লোভ-লালসার কাছে পরাভূত। ধনী-গরিবের মানসিকতা একাকার হয়ে এক কাতারে এসে দাঁড়ায় অর্থ হাতিয়ে নিতে। তখন বৈধ, অবৈধের বাছবিচার আর থাকে না। লোপ পায়।   

প্রবাদ-প্রবচন সমাজের আয়না। সুদীর্ঘ অভিজ্ঞতার আলোকে কোনো মানবসমাজে এগুলোর প্রচলন হয়। আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে ঝোপ বুঝে কোপ মারার  কথা। মানে, নিজের স্বার্থ সংরক্ষণে বা সুবিধায় কাজ করা। নিজেদের চার পাশে এখন এমন মানসিকতার লোক গিজগিজ করছে। 

কথায় আছে ‘কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ’- এর মানে কী? পৌষ মাস একই সাথে কিভাবে কারো জন্য ভালো; আবার কারো জন্য সর্বনাশের কারণ হতে পারে? বাংলা বর্ষের অগ্রহায়ণ মাসে মাঠের ফসল তোলা শেষে পৌষে আবহমান গ্রামবাংলার ঘরে ঘরে পার্বণের আনন্দ বয়ে যেত। এখন অবশ্য আনন্দ-উৎসবের ধরন কিছুটা পাল্টেছে। গ্রামে কৃষকসমাজে পৌষের উৎসবে ভাটা পড়লেও শহুরে বিত্তবানরা কিন্তু ঘটা করে নবান্ন উৎসবে মাতোয়ারা হয়ে পড়েন। তা দেখে আমাদের চোখ জুড়ায়। সবাই আরাম পায়; এটা যে ঐতিহ্য! 

উপরে উল্লিখিত প্রবচনের প্রচলন এ জন্য যে, পৌষ মাস শুধু আনন্দ-উৎসব বয়ে আনে না; অনেকের জীবনে সর্বনাশেরও কারণ হতে পারে, যদি তীব্র শীত বা হাড়কাঁপানো ঠাণ্ডা পড়ে; সেই ঠাণ্ডা সবার জন্য না হলেও দরিদ্রদের জন্য কষ্টদায়ক। গরম কাপড়ের অভাবে শীতে হয়ে পড়ে বড্ড কাহিল। যার কারণে পৌষ মাস শুধু উৎসবের নয়; শীতের কষ্টও বয়ে আনে। পীড়ার কারণ হয়ে ধরা দেয় গরিবের জীবনে। তাই তো পৌষ মাস ধনীর কাছে আকাক্সক্ষার হলেও গরিবের জন্য কষ্টের।

মানুষের বিপদকে পুঁজি করে মওকা মারার অনেক উদাহরণ দেওয়া যায়। তবে সাম্প্রতিক সময়ে একটি যুতসই উদাহরণ সৃষ্টি করেছে সিলেট অঞ্চলে এবারের বর্ষা মৌসুমে আকস্মিক বন্যার দুর্যোগকালে নৌকামালিকদের অমানবিক অচরণ। বন্যাকবলিত এলাকায় নৌকা ভাড়ার দাবি করা হয় অবিশ্বাস্য রকমে। সেই আবদার না মেটানোয় (পড়তে হবে সামর্থ্য না থাকায়) অন্তঃসত্ত্বাকে ফেলে চলে যাওয়ার ঘটনা ঘটে। ঠিক একই ধরনের চিত্র দেখা যায়, শহরাঞ্চলে রোদ-বৃষ্টি-ঝড় কিংবা ভ্যাপসা গরমে রিকশাওয়ালার রিকশা দ্বিগুণ ভাড়া হাঁকানোর প্রবণতায়। দাবি অনুযায়ী ভাড়া না পেলে রিকশা পাওয়া মুশকিল। যদিও অতিমানবিকেরা বলতে পারেন, কেন শুধু শুধু গরিবকে দোষারোপ। মুরোদ নেই ক্ষমতাবানদের লুটপাটের কাহিনী বয়ানে। শুধু শুধু শ্রমজীবী রিকশাওয়ালার সমালোচনা। অথচ তারা রোদ বৃষ্টি ঝড়ে কষ্ট করে যাত্রী বয়ে বাড়তি টাকা আয় করেন। বুর্জুয়া মানসিকতা আর কাকে বলে! কুৎসিত মনের নোংরামি আর কাকে বলে!

তবে ভয়াবহ বন্যায় সিলেটে নৌকাসংকটে ভাড়া যে অস্বাভাবিক বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল তা তো সত্যি। এতে উদ্ধারকাজে নৌকা মিলছিল না। নৌকার মালিকেরা দুর্গত মানুষকে পণবন্দি করে ৮০০ টাকার ভাড়া ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। না দিলে অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ফেলে যান। মওকা মারতে নৌকার মালিক-মাঝিরা একাকার। উভয়ের কারসাজি। দুর্যোগ তাদের কাছে আশীর্বাদ।

বিপদে যে কারো কারো বুদ্ধি খোলে দেশবাসী বিষয়টি আঁচ করতে পেরেছেন করোনা অতিমারীর সময়ে। তখন জীবাণুনাশক উপকরণ বিক্রি করে দু-চার পয়সা বাড়তি কামিয়েছেন অনেকে। করোনা পরীক্ষায় যে কাণ্ড ঘটেছে তা ছিল নজিরবিহীন। ভুয়া করোনা পরীক্ষার কারিগর সাহেদ-সাবরিনার নাম ‘মিসাইল’ হয়ে থাকবে বহুকাল। 

দুর্দিনে সুযোগসন্ধানীদের যে আয় বাড়ে ভাটি বাংলায় এর নজির অতীতেও যেমন ছিল; এখনো বহাল তবিয়তে আছে। সেই কৌশল (অপকৌশল) খুবই জনপ্রিয়; ব্যবসার নামে অনেকে এ কম্ম করছে অবলীলায়। প্রতারণার জাল বিছানো রয়েছে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে। গভীরে। মনের গহিনে গেঁথে আছে মতলবি সব চিন্তা। ঐতিহ্যের যথাযথ সংরক্ষণ আর কাকে বলে! এ প্রসঙ্গে একটি গ্রামীণ গল্প বলা অপ্রাসঙ্গিক হবে না। গল্পটি এমন- ‘গেরস্তের বাড়ি আগুন লেগেছে; সেই সল্লকে (সুযোগ) আলু পোড়া খাওয়ার ধুম পড়েছে’। আগুন নেভালে সেই সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যাবে ভয়ে কেউ আর আগুন নেভাতে চায় না। পোড়া আলু খানেওয়ালাদের সুবর্ণ সুযোগ কিভাবে আরো দীর্ঘায়িত হয় তাতেই তাদের মনোযোগ। এমন মানসিকতার অন্য রূপ হলো, সমাজ সামগ্রিকভাবে বিপদে আপতিত হলে মানুষের অসহায়ত্ব পুঁজি করে মুনাফাখোররা পুঁজির পাহাড় গড়তে ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়ে। তা না হলে চালের ভরা মৌসুমেও দাম বেড়ে যায় কেন? অবশ্য, এর মধ্যেও মুনাফাখোরদের কল্যাণ রয়েছে বৈকি। তারাই তো উপকারভোগী। এ দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে সব ‘ল্যাঠা’ চুকে যায়! তা হলে সিন্ডিকেটের অপবাদ আর থাকে না। কলঙ্কতিলক মুছে যায়। জোগান ও সরবরাহের অজুহাতে সময়ে সময়ে মুনাফা করতে আর কোনো অসুবিধেয় পড়তে হয় না।

লেখার শুরুতেই বলছিলাম আমরা এখনো মানবিক হয়ে উঠতে পারিনি। এ কথার সপক্ষে আরো বহু নমুনা পেশ করা যায়। সেসব টানলে লেখা বড় হয়ে পাঠকের ধৈর্যচ্যুতি ঘটতে পারে। প্রশ্ন হচ্ছে- আমাদের লুটেরা মানসিকতার কবে অবসান হবে?

লেখক : সাংবাদিক

আপনার মন্তব্য লিখুন

কপিরাইট © বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির