post

হেফাজতে ইসলাম ও আওয়ামী রাজনীতি

মুহাম্মদ হাফিজুর রহমান

০৩ জুন ২০২৩

বাংলাদেশের সবুজ উদার জমিনের সাথে এ দেশের মানুষের চিন্তা বিশ্বাস এবং চেতনার এক অভূতপূর্ব মেলবন্ধন রয়েছে। এ জনপদের কয়েক হাজার বছরের ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় যে, এখানকার মানুষ কখনো কোনো ধর্মহীন বিশ্বাসের সাথে নিজেদের জীবনপ্রণালীকে একাকার করে নেয়নি। হেফাজতের আন্দোলনে শামিল হয়ে এ দেশের অযুত জনতা তাদের ঐতিহ্য, আদর্শ আর বিশ্বাসের জানান দিয়েছিল। বাংলাদেশের কিছু পথভ্রষ্ট ব্লগারের ইসলামবিদ্বেষী কার্যকলাপ এবং রাজনৈতিক এক মহা সংকটকালে হেফাজতের উত্থান। হেফাজতের ডাকে সাড়া দেয় বাংলাদেশের আবাল বৃদ্ধ যুবক জনতা। এ জনপদের মানুষের আদর্শ বিশ্বাস ও চেতনার অগ্নিস্ফুলিঙ্গ হিসেবে হেফাজতের আবির্ভাব। হেফাজতে ইসলাম আন্দোলনের যে দাবানলের উন্মেষ ঘটিয়েছিল সে দিকে যদি তাকাই তবে দেখতে পাই- জনতার বাঁধ ভাঙা স্রােত আসছে। মিছিলের পর মিছিল রাজপথকে প্রকম্পিত করছে। সরকারের তরফে অঘোষিত কারফিউ, গাড়ি, লঞ্চ সব বন্ধ কিন্তু মানুষ রাজধানীমুখে আসছে। সকল বাধা-প্রতিবন্ধকতা মাড়িয়ে তারা এসেছিলো রাজধানীতে। ২০১৩ সালের এপ্রিল ও মে মাসে দুটি বড় সমাবেশ করে হেফাজতে ইসলাম। এপ্রিল মাসে অনুষ্ঠিত হয়েছে মহাসমাবেশ এবং মে মাসে ঘোষিত ঢাকা অবরোধও অবশেষে সমাবেশে রূপ নেয়। বাংলাদেশের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক ইতিহাসে এতো বৃহৎ সমাবেশ জনগণ দেখেনি। অরাজনৈতিক সংগঠনের রাজনৈতিক উত্থান সকল মহলকে নতুন করে ভাবতে শিখিয়েছে। রাজধানী অভিমুখে জনতার আছড়ে পড়া ঢেউয়ের পেছনে অতি লোভনীয় কিছু পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস ছিলো না। হৃদয় কোণে লালিত আদর্শ, বিশ্বাস ও ভালোবাসার টানেই জনতা হেফাজতের আন্দোলনের প্রতি সাড়া দিয়েছিল। 

বর্তমান সরকার কর্তৃক গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল জনাব আবদুল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেয়। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশকে মৃত্যুদণ্ডে রূপান্তরের দাবিতে একদল যুবক শাহবাগে অবস্থান কর্মসূচি শুরু করে। শাহবাগের গণজমায়েতকে ফলপ্রসূ করার জন্য সরকার এবং তাদের সমর্থক সকল প্রতিষ্ঠান পৃষ্ঠপোষকতা দিতে থাকে। সকল মিডিয়া একযোগে সার্বক্ষণিক লাইভ প্রচার করতে থাকে। স্কুল কলেজের কোমলমতি শিশুদের এ সমাবেশে আসতে বাধ্য করা হয়। নামে বেনামে বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে সরকার দলীয় কর্মীরা প্রতিদিন এ জমায়েতকে ভারী করার চেষ্টা করতে থাকে। তিন বেলা খাবার আর নানান সুযোগ সুবিধা দিয়ে একে ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে বড়ো করার কসরত চলতে থাকে নিয়মিত। সময়ের কাঁটার সাথে সাথে শাহবাগের তথাকথিত গণজাগরণ মঞ্চের আসল উদ্দেশ্য উন্মোচিত হতে থাকে। যুদ্ধাপরাধ বিচার নয় ইসলাম উৎখাতই যে তাদের আসল উদ্দেশ্য, সে থলের বিড়াল বেরিয়ে পড়তে শুরু করে। বাংলাদেশের জনগণের ঘাড়ে ভর করা চরম ফ্যাসিবাদকে স্থায়ী করার এক জঘন্য পরিকল্পনায় যে শাহবাগের উত্থান তা আস্তে আস্তে প্রকাশিত হয়ে যায়। শাহবাগের উদ্যোক্তাদের প্রায় সকলেই ছিলো ব্লগার। ব্লগাররা নিয়মিত আল্লাহ, রাসূল, ঈমান, নামাজ, রোজা, হজ, কুরবানিসহ ইসলামের সকল বিধি বিধানগুলোকে নিয়ে নিয়মিত জঘন্য সব ব্লগ লিখতো। এ লেখাগুলো যখন মানুষের সামনে প্রকাশিত হতে থাকে তখন মানুষ বুঝতে পারে এরা আসলে কারা, এদের উদ্দেশ্য কী? শাহবাগের বিরুদ্ধে তাই শাপলার উত্থান বাংলাদেশের রাজনীতিতে বড় ধরনের ঝাঁকুনি দিতে সক্ষম হয়। শুধু শাপলা চত্বরের সমাবেশই নয়, সারাদেশের প্রতিটি জেলা উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন পর্যন্ত হেফাজতের আন্দোলনের ঢেউ লাগে। 

শাহবাগের বিপরীতে শাপলার উত্থান এ দেশের মানুষকে তাদের শেকড়কে আঁকড়ে ধরে দৃঢ় থাকার জন্য নব প্রেরণায় উজ্জীবিত করে। শাহবাগের প্রতি জনগণের সিম্প্যাথি সংগ্রহের জন্য মাসাধিককালব্যাপী সরকার সমর্থক সকল মিডিয়ার যে প্রচেষ্টা তা মুখ থুবড়ে পড়ে। জনতা শাহবাগীদের ফাঁসির দাবিতে রাজপথে নেমে আসতে বাধ্য হয়। তাদের মনে ক্ষোভ, যারা আমাদের প্রিয় নবীকে নিয়ে জঘন্য ভাষায় গালি দিয়েছে, আল্লাহ ও কুরআন, হাদিসকে নিয়ে ব্যঙ্গ করেছে। ব্যঙ্গ করেছে নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, ঈদ ও কুরবানি নিয়ে। জনতা এসেছে তাদের সেই জঘন্য অপকর্মের প্রতিবাদ জানাতে। তাদের এ প্রতিবাদী মিছিলকে স্বাগত জানিয়েছে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী। সফেদ পাঞ্জাবি পরা মানুষগুলোকে মনে হয়েছে জান্নাতি কোনো কাফেলা সম্মুখপানে ছুটে চলছে। শাহবাগ চত্বরের মতো এখানে রজনীগন্ধ্যা হাতে প্রিয়ার হাত ধরে ছুটে চলা কোনো কপোত কপোতীর দৃশ্য ছিলো না। রমণীর হাত থেকে সুগন্ধি রুমালের খুশবু গ্রহণের ব্যবস্থা ছিলো না। প্রিয়ার বাহুর মাঝে নিজেকে সঁপে দেওয়ার পরিবর্তে এখানে শঙ্কা ছিল, আশঙ্কা ছিল সরকারি দলীয় কর্মী বাহিনী এবং পেটুয়া বাহিনীর লাঠি, গুলির। সরকার এবং মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে গাওয়া ঘিয়ের বিরিয়ানির ব্যবস্থা ছিলো না। তবে গ্রামীণ যে মানুষগুলো রাজধানীতে ছুটে এসেছে ঈমান ও বিবেকের টানে। তাদেরকে শহরবাসী আপ্যায়িত করেছে হৃদয়ের সবটুকু ভালোবাসা দিয়ে। সে ভালোবাসা হৃদয়ের গহিনের। তাতে কোন কৃত্রিমতা ছিলো না। এ ভালোবাসা ছিল সব কিছু উজাড় করে দেওয়ার। কারো হাতে পানির বোতল, কারো হাতে টিস্যু পেপার, কারো হাতে শরবতের গ্লাস, কেউ আপ্যায়িত করছেন শসা, তরমুজ, কলা দিয়ে। কেউবা বাসা থেকে তৈরি করে এনেছেন রুটি, অনেকেই দোকান থেকে কিনে এনেছেন পাউরুটি বিস্কুট, যে যেভাবে পারছেন আগত মানুষগুলোকে আপ্যায়ন করানোর চেষ্টা করেছেন। কে কার আগে আপ্যায়ন করাবেন তার প্রতিযোগিতা চলেছে। যেন আপ্যায়ন করানোর মধ্যেই মহা তৃপ্তি। 

অজানা অখ্যাত মানুষগুলো প্রকৃত মানবতা এবং মানবিকতার প্রকাশ ঘটিয়েছিল সেদিন। যারা আপ্যায়ন করিয়েছেন এবং যারা মিছিল নিয়ে এসেছেন সবারই একটাই দাবি ছিলো, আমাদেরকে আমাদের বিশ্বাস ও আদর্শ নিয়ে বাঁচতে দাও, আমার নবীর শানে বেয়াদবি বন্ধ কর, আল্লাহ, কুরআন, হাদিস, নামাজ, রোজা নিয়ে ব্যঙ্গ বিদ্রুপ বন্ধ কর। মুসলমানদের কাছে তার ঈমান সবচেয়ে বড় সম্পদ। সেই সম্পদের উপর যখন  কেউ ছুরি চালায় ঈমানদাররা আর তখন ঘরে বসে থাকতে পারে না। জনতার এ স্রােত প্রমাণ করেছে আমাদের চিরায়ত বিশ্বাসগুলোর ভিত্তিমূলে আঘাত করে কেউ টিকতে পারবে না। শাহবাগে ফ্যাসিবাদের উত্থানে পরিবেশ এমন দাঁড়িয়েছিল যে, দাড়ি-টুপি নিয়ে রাস্তায় চলাচল নিরাপদ নয়, ইসলামের পক্ষে কথা বললে মৌলবাদী, যুদ্ধাপরাধী, ইসলামী রাজনীতিবিদরা কোণঠাসা, ইসলামের নামে সভা-সমিতি বা সংঘ করলে তা বড় অপরাধ, ইসলাম মানেই ভয়ঙ্কর কিছু। ইসলামপন্থী জনতার মাঝে ভয়-শঙ্কা, তাদের মধ্যে আত্মগোপনে থাকার একটি পলায়নপর মনোবৃত্তি। সাধারণ জনতার মনে এই চিন্তা, ইসলাম ও ইসলামী আদর্শ নিয়ে বুঝি এই দেশে আর বসবাস করা যাবে না। সেই জনতার মাঝে নতুন করে আশা জাগিয়েছে ৬ এপ্রিলের লংমার্চ এবং ৫ মের ঢাকা অবরোধ-যা পরবর্তীতে শাপলার সমাবেশে রূপান্তরিত হয়েছে। ২০১৩ সালের ৬ এপ্রিল বাংলাদেশে ইসলাম যেন নতুনভাবে আবির্ভূত হয়েছিলো। নারায়ে তাকবির স্লোগানে মুখরিত হয়েছিলো রাজপথ। যেই মানুষগুলো কখনো জনসভায় বক্তব্য দেননি ঐদিন তারা ছিলেন রাজপথের জনসভার মধ্যমণি। যারা কখনো মিছিলে যোগদান করেননি তারাই মিছিলে নেতৃত্ব দিয়েছেন। 

শাহবাগে ফ্যাসিবাদের যে উত্থান হয়েছিলো তা বাংলাদেশের মানুষকে দু’ভাগে বিভক্ত করে ফেলেছিলো। একদিকে ইসলামী আদর্শে বিশ্বাসী ঈমানদাররা, অপরদিকে ধর্মবিদ্বেষী নাস্তিক সম্প্রদায়। প্রথমভাগে দেশের সিংহভাগ মানুষ, দ্বিতীয়ভাগে গুটিকয়েক বাম-রাম-নাস্তিক ও তাদের পৃষ্ঠপোষকগণ। দুর্ভাগ্যের বিষয় হচ্ছে এ গুটিকয়েক মানুষের পক্ষ অবলম্বন করে সরকার এবং সরকার সমর্থক সকল মিডিয়া দেশের সিংহভাগ মানুষের বিপক্ষে পরিস্থিতি এমন করেছিলো যে শাহবাগই যেন বাংলাদেশ। দেশের অধিকাংশ মিডিয়া আওয়ামী এবং বাম সমর্থক হওয়ায় যে কোনো বিষয়েই সরকারের পালে খুব দ্রুত হাওয়া লাগে এবং তারা অতি সহজেই জনমতকে জবরদস্তিমূলকভাবে তাদের পক্ষে রাখার চেষ্টা করে। শাহবাগে তথাকথিত গণজাগরণের নামে সরকার এবং সরকার সমর্থক মিডিয়াগুলোর এই বাড়াবাড়ি জনগণ দেখেছে অনেকদিন ধরে। কিন্তু যখন অতিষ্ঠ জনতার হৃদয়ের ভাষাগুলোকে ক্ষোভে-বিক্ষোভে রূপ নেয় এবং জনতার মনের ভাষাগুলোকে দাবি আকারে পেশ করে হেফাজতে ইসলাম।  তখন এ আন্দোলনের পক্ষে জনতার তীব্র স্রােত সরকার এবং তার সহযোগীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে বেড়ে ওঠা শাহবাগের কালো সাপের বিষাক্ত দাঁতগুলো খসে পড়ে, তীব্র নখর উঁচিয়ে ধেয়ে আসা হিংস্র  শাপদের নখগুলি ভোঁতা হয়ে যায়, উন্মত্ত হায়েনার অট্টহাসি ম্লান হয়ে তা বিষাদে রূপ নয়। শাহবাগের সেই গণজাগরণ যেন কোনো পচা দুর্গন্ধময় লাশ। এর বিপরীতে শাপলার রক্ত যুগের পর যুগ অযুত জনতাকে শাহাদাতের তামান্নায় উদ্দীপ্ত করবে। 

৫ মে হেফাজতের সমাবেশকে ঘিরে ৬ মে সরকার যে ম্যাচাকার ঘটিয়েছে, ইতিহাসের পাতায় তা জঘন্য গণহত্যা হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে। শাপলার দগদগে ক্ষতকে ভুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হলেও ঈমানী চেতনায় উদ্দীপ্ত জনতা সহজে এগুলো ভুলবে না। সেদিন কত মানুষকে হত্যা করা হয়েছে আর কতজন আহত হয়েছে সে আলোচনায় আমরা যাবো না। তবে শাপলা ম্যাচাকারের আগেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে দিগন্ত টেলিভিশন ও ইসলামিক টেলিভিশন। তার আগে খড়গ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে আমার দেশ পত্রিকার ওপর। হেফাজতের হত্যাকাণ্ড নিয়ে মানবাধিকার সংগঠন ‘অধিকার’ প্রতিবেদন পেশ করায় এর সাধারণ সম্পাদককে গ্রেফতার করা হয়েছে, অধিকারের  রেজিস্ট্রেশন বাতিল করা হয়েছে। এরপর একের পর এক মামলা হতে থাকে হেফাজতের নেতাদের নামে। সারাদেশে চলে আলেমদের গ্রেফতার। হেফাজতের নেতাদের নামে এখন মামলার সংখ্যা দুই শতাধিক। সরকারের সাথে আলোচনার মাধ্যমে অনেকেই ছাড়া পেয়েছেন। সংবাদমাধ্যমে জানা গেছে বাকিরাও হয়তো দ্রুত মুক্তি পাবেন। হেফাজতের রক্তাক্ত আন্দোলনের পর প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে তাদেরকে দাওয়াত দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কওমি মাদরাসার সনদের সরকার স্বীকৃতি দিয়েছে। সরকারের সাথে তাদের এখন একটি যোগাযোগ আছে। এ বিষয়টিকে একেকজন একেকভাবে ব্যাখ্যা করছেন। হয়তো সরকারের সাথে তাদের এখন একটি গভীর যোগাযোগ আছে। সরকারের সাথে তাদের যোগাযোগ ও সংলাপ কতটুকু ঠিক আর কতটুকু বেঠিক আগামীর ইতিহাসই তা বিচার করবে। তবে শাহবাগী ফ্যাসিবাদের বিপরীতে হেফাজতের উত্থানকে খাটো করে দেখার সুযোগ নেই। 

হেফাজতের নেতাদের অতি বিশ্বাস এবং আত্মবিশ্বাস হয়তো বাস্তব অবস্থার চেয়ে অনেক বেশি ছিলো। তারা হয়তো ভেবেছেন শুধুমাত্র কওমি মাদরাসার ছাত্রদের দ্বারাই একটি আন্দোলনকে চূড়ান্ত মঞ্জিলে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। তবে বাস্তবতা অতি কঠিন। ঈমানী চেতনায় বলীয়ান প্রতিটি বাংলাদেশি নাগরিকই হেফাজতের দাবিগুলোর প্রতি সমর্থন জানিয়েছে। এ দেশের জনগণের আবেগ আছে, ভাবাবেগ আছে। ইসলাম প্রশ্নে তারা যতটা আবেগের বহিঃপ্রকাশ ঘটায়, ইসলামকে মানার ক্ষেত্রে তারা ততোটা আগ্রহী নয়। এই জনপদে ইসলামের প্রচার প্রসার এবং ইসলামী শিক্ষা দানের ক্ষেত্রে আলেমদের অবদান সর্বাগ্রগণ্য। ইসলামী শিক্ষার কেন্দ্র হিসেবে দেশে নানা ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালু রয়েছে। দেশের আপামর জনতার অধিকাংশ জীবনের শুরুতে মক্তবে দ্বীনি শিক্ষা গ্রহণ করে থাকে। যেটিকে ইসলামী শিক্ষার প্রাথমিক কেন্দ্র বলা যায়। ইসলামী উচ্চ শিক্ষার জন্য আলিয়া এবং কওমি দুটি ধারা চালু রয়েছে। ইসলামী শিক্ষার প্রসারে দুটি ধারারই সমান অবদান রয়েছে। কোনো এক অজানা কারণে এ দুটি ধারার মধ্যে এক ধরনের বৈরিতা সৃষ্টির চেষ্টা সব সময় দেখা যায় এবং এক ধারার লোক অন্য ধারার লোককে আপন করে নেওয়ার ক্ষেত্রে কোনো এক আজানা বিভেদের রেখা টানা আছে। তা সত্ত্বেও হেফাজতের আন্দোলনে কওমি ধারার আলেমগণ নেতৃত্ব দিলেও আলিয়া, কওমি, সাধারণ জনগণ সকলেই এই আন্দোলনের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছিল। হেফাজত যে দাবিগুলো নিয়ে ময়দানে আবির্ভূত হয়েছিলো তা কোনো একক গোষ্ঠী বা দলের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় ছিলো না। প্রতিটি ঈমানদার মুসলমানের প্রাণের দাবি ছিলো এতে সন্নিহিত। দেশের আপামর জনতার একচ্ছত্র সমর্থন থাকা সত্ত্বেও কেন এ আন্দোলন আজ ¤্রয়িমাণ কিংবা কেন তারা সরকারের অনুগত হয়ে নিশ্চুপ হয়ে আছে তার ইতিবাচক এবং নেতিববাচক আলোচনা অনেক কিছুই আছে, তবে দাবিগুলোর সাথে কোনো ঈমানদার মুসলমানের দ্বিমত করার কোনো সুযোগ নেই।

হেফাজতের তেরো দফা দাবিগুলো অতি সংক্ষেপে পাঠকদের স্মরণ করিয়ে দেওয়ার জন্য তুলে ধরতে চাই- 

১. সংবিধানে আল্লাহর উপর আস্থা ও বিশ্বাস পুনঃস্থাপন এবং কুরআন সুন্নাহ বিরোধী আইন বাতিল করা।

২. আল্লাহ রাসূল সা. ও ইসলাম ধর্মের অবমাননা এবং মুসলমানদের বিরুদ্ধে কুৎসা রোধে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে জাতীয় সংসদে আইন পাস করা।

৩. কথিত শাহবাগী আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী স্বঘোষিত নাস্তিক মুরতাদ এবং আল্লাহ, রাসূল, কুরআন, নামাজ, রোজা, হজ জাকাত নিয়ে কুৎসা রটনাকারী ব্লগার ও ইসলাম বিদ্বেষীদের অপপ্রচার বন্ধসহ কঠোর শাস্তি দানের ব্যবস্থা করা।

৪. ব্যক্তি, বাক স্বাধীনতার নামে সব ধরনের অনাচার, ব্যভিচার, নারী পুরুষের অবাধ বিচরণ, মোমবাতি প্রজ্বলনসহ বিজাতীয় সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ বন্ধ করতে হবে।

৫. ইসলাম বিরোধী নারী নীতি ও ধর্মহীন শিক্ষানীতি বাতিল করে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত ইসলাম ধর্মীয় শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে।

৬. ভণ্ড নবী দাবিদার গোলাম আহমদ কাদিয়ানির অনুসারী কাদিয়ানিদের সরকারিভাবে অমুসলিম ঘোষণা করতে হবে।

৭. মসজিদের নগরী ঢাকাকে মূর্তির নগরে রূপান্তর এবং কলেজ ভার্সিটিতে ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন বন্ধ করতে হবে।

৮. জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ দেশের সব মসজিদে নির্বিঘ্নে নামাজ আদায়ে বাধা বিপত্তি ও প্রতিবন্ধকতা অপসারণ এবং ওয়াজ নসিহত ও ধর্মীয় কার্যকলাপে বাধাদান বন্ধ করা।

৯. রেডিও টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে দাড়ি, টুপি ও ইসলামী কৃষ্টি কালচার নিয়ে হাসিঠাট্টা এবং নাটক সিনেমায় নেতিবাচক চরিত্রে ধর্মীয় লেবাস পরিয়ে অভিনয়ের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের মনে ইসলামের প্রতি বিদ্বেষমূলক মনোভাব সৃষ্টির অপপ্রয়াস বন্ধ করা।

১০. পার্বত্য চট্টগ্রাসহ দেশব্যাপী ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত এন.জি.ও এবং খ্রিষ্টান মিশনারিদের ধর্মান্তকরণসহ সব অপতৎপরতা বন্ধ করা।

১১. রাসূল প্রেমিক আলেম ওলামা মাদরাসার ছাত্র তৌহিদী জনতার ওপর হামলা, দমন পীড়ন, নির্বিচারে গুলিবর্ষণ, গণহত্যা বন্ধ করা।

১২. অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত সব আলেম, ওলামা, মাদরাসার ছাত্র ও তৌহিদী জনতাকে মুক্তি দান, দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, আহত ও নিহতদের ক্ষতিপূরণসহ দুষ্কৃতিকারীদের বিচারের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দিতে হবে।

১৩. বাংলাদেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়সমূহের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিত এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।


‘হেফাজতে ইসলাম’ প্রথম জনগণ ও সরকারের দৃষ্টি আকৃষ্ট করে চট্টগ্রামে শাহবাগীদের সমাবেশ করতে না দিয়ে। সরকারের সকল মহল যৌথভাবে চেষ্টা করেও চট্টগ্রামে শাহবাগীদের সমাবেশ করাতে পারেনি- হেফাজতে ইসলাম নামক একটি নব প্রতিষ্ঠিত অরাজনৈতিক সংগঠনের বাধার কারণে। এরপর সবার টনক নড়ে যখন সকল বাধা, প্রতিবন্ধকতা মাড়িয়ে ৬ এপ্রিল মতিঝিলে মহা গণজাগরণ সৃষ্টি হলো। এরপর থেকে সরকার এবং সরকার সমর্থক বাম মিডিয়া রাজনৈতিক দলগুলো একযোগে নেমে পড়লো অপপ্রচারের যুদ্ধে। হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবি মানলে দেশ মধ্যযুগীয় বর্বরতার যুগে চলে যাবে, আফগানিস্তান হয়ে যাবে, পাকিস্তান হয়ে যাবে। সত্যিই কি তাই? মূলত হেফাজতে ইসলামের ১৩টি দাবি প্রতিটি ঈমানদার মুসলমানের প্রাণের দাবি, দেশপ্রেমিক জনগণের দাবি। কোনো ঈমানদার মুসলমান জেনে বুঝে এ দাবিগুলোর বিরোধিতা করতে পারে না।

জনগণের অযুত সমর্থন এবং ভালোবাসা সত্ত্বেও তবে কেন হেফাজতে ইসলাম তাদের আন্দোলনের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলো না? এ প্রশ্ন হয়তো সামনে আসতে পারে। অনেকেই হয়তো প্রশ্ন তোলেন কোন আত্মবিশ্বাসে বলীয়ান হয়ে ২০১৩ সালের ৫ মে অবরোধের পরিবর্তে শাপলায় সমাবেশ করে রাতে অবস্থানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিলো? হয়তো সকল প্রশ্নের জবাব একদিন আসবে। হেফাজতের নেতৃবৃন্দের চিন্তায় অবশ্যই এটা আসেনি যে সরকার এ ধরনের সর্বগ্রাসী আক্রমণ করে হত্যার মতো জঘন্য পথ বেছে নিবে। তাদের আত্মবিশ্বাস ছিলো যে সরকার এতো বিশাল জমায়েতে হামলা করবে না। একইসাথে দিনের বেলা যে পরিমাণ লোক সমাবেশে জমায়েত ছিলো রাতের বেলা তার অর্ধেক পরিমাণ লোকও সেখানে ছিলো না। তার চেয়েও চরম বাস্তবতা হচ্ছে রাষ্ট্রীয় সকল বাহিনী একযোগে কোনো সমাবেশে হামলা করলে নিরস্ত্র জনতার পক্ষে তা মোকাবিলা করা সম্ভব নয়। কেউ কেউ ইরানের রেজা শাহ পাহলভীর বিরুদ্ধে ইমাম খোমেনীর আন্দোলনের কথা বলেন, যেখানে কয়েক হাজার লোক জীবন দেওয়ার পর রাষ্ট্রীয় বাহিনী গুলি করা বন্ধ করেছিলো এবং জনতার বিজয় হয়েছিলো। মানুষ তার বিশ্বাসকে ধারণ করেই বেঁচে থাকে; সামনে অগ্রসর হয়। তবে বিশ্বাসের সাথে বাস্তবতার মিল থাকা আবশ্যক। 

হেফাজত নেতাদের অতি আত্মবিশ্বাস তাদের সামনের দিনের পথচলাকে মসৃণ করেনি। সরকারের জুলুম নির্যাতন আর মামলা হামলাকে মোকাবিলা করার জন্য যে ধরনের দক্ষ, ত্যাগী এবং সাহসী সংগঠন ও কর্মীবাহিনী দরকার সেটা তারা গড়ে তুলতে পারেননি। এ তিক্ত সত্যকে স্বীকার করে নেওয়াতে সম্ভবত কোনো দোষের কিছু নেই। একটি ইস্যুকে কেন্দ্র করে যে আন্দোলন গড়ে উঠেছে তার মূল জনশক্তি ছিলো কওমি মাদরাসার তালাবে ইলেমরা। তারা অবশ্যই নিঃস্বার্থভাবে শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তোষ লাভের প্রত্যাশায় উস্তাদদের ডাকে সাড়া দিয়ে রাজপথে নেমে এসেছিলো। কওমি মাদরাসার ছাত্ররা স্বাভাবিকভাবেই তাদের ওস্তাদদের প্রতি অতি বেশি আনুগত্যশীল। এমন আনুগত্যশীল ছাত্র বাংলাদেশে প্রচলিত কোনো শিক্ষাব্যবস্থায় গড়ে তোলা সম্ভব নয়। একটি আন্দোলন সেটা রাজনৈতিক কিংবা অরাজনৈতিক যে ধরনেরই হোক না কেন। যেই সমাজ এবং রাষ্ট্র ব্যবস্থায় সেই আন্দোলন পরিচালিত হবে সেই সমাজ ও রাষ্ট্রে বসবাসকারী জনগণের মনস্তত্ত্ব, তাদের অভ্যাস, তাদের কর্মকাণ্ড এবং সেই রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার চতুর্মুখী সমস্যা, ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করার মতো দক্ষ কর্মী বাহিনী তৈরি না হলে সে আন্দোলন সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে না। একদা যে আন্দোলন তুমুল ঢেউ তুলেছিল, তা কেন আজ ম্রিয়মাণ, এ প্রশ্নের জবাবে বলা যায়, একটি ফ্যাসিস্ট সরকারের সাথে মোকাবিলা করে টিকে থাকার মতো দক্ষ জনবল এবং সকল স্তরে কার্যকর নেতৃত্ব অতি অল্প সময়ে গড়ে উঠতে পারেনি।

সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে তাদের সাথে একই মঞ্চে বক্তব্য দেওয়ার পরেও হেফাজতের বিরুদ্ধে মামলা এবং গ্রেফতার বন্ধ হয়নি। সরকার হয়তো একটি আপৎকালীন ব্যবস্থা হিসেবে হেফাজতের নেতাদের সকলকে জামিনে মুক্তির ব্যবস্থা করেছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত একটি মামলাও প্রত্যাহার হয়নি। হেফাজতের নেতৃবৃন্দ হয়তো সরকারের আশ্বাসে তৃপ্তির ঢেকুর তুলছেন, কিন্তু সরকারের আশ্বাস যে একটি রাজনৈতিক কূটকৌশল এতে কোনো সন্দেহ নেই। হেফাজতে ইসলাম একটি অরাজনৈতিক সংগঠন, কিন্তু তাদের দাবিগুলোর বাস্তবায়ন রাজনৈতিক বিষয়। একইভাবে এটিও চিরন্তন বাস্তবতা- ইসলাম আল্লাহর পক্ষ হতে মনোনীত একমাত্র দ্বীন বা জীবনব্যবস্থা। দ্বীন ও দুনিয়াকে পৃথক করা কিংবা ইসলামকে রাজনীতি থেকে পৃথক করার কোনো সুযোগ নেই।

কেউ কেউ হেফাজতের আন্দোলন সঠিক ছিল নাকি বেঠিক ছিল তার যৌক্তিকতা খুঁজতে চান। ফ্যাসিবাদী আস্ফালনের বিরুদ্ধে হেফাজতের ভূমিকা বরং যথার্থ এবং সন্দেহাতীতভাবে ঈমানী দাবি পূরণের জন্য সহায়ক ছিল। তাদের পরবর্তী ভূমিকা কতটুকু যথার্থ এবং সঠিক তা নিয়ে হয়তো প্রশ্ন উত্থাপিত হতে পারে। সনদের স্বীকৃতি আর মামলা তুলে নেবার আশ্বাসে ঈমানী দাবির আন্দোলন থেকে পিছে হটার সুযোগ কতটুকু সে বিষয়ে প্রশ্ন আসতে পারে। শাহবাগে যে ফ্যাসিবাদের উত্থান হয়েছে তার মোকাবিলায় হেফাজতের ভূমিকাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার সুযোগ নেই। অনেকেই বলছেন হেফাজত শেষ হয়ে গেছে। এমনকি সরকারের কোনো একজন মন্ত্রী বলেছেন, (কোড-আনকোড) বেশি বাড়াবাড়ি করলে হেফাজতের মতো এক রাতে সব শেষ করে দিবো। মন্ত্রীর এ কথায় বোঝা যায়, হেফাজতের আন্দোলন নিয়ে সরকার চিন্তিত ছিল। একইভাবে এর সাথে জবাব এসে গেছে ৬ মে রাতে সরকার কি ধরনের ম্যাচাকার করেছে। হেফাজতের ভরা যৌবন আর দেখা যাবে কিনা জানি না। তাদের আন্দোলনী জজবার সেই জৌলুশ আর ফিরে আসবে বলে সম্ভাবনা কম। তবে তারা শাহবাগী ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে ঈমানদীপ্ত জনতার যে ঢেউয়ের সৃষ্টি করেছিলো, তা যুগ ও কালের ব্যবধানে এই জনপদের মানুষকে আবার জেগে ওঠার প্রেরণা জোগাবে ইনশাআল্লাহ। 

সরকারের নির্যাতনের খড়গ আর কারো কারো প্রতি উপহারের ডালি মেলে ধরায় হেফাজতের প্রথম সারিতে নেতৃত্ব দেওয়া কেউ কেউ সরকারের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। বারবার সরকার শব্দটি আসায় এ কথা বোঝাতে চাচ্ছি না যে, হেফাজত সরকার উৎখাতের আন্দোলনে নেমেছিল। মূলত ইসলাম ও মুসলিম উম্মাহর চির দুশমন শাহবাগীদের উত্থান এবং তাদের সকল অন্যায় কাণ্ডের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ছিল বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার এবং শাহবাগীদেরর রক্ষার জন্য সরকার তার সকল অর্গানকে যেভাবে ব্যবহার করেছে তা বাংলাদেশের ইতিহাসে নজিরবিহীন। এ কারণে বারবার সরকার শব্দটি আসছে। ফ্যাসিবাদী আচরণ এবং ইসলাম নির্মূলে সরকারের ভূমিকা আগের চেয়ে আরো বেশি ত্বরান্বিত হয়েছে। এমনি সময়ে হেফাজতে ইসলামের দাবিগুলো নিয়ে তাদের আরো বেশি সোচ্চার হওয়া দরকার ছিল, কিন্তু তারা নিশ্চুপ, নির্বাক হয়ে আছে। দেশের আলেম সমাজের এই নিশ্চুপ এবং নির্বাক ভূমিকা জাতির জন্য কোনো কল্যাণের বার্তা বয়ে আনে না।

আমরা যদি বিগত শতাব্দীর দিকে তাকাই তবে দেখতে পাই..... কমিউনিজমের সয়লাব এক সময় গোটা দুনিয়ার মুসলিম যুবকদেরকে এর বিধ্বংসী থাবায় আক্রান্ত করেছে। রাশিয়ার আশপাশের কুড়িটি মুসলিম রাষ্ট্র সোভিয়েত ইউনিয়নের পেটের মধ্যে ঢুকে গিয়ে এ রাষ্ট্রগুলোর মুসলমানরা নিজেদের আত্ম পরিচয় ভুলে গিয়েছে। ইউনিয়ন ভেঙে যাবার পর মুসলমানরা আবার আত্ম পরিচয়ে জেগে ওঠার স্বপ্ন দেখছে। এশিয়া এবং আফ্রিকার অসংখ্য মুসলিম দেশের তরুণ যুবকরা কমিউনিজমের থাবায় নিজেদের আত্ম পরিচয় ভুলে গেছে। কমিউনিজমের পতনের পর মুসলিম দেশগুলো অধিকাংশ ক্ষেত্রে পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদের কালের পুতুলে পরিণত হয়েছে। একদিকে কমিউনিজমের পতন হয়েছে আর এক দিকে সাম্রাজ্যবাদের গাঁথুনি মজবুত হয়েছে। কমিউনিজম এবং পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদের আগমনের আগে গোটা দুনিয়ায় একক আধিপত্য বিস্তার করেছিল ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ। তারা মুসলিম দেশসমূহ থেকে আস্তে আস্তে ইসলামী আইন কানুন, শিক্ষা, সংস্কৃতিকে বিতাড়ন করে নিজেদের রচিত আইন কার্যকর করেছে। এ সময় সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর আলেমগণ তাদের যথাযথ দায়িত্ব পালন না করে ঘুমিয়ে ছিল অথবা ফিরকা এবং মাজহাবের মাসয়ালাক নিয়ে বিতর্কে লিপ্ত ছিল। এই সুযোগে তারা পৃথিবীর অধিকাংশ মুসলিম দেশে তাদের নিজস্ব আইন রচনা করে তা বাস্তবায়ন করে গেছে। আলেম এবং ইসলামী পণ্ডিতদের নিষ্ক্রিয়তা মুসলমানদের এই কথা ভাবতে শিখিয়েছে যে, রাষ্ট্রীয় আইন পরিবর্তন করায় তাদের ঈমান এবং আমলের কোনো ক্ষতি হবে না। ইসলামী শরিয়াহর সাথে রাষ্ট্রের আইনের কোনো সম্পর্ক নেই। এই ভাবনাগুলো মুসলিম মানসে জায়গা করে নেবার পর আস্তে আস্তে ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ সর্বত্র  ফিরিঙ্গি আর পশ্চিমা সভ্যতাই শুধু নয়, মুসলিম ঘরে নাস্তিক এবং আল্লাহর দুশমন পয়দা হয়েছে। 

শাসকরা হারামকে হালাল, হালালকে হারাম বানাচ্ছে। একদিকে মানব রচিত আইনে শাসনকার্য পরিচালনা করছে অপরদিকে মদিনা সনদের আলোকে দেশ চলছে বলে ঘোষণা দিচ্ছে। নিজেদের ইচ্ছাকে ইসলামের আহকামের ওপর প্রাধান্য দিচ্ছে। মানুষের মৌলিক ও মানবিক অধিকারগুলো পদে পদে লঙ্ঘন করছে। ইসলামী শিক্ষা সংস্কৃতিকে বিতাড়িত করে সেক্যুলার শিক্ষানীতি চাপিয়ে দিচ্ছে। অন্যায় অশ্লীলতা বেহায়াপনার প্রসার ঘটাচ্ছে। বিদেশি সংস্কৃতি আমাদানির নামে চরিত্র বিধ্বংসী সিনেমা প্রদর্শন করা হচ্ছে। আলেম ওলামা এবং ইসলামপ্রিয় জনতার ওপর নির্যাতনের মাত্রা দিনে দিনে বাড়িয়ে দিচ্ছে। একদিকে আলেমদের গণভবনে দাওয়াত করে নিয়ে যাচ্ছে অপরদিকে একই সময়ে অসংখ্য আলেমকে কারারুদ্ধ করছে। সরকারের এইসব ফ্যাসিবাদী কার্যক্রমের বিরুদ্ধে হেফাজত মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছিল বলেই তো সরকার তাদের গুরুত্ব দিয়েছে। আওয়ামী রাজনীতির বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, প্রয়োজনে তারা চরম দুশমনকেও আপন করে নিয়ে স্বার্থ উদ্ধারের পর তাকে আবার ছুড়ে ফেলে দিবে। আওয়ামী রাজনীতির এই ছলচাতুরী আলেমসমাজ অনুধাবন করতে না পারলে আগামীর দিনগুলো আরো বেশি কঠিন হবে। আলেমগণ নবীদের ওয়ারিশ। তাদের ওপর অনেক দায়িত্ব বর্তায়। এতো সব অন্যায় চলতে থাকবে আর তারা নিশ্চুপ বসে থাকবে এটা ঈমান এবং বিবেকের দাবি হতে পারে না। এ দায়িত্ব তারা এড়িয়ে যেতে পারে না। শুধুমাত্র মসজিদ, মাদরাসার চার দেয়ালের মধ্যেই ইসলামের খেদমতের মাধ্যমে দায়িত্ব আদায় হতে পারে না। যার জ্ঞান এবং যোগ্যতা যেমন তাকে আল্লাহর দরবারে তেমন জবাবদিহি করতে হবে। হৃদয়ে আল্লাহর ভালোবাসা এবং তার প্রতি ভয় এবং হুব্বে রাসূলের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে তারা যথার্থ ভূমিকায় অবতীর্ণ হবেন এটাই প্রত্যাশা। 

লেখক : বিশিষ্ট কলামিস্ট ও গবেষক

আপনার মন্তব্য লিখুন

কপিরাইট © বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির